১৪ ডিসেম্বর ২০১৮, ২৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, বৃহস্পতিবার

‘বিএনপি নির্বাচনে অংশ নেবে কি না সে সিদ্ধান্ত দুদিনের মধ্যে’

প্রকাশিতঃ শনিবার, নভেম্বর ১০, ২০১৮, ১০:১৪ অপরাহ্ণ

ঢাকা: বিএনপি নেতৃত্বাধীন জোট নির্বাচনে অংশ নেবে কি না, সে সিদ্ধান্ত আগামী দুদিনের মধ্যে আসছে বলে জানিয়েছেন অলি আহমেদ।

শনিবার গুলশানের কার্যালয়ে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলের নেতাদের বৈঠকের পর সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান এলডিপির সভাপতি অলি।

তিনি বলেন, আজকের বৈঠকে নির্বাচন ও দেশের সার্বিক রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা হয়েছে। নির্বাচনে যাব কি যাব না- এই ব্যাপারে আমরা কোনো সিদ্ধান্ত নেইনি। আগামী দুই দিনের মধ্যেই ২০ দলীয় ঐক্যজোট আমাদের মূল দল বিএনপি ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সাথে কথা বলে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত জাতির সামনে উপস্থাপন করব।

অলি আহমেদ বলেন, জোটনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি হল আমাদের প্রাধান্য, তাকে মুক্তি দিতে হবে। তাহলেই নির্বাচনের পরিবেশ ফিরে আসবে। ২০ দলের অনেক নেতা-কর্মী গ্রেপ্তার হয়েছে। যদিও সরকার বলছে যে, সকলের জন্য নির্বাচনের সমান সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। আমরা মনে করি, এটা কাগজে কলমে সীমাবদ্ধ, পত্রিকার মধ্যে সীমাবদ্ধ। এখনো সকল দলের জন্যে সমান সুযোগ সৃষ্টি হয় নাই।

অলি আহমদের সভাপতিত্বে সন্ধ্যা ৬টা থেকে এক ঘণ্টার এই বৈঠকে বিএনপির নজরুল ইসলাম খান, জাতীয় পার্টির (কাজী জাফর) মোস্তফা জামাল হায়দার, জামায়াতের আবদুল হালিম, বিজেপির আন্দালিব রহমান পার্থ, খেলাফত মজলিশের মাওলানা মুহাম্মদ ইসহাক, আহমেদ আবদুল কাদের, ইসলামী ঐক্যজোটের মাওলানা এম এ রকীব, কল্যাণ পার্টির সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম, এলডিপির রেদোয়ান আহমেদ, জাগপার তাসমিয়া প্রধান, এনডিপির ফরিদুজ্জামান ফরহাদ, লেবার পার্টির মোস্তাফিজুর রহমান, মুসলিম লীগের এএইচএম কামরুজ্জামান খান, পিপলস লীগের গরীবে নেওয়াজ, ন্যাপ ভাসানীর আজহারুল ইসলাম, ডিএলের সাইফুদ্দিন আহমেদ মনি, সাম্যবাদী দলের সাঈদ আহমেদ, জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের মাওলানা নুর হোসেইন কাসেমী, মুফতি মুহাম্মদ ওয়াক্কাস, বাংলাদেশ জাতীয় দলের সৈয়দ এহসানুল হুদা, পিপলস পার্টি অব বাংলাদেশের রিটা রহমান, মাইনরিটি জনতা পার্টির সুকৃতি কুমার মণ্ডল প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এই বৈঠকের আগে নির্বাচনে অংশগ্রহণ নিয়ে আলোচনা করেন বিএনপির সর্বোচ্চ নীতি নির্ধারণী ফোরাম স্থায়ী কমিটির নেতারা।