এইমাত্র পাওয়া:

ইতিহাস গড়ে চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশের মেয়েরা

রবিবার, ১০/০৬/২০১৮ @ ৪:২১ অপরাহ্ণ

.নিউজ ডেস্ক : ২১ বছর আগে মালয়েশিয়ায় আইসিসি ট্রফি জিতে নতুন উচ্চতায় উঠেছিল বাংলাদেশের ক্রিকেট। সেই মালয়েশিয়াতেই রচিত হলো আরেকটি ইতিহাস। আগের সব আসরের চ্যাম্পিয়ন, প্রবল পরাক্রমশালী ভারতকে ৩ উইকেটে হারিয়ে এশিয়া কাপ ক্রিকেটে শিরোপা জিতল বাংলাদেশের মেয়েরা।

কুয়ালা লামপুরে রোববার দারুণ বোলিংয়ে ভারতকে ১১২ রানে আটকে রাখে বাংলাদেশ। উত্তেজনাপূর্ণ রান তাড়ায় অনেক চড়াই-উৎরাই শেষে রোমাঞ্চকর জয় ধরা দেয় শেষ বলে।

এশিয়ার ক্রিকেটে প্রায় অপরাজেয় ভারতের বিপক্ষে ফাইনালের জয় স্রেফ একটি ম্যাচের অঘটন নয়। প্রাথমিক পর্বেও দারুণ খেলে ভারতকে হারিয়েছিল বাংলাদেশ। এশিয়া কাপের ইতিহাসেই সেটি ছিল ভারতের প্রথম পরাজয়। সেই দলকেই আবার হারাল বাংলাদেশ। শ্রীলঙ্কার কাছে হার দিয়ে টুর্নামেন্ট শুরুর পর টানা পাঁচ ম্যাচ জিতে শিরোপা জিতল সালমা খাতুনের দল।

ছয়বারের এশিয়ার চ্যাম্পিয়ন ভারতকে ৩ উইকেটে হারিয়ে প্রথমবারের মতো শিরোপা ঘরে তুললো বাংলাদেশ। বাংলাদেশের নারী ক্রিকেটের ইতিহাসে এই প্রথম কোন টুর্নামেন্টের শিরোপা ঘরে তুললো তারা।

রোববার কুয়ালালামপুরের কিনরারা একাডেমি ওভাল মাঠে টস হেরে ব্যাটিংয়ে নামে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন ভারত। ম্যাচটি বাংলাদেশ সময় দুপুর ১২টায় অনুষ্ঠিত হয়। সরাসরি সম্প্রচার করছে স্টার স্পোর্টস-১, গাজী টিভি। যদিও এবারে নারীদের এশিয়া কাপের আগের ম্যাচগুলো কোনো টিভি চ্যানেল সম্প্রচার করেনি।

ব্যাটিংয়ে নেমে দলীয় ১২ রানে মহানন্দাকে রান আউটের ফাঁদে ফেলে উল্লাসের শুরু। এরপর ২৬ রানে দীপ্তি শর্মা, ২৮ রানে মিতালি রাজ, ৩২ রানে আনুজা পাতিল ফিরে গেলে বিপর্যয়ে পড়ে ভারত। সেখান থেকে অন্যপ্রান্তে উইকেট আগলে রেখে রানের চাকা সচল রাখেন হারমনপ্রীত।

শেষ পর্যন্ত ৪২ বলে ৫৬ রানের ঝকঝকে ইনিংস খেলে ইনিংসের শেষ বলে ফেরত যান হারমনপ্রীত। ৫৬ রানের ইনিংসে ৭টি দর্শনীয় চার মারেন হারমনপ্রীত।

বাংলাদেশের পক্ষে রোমানা ও খাদিজা ২টি এবং সালমা ও জাহানারা ১টি করে উইকেট লাভ করেন।

