১২ ডিসেম্বর ২০১৮, ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, মঙ্গলবার

তারেকের সাক্ষাৎকার নিয়ে প্রশ্ন তুললেন কাদের

প্রকাশিতঃ রবিবার, নভেম্বর ১৮, ২০১৮, ৪:১৫ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিনিধি : আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রার্থী চুড়ান্ত করতে বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক কার্যালয় গুলশানে দলটির মনোনয় বোর্ডের সাক্ষাৎকার শুরু হয় সকাল নয়টা থেকে।

লন্ডন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে মনোনয়নপ্রত্যাশীদের এই সাক্ষাৎকারে অংশ নেন তারেক রহমান। আর এটিকে আইনের পরিপন্থী হিসেবে দেখছে আওয়ামী লীগ। তাই আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের তারেক রহমানের এই সাক্ষাতকারের বিষয়ে আপত্তি জানিয়েছেন। তিন মামলার দণ্ডপ্রাপ্ত পলাতক আসামি কীভাবে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে মনোনয়নপ্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার নিচ্ছেন তার আইনগত দিক খতিয়ে দেখার জন্য নির্বাচন কমিশনকে (ইসি) আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে অনুরোধও জানান।

রবিবার (১৮ নভেম্বর) সচিবালয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন তিনি।

ওবায়দুল কাদের বলেন, একজন দণ্ডিত, সাজাপ্রাপ্ত-পলাতক আসামি দলীয় ফোরামে এ ধরনের বক্তব্য দিতে পারে কিনা সেটা আমি জাতির কাছে বলব। জাতির কাছে এর বিচার চাইছি।

তিনি প্রশ্ন রেখে বলেন, দণ্ডিত অবস্থায় তারেক রহমান দলীয় মনোনয়ন কার্যক্রমে অংশ নিতে পারেন কিনা। আর কেউ এভাবে ভিডিও কনফারেন্স করে নির্বাচনী প্রক্রিয়ায় অংশ নিতে পারে কিনা এ ব্যাপারে ইলেকশন কমিশনের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

বিএনপি চেয়ারপারসন সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার ছেলে তারেক রহমান এক দশক আগে জরুরি অবস্থার সময় দেশ ছাড়ার পর থেকেই পরিবার নিয়ে লন্ডনে বসবাস করছেন।

এর মধ্যে দুটি দুর্নীতি মামলায় তাকে ১৭ বছর এবং ২১ অগাস্ট গ্রেনেড মামলায় যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত।

দুর্নীতির দুই মামলায় দণ্ডিত খালেদা জিয়া গত ফেব্রুয়ারি থেকে কারাবন্দি। তার অবর্তমানে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান হিসেবে লন্ডন থেকে দল চালাচ্ছেন তারেক রহমান। তবে আদালতের রায়ে তাদের দুজনেরই নির্বাচনে অংশগ্রহণের সুযোগ অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে।

এদিকে দুর্নীতিবাজদের পদে না রাখার ধারা বাদ দিয়ে বিএনপির তাদের গঠনতন্ত্রে যে সংশোধনী এনেছিল, তা গ্রহণ না করতে নির্বাচন কমিশনকে একটি নির্দেশনা দিয়েছে হাই কোর্ট। এর ফলে খালেদা ও তারেককে দলীয় নেতৃত্বে রাখার পথও কার্যত আটকে গেছে।

একুশে/এসসি