মঙ্গলবার, ৭ জুলাই ২০২০, ২৩ আষাঢ় ১৪২৭

ভারতে ৫৯টি চীনা অ্যাপ ব্লক করার নির্দেশ

প্রকাশিতঃ মঙ্গলবার, জুন ৩০, ২০২০, ১:৫২ অপরাহ্ণ


নয়াদিল্লি: ভারতের সার্বভৌমত্ব ও জাতীয় নিরাপত্তার পরিপন্থী হওয়ায় ৫৯ টি চীনা অ্যাপ নিষিদ্ধ করেছে ভারত। এগুলোকে ব্লক করার জন্য মোবাইল ফোন নির্মাতা সংস্থাগুলোকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। কেন্দ্রীয় তথ্যপ্রযুক্তি আইনের ৬৯এ ধারা অনুযায়ী ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার এ সংক্রান্ত সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

গতকাল (সোমবার) দিবাগত রাতে কেন্দ্রীয় তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয় প্রেস বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে ওই সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছে। জনপ্রিয় চীনা অ্যাপ টিকটক, শেয়ারইট, ইউসি ব্রাউজডার, উইচ্যাটসহ ৫৯টি মোবাইল অ্যাপ্লিকেশনকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে নরেন্দ্র মোদি সরকার।

সরকারি ওই সিদ্ধান্ত সম্পর্কে কংগ্রেস এমপি মনিকম ঠাকুর বলেছেন, ‘কিছু চীনা অ্যাপস নিষিদ্ধ করার জন্য সরকারের এই সাহসী পদক্ষেপ গ্রহণকে আমি স্বাগত জানাই। এখন নরেন্দ্র (প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি)-এর ৫৬ ইঞ্চি ছাতি দেখিয়ে পেটিএম নিষিদ্ধ করা উচিত। সেখানে প্রচুর পরিমাণে চীনা বিনিয়োগ রয়েছে।’

মোবাইল পেমেন্ট অ্যাপ পেটিএমে চীনা সংস্থা আলিবাবা গ্রুপ প্রচুর পরিমাণে বিনিয়োগ করেছে। সম্প্রতি ভারত-চীন উত্তেজনা ও দু’দেশের সেনাদের মধ্যে প্রাণঘাতী সংঘর্ষের পরে পেটিএম বয়কটের দাবি জোরালো হয়েছে।

সরকারি সূত্রে প্রকাশ, ভারতীয়দের বিভিন্ন তথ্যকে সুরক্ষিত রাখার জন্যই চীনা অ্যাপস নিষিদ্ধের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এ ধরণের চীনা অ্যাপ থেকে মোবাইল ফোনে থাকা তথ্য বেহাত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। আগেও ভারতীয়দের ব্যক্তিগত তথ্য, সার্চ হিস্ট্রি ইত্যাদির ওপরে নজরদারির গুরুতর অভিযোগ উঠেছিল একাধিক চীনা সংস্থার বিরুদ্ধে।

কংগ্রেসের সিনিয়র নেতা আহমেদ প্যাটেল বলেছেন, ‘আমরা চীনা অ্যাপ নিষিদ্ধ করার সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানাই। আমাদের অঞ্চলে অনুপ্রবেশ এবং চীনা সেনাবাহিনী কর্তৃক আমাদের সশস্ত্র বাহিনীর ওপরে বিনা প্ররোচনায় আক্রমণকে বিবেচনা করে আমরা আশা করি যে সরকার আরও কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করবে।

এদিকে, কেন্দ্রীয় মন্ত্রী রামবিলাস পাসোয়ান তাঁর উপভোক্তা বিষয়ক, খাদ্য ও গণবণ্টন মন্ত্রণালয়ে চীনা পণ্য কেনার ওপরে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছেন। তাঁর মন্ত্রণালয়ে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে, সরকারের জিনিসপত্র কেনার জন্য তৈরি ই-বাজার জিইএম বা অন্য জায়গা থেকেও যেন চীনা পণ্য না কেনা হয়। সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের অধীনস্থ খাদ্য নিগমের মতো সংস্থাও চীনা পণ্য কিনতে পারবে না। এই প্রথম কেন্দ্রীয় কোনও মন্ত্রণালয় এ ধরণের নির্দেশ জারি করল।#