১১৩ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে দারুন সূচনা করে বাংলাদেশের উদ্বোধনী জুটি। ৭ ওভারেই দলীয় স্কোর ৩৫ রান তুলে নেন শামীমা সুলতানা ও আয়েশা রহমান। এরপরই ছন্দপতন ঘটে বাংলাদেশের ইনিংসে। পরপর দুই বলে দুই উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে যায় বাংলাদেশ। এরপর উইকেটে এসে ফারহানা হক নিগার সুলতানকে সঙ্গে নিয়ে ২০ রানের জুটি গড়েন।

এরপরই আবার উইকেটের পতন। এবার ফিরে যান ফারহানা হক। দলীয় ৮৩ রানে ফিরে যান নিগার সুলতানা। এরপর ফাহিমা খাতুনের সঙ্গে রুমানা আহমেদ এসে উইকেটে জুটি গড়েন। কিন্তু বেশি দূর এ জুটি এগুতে পারেনি। দলীয় ৯৬ রানে ফাহিমা আউট হলে বাংলাদশের জয় পাওয়াটা অনেক দূরেই মনে হচ্ছিল। কিন্তু অন্যপাশে অভিজ্ঞ রুমানা বাংলাদেশকে জয়ের স্বপ্ন দেখাতে থাকেন। ঝুলন গোস্বামীর এক ওভারে তিনটি চার মেরে খেলাকে বাংলাদেশের হাতে নিয়ে আসেন রুমানা। মূলত ওই ওভারেই ম্যাচে ঘুরে দাঁড়ায় বাংলাদেশ। ঝুলন ওই ওভারে ১৭ রান দেন।

শেষ পর্যন্ত রুমানা জয় থেকে ২ রান দূরে থাকতে আউট হন। শেষ বলে জাহানারা আলম দুই রান নিলে শিরোপা জয়ের উল্লাসে মাতে বাংলাদেশ।
ম্যাচে গুরুত্বপূর্ণ ২৩ রান ও ২ উইকেট তুলে নেয়ায় প্লেয়ার অব দ্য ম্যাচের পুরস্কার পান রুমানা আহমেদ। আর টুর্নামেন্ট জুড়ে অসাধারণ পারফরম্যান্সের কল্যাণে প্লেয়ার অব দ্য টুর্নামেন্টের পুরস্কান পান ভারতের অধিনায়ক হারমনপ্রীত কাউর।

ভারতের পক্ষে পুনম ইয়াদব ৪টি ও অধিনায়ক হারমনপ্রীত কাউর ২টি উইকেট লাভ করেন।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

ভারত: ২০ ওভারে ১১২/৯ (মিতালি ১১, স্মৃতি ৭, দিপ্তি ৪, হারমানপ্রিত ৫৬, অনুজা ৩, ভেদা ১১, তানিয়া ১, শিখা ১, ঝুলন ১০, একতা ১*; নাহিদা ০/১২, সালমা ১/২৪, খাদিজা ২/২৩, জাহানারা ১/২৩, রুমানা ২/২২, ফাহিমা ০/৮)

বাংলাদেশ: ২০ ওভারে ১১৩/৭ (শামিমা ১৬, আয়েশা ১৭, ফারজানা ১১, নিগার ২৭, রুমানা ২৩, ফাহিমা ৯, সানজিদা ৫ জাহানারা ২*, সালমা ০*; একতা ০/১৩, শিখা ০/১০, দিপ্তি ০/১৯, অনুজা ০/২৩, পুনম ৪/৯, ঝুলন ০/২০, হারমানপ্রিত ২/১৯)।

Ad

সাম্প্রতিক খবর

কপিরাইট © ২০১৬-২০১৭ . সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত. এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা লেখার অংশবিশেষ কিংবা ছবি বিনা অনুমতিতে অন্য কোথাও প্রচার বা প্রকাশ করা নিষিদ্ধ

একুশে পত্রিকা

আমাদের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করতে সাবস্ক্রাইব বাটনে ক্লিক করুন