সোমবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০, ৬ আশ্বিন ১৪২৭

বৈরুত বিস্ফোরণ: নিহত বেড়ে ২২০, পদত্যাগ তিন মন্ত্রী ও নয় সাংসদের

প্রকাশিতঃ সোমবার, আগস্ট ১০, ২০২০, ১০:১৯ অপরাহ্ণ


আন্তর্জাতিক ডেস্ক : বৈরুতে বিস্ফোরণের ঘটনা নিয়ে দিন দিন খারাপের দিকে যাচ্ছে লেবাননের পরিস্থিতি। ভয়াবহ এ বিস্ফোরণে সবশেষ নিহতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২২০ জনে, নিঁখোজ রয়েছে শতাধিক। এ ঘটনা নিয়ে সরকারের বিরদ্ধে জনগণের ক্ষোভ বাড়ায় সোমবার পর্যন্ত মন্ত্রীসভা থেকে পদত্যাগ করেছে তিন মন্ত্রী ও নয় সাংসদ। খবর বিবিসির।

বৈরুতের গভর্নর মারওয়ান আব্বুদ জানিয়েছেন সেনাবাহিনী তাদের উদ্ধার অভিযান শেষ ঘোষণা করলেও অন্তত ১২০ জনের মত এখনো নিখোঁজ রয়েছে। এদের অনেকেই বিদেশী শ্রমিক বলে জানান তিনি।

বিবিসি জানায়, রবিবার শহরটিতে দ্বিতীয় বারের মত সহিংসতার ঘটনা ঘটেছে। সরকারের বিরুদ্ধে ক্ষুব্ধ বিক্ষোভকারীদের সাথে পুলিশের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এমন পরিস্থিতিতে লেবাননের আইন ও বিচার মন্ত্রী মারি ক্লদ নাজম, তথ্যমন্ত্রী মানাল আব্দেল সামাদ এবং পরিবেশ মন্ত্রী দামিয়ানোস কাটার তাদের পদ থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন। তাদের সাথে পদত্যাগ করেছেন আরো নয় সাংসদ। গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে প্রধানমন্ত্রী হাসান দিয়াবের ডাকা মন্ত্রিসভার বৈঠকের আগে অর্থমন্ত্রী গাজী ওয়াজনিও পদত্যাগের প্রস্তুতি নিচ্ছেন।

আল জাজিরা সূত্রে জানা গেছে, বিধ্বংসী এই বিস্ফোরণের পর আন্তর্জাতিক নেতারা ফ্রান্স এবং জাতিসংঘের নেতৃত্বে একটি ভার্চুয়াল দাতা সম্মেলনে যোগ দেন। তারা দেশটিকে প্রায় ৩০০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার মানবিক সাহায্যের অঙ্গীকার করেন যা সরাসরি লেবাননের জনগণের কাছে পৌঁছে দেওয়া হবে। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পও ঘোষণা করেছেন যে তারা লেবাননকে “যথেষ্ট পরিমাণ” সাহায্য দেবে। যদিও অর্থের পরিমাণ তিনি উল্লেখ করেননি।

আইএমএফ বলেছে যে তারা এই বিধ্বংসী বিস্ফোরণের পর লেবাননকে সাহায্য করতে আগের যে কোন সময়ের চেয়ে তৎপর থাকবে।

এদিকে বৈরুতে বিস্ফোরণের ঘটনায় জাতিসংঘ স্বাধীন নিরপেক্ষ তদন্তের আহ্বান জানিয়েছে। এ ছাড়া বিভিন্ন মহল থেকে আন্তর্জাতিক তদন্তেরও দাবি উঠেছে। তবে দ্রুত বিচারের আশ্বাস দিলেও আন্তর্জাতিক তদন্তের দাবি নাকচ করে দিয়েছেন লেবাননের প্রেসিডেন্ট মাইকেল আউন।