১৫ নভেম্বর ২০১৮, ৩০ কার্তিক ১৪২৫, বুধবার

নির্বাচন সুষ্ঠু হলে আওয়ামী লীগের ভরাডুবি : শাহাদাত

প্রকাশিতঃ শনিবার, অক্টোবর ২০, ২০১৮, ৮:১১ অপরাহ্ণ

চট্টগ্রাম : আগামী নির্বাচন সুষ্ঠু হলে আওয়ামী লীগের ভরাডুবি হবে বলেছেন চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সভাপতি ডা. শাহাদাত হোসেন।

শনিবার (২০অক্টোবর) সকালে চট্টগ্রাম মহানগর মহিলা দলের উদ্যোগে তারেক রহমানকে ফরমায়েশী রায়ে সাজা দেয়ার প্রতিবাদে দলীয় কার্যালয়ের সামনে কেন্দ্রঘোষিত মানববন্ধন কর্মসূচিতে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

ডা. শাহাদাত বলেন, জাতীয় ঐক্যকে সরকার ভয় পাচ্ছে। এই ভয়ে ভীত হয়ে সরকার নির্বাচনি পরিবেশ ধ্বংস করে এক তরফা নির্বাচনের প্রস্তুতি নিচ্ছে। ঐক্যফ্রন্ট গঠনের পর সরকার বিচলিত হয়ে পড়েছে।

সরকার গণতন্ত্রকে নিয়ে ছিনিমিনি খেলছে উল্লেখ করে ডা. শাহাদাত বলেন, যারা গণতন্ত্রের জন্য কথা বলে, গণতন্ত্রের জন্য লড়াই করে তাদেরকে মিথ্যা মামলা দিয়ে সাজা দেয়া হচ্ছে। মানুষের কথা বলার অধিকারকে রুদ্ধ করার জন্য একের পর এক কালো আইন করে যাচ্ছে সরকার। সরাকার সারা দেশে গণগ্রেপ্তারের মাধ্যমে গায়েবী মামলা দিয়ে, গুম-খুন করে বিএনপিকে দমনের চেষ্টা চালাচ্ছে। পুলিশ এখন ক্ষমতাসীন দলের নেতাদের নির্দেশে পুলিশ বিদেশে অবস্থানরত ও মৃত ব্যক্তিদের গায়েবী মামলার আসামি করছে। পুলিশ ঠিক করছে, কোনটা করা যাবে কোনটা করা যাবে না।

দেশে আইনের শাসনের কথা উল্লেখ করে ডা. শাহাদাত বলেন, এই সরকার স্বৈরাচারী ও ফ্যাসিবাদী। দেশে এখন কোন আইনের শাসন নেই। সরকার ক্ষমতায় টিকে থাকার জন্য পুলিশের সাথে চুক্তি করেছে বলে মনে হচ্ছে। দেশকে পুলিশী রাষ্ট্রে পরিণত করা হয়েছে।

প্রধান বক্তা চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সিনিয়র সহসভাপতি আবু সুফিয়ান বলেন, আমরা গণতন্ত্রের কথা বলছি, কিন্তু সরকার গণতন্ত্রকে গণহীন করে তুলেছে। সরকারের সমালোচনা করলেই তাকে রাষ্ট্রদ্রোহী হিসেবে আখ্যায়িত করছে। তারা পুরো দেশটাকে এখন কারাগারে পরিণত করেছে। বেগম খালেদা জিয়াকে ছোট কারাগারে বন্দি করে রেখেছে। তারেক রহমানকে রাজপথে মোকাবেলায় ব্যর্থ হয়ে মিথ্যা সাজানো মামলায় ফরমায়েশী রায়ে সাজা দিয়েছে। এ রায় ন্যায় বিচারের পরিপন্থি।

চট্টগ্রাম মহানগর মহিলা দলের সভাপতি কাউন্সিলর মনোয়ারা বেগম মনির সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক জেলী চৌধুরীর পরিচালনায় মানববন্ধন কর্মসূচিতে সংহতি প্রকাশ করে বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম মহানগর মহিলা দলের সিনিয়র সহ সভাপতি ফাতেমা বাদশা, সহ-সভাপতি শাহেদা বেগম, মারিয়া সেলিম, রেণুকা বেগম, জান্নাতুল নাঈম রিকু, ফরিদা আকতার, নার্গিস বেগম, সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক ছকিনা খাতুন, যুগ্ম সম্পাদক আঁখি সুলতানা, আরজুন নাহার মান্না, রেজিয়া বেগম মুন্নি, মাহমুদা সুলতানা ঝর্ণা, সাংগঠনিক সম্পাদক আতিয়া আকতার উষা, গুলজার বেগম, সায়েরা বেগম, জাহানারা বেগম, কামরুন নাহার, দেওয়ান মাহমুদা আকতার লিটা, নাসরিন বাপ্পি, ফারহানা আকতার, পারভীন চৌধুরী, ইসমত আরা জেরিন, হেনা মনোয়ার, জান্নাতুল ফেরদৌস, নুরী ইউসুফ,
ফাতেমা কাজল, কানিজ ফাতেমা, রোখসানা বেগম, হাবিবা সুলতানা, জোহরা বেগম, ফাতেমা বেগম, রোকেয়া বেগম ও পপি আকতার প্রমুখ।

একুশে/প্রেসবিজ্ঞপ্তি/এসসি