বুধবার, ১৫ জুলাই ২০২০, ৩১ আষাঢ় ১৪২৭

ডেটলাইন চট্টগ্রাম : একমাসেই করোনা রোগী ৮৬ থেকে ৩৫৩৭

প্রকাশিতঃ বৃহস্পতিবার, জুন ৪, ২০২০, ১০:২৭ অপরাহ্ণ

একু্শে প্রতিবেদক : ৩ এপ্রিল প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয় চট্টগ্রামে। এরপর থেকে চট্টগ্রামে বেড়ে চলে করোনা রোগীর সংখ্যা। ৩ এপ্রিল থেকে ৩ মে এক মাসে চট্টগ্রামে ৮৬ জনের মাঝে করোনাভাইরাস শনাক্ত হতে দেখা যায়। কিন্তু, ৪ মে থেকে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে দেশের বাণিজ্যিক রাজধানী চট্টগ্রামে

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা। ০৪ মে থেকে গতকাল ০৩ জুন পর্যন্ত এই একমাসে চট্টগ্রামের ৩৪৫১ জনের মাঝে করোনা শনাক্ত করা হয়েছে। আগের ৮৬ জনসহ যেটি ৩৫৩৭ জনে দাঁড়িয়েছে। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট,চিকিৎসক,আইনজীবী, সাংবাদিক, শিল্পপতি,পুলিশ,বন্দর এবং গার্মেন্টসে কর্মরত কর্মকর্তা কর্মচারীসহ প্রায় সব শ্রেণিপেশার মানুষ রয়েছেন চট্টগ্রামে করোনা-আক্রান্তদের মধ্যে। দেখা যাচ্ছে, ২-১ টা দিন ছাড়া ৩ এপ্রিল থেকে ৩ জুন এই দুই মাস সময়ের প্রতিদিনই করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে চট্টগ্রামে। বুধবার পর্যন্ত যার সংখ্যা ৩৫৩৭ জনে গিয়ে ঠেকল।

উপরের তথ্যটি নিছক চট্টগ্রাম জেলার। কিন্তু চট্টগ্রামে শনাক্ত হয়েছে আরও বিভিন্ন জেলার করোনা রোগী। চট্টগ্রাম সিভিল সার্জনের তথ্য মতে, চট্টগ্রামে প্রতিদিন চট্টগ্রাম ছাড়াও লক্ষ্মীপুর, বান্দরবান, রাঙ্গামাটি, নোয়াখালী, ফেনীসহ বিভিন্ন জেলার মানুষের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। যার মধ্যে প্রায় প্রতিদিনই এসব জেলার মানুষের মধ্যে করোনাভাইরাস শনাক্ত হচ্ছে।

গত ৩ এপ্রিল থেকে ৩ মে পর্যন্ত একমাসে ৮৬ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে চট্টগ্রামে। কিন্তু, হঠাৎ করে সেখানে গত ৪ মে থেকে ৩ জুন পর্যন্ত এই এক মাসে আগের চেয়ে প্রায় ৪২ গুণ রোগীর সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়া চিন্তার শুধু নয় বরং উদ্বেগ, উৎকণ্ঠা এবং আতঙ্কেরও।

জানা যায়, প্রথম দিকে শুধুমাত্র চট্টগ্রামে বিআইটিআইডিতে করোনার নমুনা পরীক্ষা করা হত৷ কিন্তু, বর্তমানে বিআইটিআইডির পাশাপাশি চমেক এবং সিভাসুতেও নমুনা সংগ্রহ ও পরীক্ষা করা হচ্ছে।

বিশিষ্টজনরা চরম উদ্বেগের সাথে বলেছেন, চট্টগ্রামে করোনা আক্রান্ত রোগির সংখ্যা বর্তমানে প্রায় ৩৫০০ জন। অথচ, হাসপাতালে বেড আছে মাত্র ৩১০ টি। এ অবস্থায় চট্টগ্রামের বন্দর হাসপাতাল, রেলওয়ে হাসপাতাল, হলিক্রিসেন্ট হাসপাতাল ও ইম্পেরিয়াল হাসপাতালকে অতি দ্রুত করোনা চিকিৎসার উপযোগী করে তুলতে হবে। তা না হলে চট্টগ্রাম পরিণত হবে মৃত্যুপুরীতে।

অন্যদিকে, সাবেক এক মন্ত্রী চলমান এই পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে অন্তত দুই সপ্তাহ চট্টগ্রামে কারফিউ চেয়েছেন। চট্টগ্রাম সিভিল সার্জনের তথ্য মতে, গত দুই মাসে চট্টগ্রামে ৩৫৩৭ জনের মাঝে করোনা শনাক্ত করা হয়। যারমধ্যে ৮৫ জনের মৃত্যু হয়েছে এবং ২৪৮ জন সুস্থ হয়েছে। সে হিসাবে বর্তমানে চট্টগ্রামে ৩২০৪ জন করোনা রোগী রয়েছেন।