শনিবার, ৪ জুলাই ২০২০, ২০ আষাঢ় ১৪২৭

করোনা-আক্রান্ত সাংবাদিক সাহসসঞ্চার সেল কার্যালয়ে জার্মান প্রকৌশলী জ্যোতির্ময়

প্রকাশিতঃ বৃহস্পতিবার, জুন ৪, ২০২০, ৯:৩৬ অপরাহ্ণ

চট্টগ্রাম : করোনা-আক্রান্ত সাংবাদিক সাহসসঞ্চার সেল-এর অস্থায়ী কার্যালয় পরিদর্শন করেছেন জার্মান ইনস্টিটউট অব অলটারনেটিভ অ্যানার্জিতে রিসার্চ অফিসার ও জার্মান ইনস্টিটউট অব অলটারনেটিভ এনার্জির বাংলাদেশ প্রতিনিধি তড়িৎ প্রকৌশলী জ্যোতির্ময় ধর।

মঙ্গলবার (২ জুন) দুপুরে নগরের জামালখান একুশে পত্রিকাস্থ করোনা-আক্রান্ত সাংবাদিক সাহসসঞ্চার সেল-এর অস্থায়ী কার্যালয়ে একুশ পত্রিকা সম্পাদক ও প্লাটফর্মটির উদ্যোক্তা আজাদ তালুকদার তাকে স্বাগত জানান। এসময় একুশে পত্রিকার সম্পাদকীয় পরামর্শক, নারীনেত্রী অ্যাডভোকেট রেহানা বেগম রানু উপস্থিত ছিলেন।

তরুণ প্রকৌশলী জ্যোতির্ময় ধর বৈশ্বিক বিপর্যয় আর মানবিক বিপর্যয় একাকার হয়ে তৈরি হওয়া যুগপৎ মানবিক সঙ্কটে এইধরনের প্লাটফরম করে সাংবাদিকসহ আক্রান্ত মানুষদের পাশে দাঁড়ানোর সাহসী উদ্যোগকে স্বাগত জানান এবং ভূঁয়শী প্রশংসা করেন।

তিনি বলেন, করোনা-আক্রান্ত রোগীদের যেখানে ঘৃণা, অবহেলার চোখে দেখছে সবাই, আইসোলেশনের নামে তাদের প্রতি যখন সমাজের অচ্ছ্যু, অসহায়, অবহেলা ও ঘৃণার দৃষ্টিভঙ্গি, তখনই সাহস নিয়ে বিশেষ করে আক্রান্ত-সাংবাদিকদের পাশে দাঁড়ানো, তাদের শয্যাপাশে যাওয়া, প্রতিনিয়িত সাহস-উৎসাহ ও চিকিৎসাসেবায় নিয়োজিত থাকা সত্যিই অনন্য সাধারণ এবং ব্যতিক্রম এক দৃষ্টান্ত।

তিনি করোনা-আক্রান্ত সাংবাদিকদের সুস্থতা ও কল্যাণে সাহসসঞ্চার সেল-এর সাথে একযোগে কাজ করার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। ইতোমধ্যে করোনা পরিস্থিতির কারণে সংবাদকর্মী ও সংবাদপত্র শিল্পের সাথে জড়িত শতাধিক মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন জ্যোতির্ময় ধর। শুধু তাই নয়, যেখানেই মানবতা ভূলুণ্টিত হচ্ছে, চিকিৎসাসেবা ও আহারের প্রয়োজন হচ্ছে সেখানেই ছুটে যাচ্ছেন তিনি।

প্রসঙ্গত, জার্মান প্রকৌশলী জ্যোতির্ময় ধর বাংলাদেশে পাওয়ার সেক্টরে বিনিয়োগ করার উদ্দেশ্যে জার্মান ইনস্টিটউট অব অলটারনেটিভ এনার্জির বাংলাদেশ প্রতিনিধি হয়ে ১৯ বছর পর সম্প্রতি বাংলাদেশ আসেন। কিন্তু ভাগ্য সুপ্রসন্ন হয়নি তার। আসার ১৫ দিনের মধ্যেই পড়ে যান করোনা লকডাউনে। শেষমেষ নিজের সর্বস্ব দিয়ে যুক্ত হয়ে পড়েন মানবিক কর্মযজ্ঞে। অল্পদিনে নিজেকে দাঁড় করিয়েছেন মানবতার ফেরিওয়ালা হিসেবে।

প্রকৌশলী জ্যোতির্ময় ধর চট্টগ্রাম শিক্ষাবোর্ডের সাবেক চেয়ারম্যান অধ্যাপক রণজিৎ কুমার ধর ও চট্টগ্রাম আর্ট কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর রীতা দত্তের একমাত্র পুত্র এবং দৈনিক আজাদীর প্রয়াত বার্তা সম্পাদক সাধন ধরের দৌহিত্র।