১১ ডিসেম্বর ২০১৮, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, সোমবার

‘দেশের কোটি মানুষ হেপাটাইটিস ভাইরাস বহন করছে’

প্রকাশিতঃ রবিবার, জুলাই ২৯, ২০১৮, ৬:২০ অপরাহ্ণ

চট্টগ্রাম: দেশের প্রায় এক কোটি মানুষ হেপাটাইটিস বহন করছে জানিয়ে এই ভাইরাস থেকে মুক্ত থাকার জন্য সার্বিক সচেতনতা তৈরীর প্রতি জোর দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের লিভার বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. আবদুল্লাহ আল মাহমুদ

হেপাটাইটিস দিবস উপলক্ষ্যে রোববার চট্টগ্রামে হেপাটাইটিস ভাইরাস বিষয়ে সচেতনতামুলক সেমিনার ও রোগিদের সাথে মতবিনিময় অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

রোববার দুপুরে নগরীর পিটস্টপ রেস্টুরেন্টে কনফারেন্স হলে লিভার রোগ বিশেষজ্ঞ ডাঃ আবদুল্লাহ আল মাহমুদ বলেন, হেপাটাইটিস একটি বৈশ্বিক স্বাস্থ্য সমস্যা। বিশ্বের প্রায় সাড়ে ৩২ কোটি লোক হেপাটাইটিস রোগে আক্রান্ত। অথচ তাদের মধ্যে প্রায় ৩০ কোটি মানুষই নিজের শরীরে এই রোগের উপস্থিতি সম্পর্কে জানেন না। সারাবিশ্বে প্রতিবছর প্রায় তের লক্ষ লোক ভাইরাল হেপাটাইটিসে মারা যায়। যেটি এইডস কিংবা ম্যালেরিয়া রোগে মৃত্যুর চেয়েও বেশী। লিভার ক্যান্সারে মারা যাওয়া প্রতি তিনজনের দুজনই হেপাটাইটিস বি বা সি তে আক্রান্ত থাকে।

তিনি বলেন, অধিকাংশ ক্ষেত্রে পর্যাপ্ত বিশ্রাম, স্বাভাবিক খাদ্য গ্রহণের মাধ্যমে হেপাটাইটিস এ ও ই রোগ সেরে যায়। এক্ষেত্রে ভীত হয়ে কোনরকম ঝাড়-ফুক বা এ জাতীয় অবৈজ্ঞানিক চিকিৎসা থেকে বিরত থাকার পরামর্শ দেন তিনি।

নিরাপদ পানি ও খাবার গ্রহণ, নিরাপদ রক্ত গ্রহণ, নিরাপদ যন্ত্রপাতি ও সুই ব্যবহার, নিরাপদ যৌন মিলন এবং শিরায় মাদক গ্রহণ থেকে বিরত থাকার মাধ্যমে হেপাটাইটিস থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব বলে পরামর্শ দেন।

তিনি আরও বলেন, হেপাটাইটিস বি ও সি রোগের চিকিৎসা দীর্ঘমেয়াদী ও ব্যয়বহুল বিধায় আমাদের মত দেশে প্রতিরোধের ব্যবস্থা করাই শ্রেয়। বর্তমানে হেপাটাইটিস সি রোগের প্রতিষেধক টিকা আবিষ্কৃত না হলেও কার্য্যকর প্রতিষেধক টিকা গ্রহণের মাধ্যমে হেপাটাইটিস বি প্রতিরোধ সম্ভব।

প্রায় দুই শতাধিক রোগি, রোগির স্বজন, চিকিৎসক, ল্যাব টেকনেশিয়ান, জন প্রতিনিধি, শিক্ষক, সাংবাদিক ও সমাজের বিভিন্ন পর্যায়ের গুরুত্বপূর্ণ ব্যাক্তিবর্গ এই সেমিনারে অংশ নেন।

সেমিনারে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন র‌্যাংকস এফসি প্রপার্টিজের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) প্রকৌশলী তানভীর শাহরিয়ার রিমন।

আলোচনা অনুষ্ঠানটি সহযোগিতায় ছিলো হেলথকেয়ার ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেড।