বৃহস্পতিবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৯, ২ কার্তিক ১৪২৬

পশ্চিম বাকলিয়া ওয়ার্ডে উপ-নির্বাচন: প্রতীক পেয়েছেন ৬ প্রার্থী

প্রকাশিতঃ শুক্রবার, জুলাই ১২, ২০১৯, ৫:২৬ অপরাহ্ণ

চট্টগ্রাম : চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের ১৭নং পশ্চিম বাকলিয়া ওয়ার্ডে উপ-নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বী ছয় প্রার্থীকে প্রতীক বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। আগামী ২৫ জুলাই সতেরটি ভোটকেন্দ্রের ১২৪টি কক্ষে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। ব্যবহার করা হবে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনও (ইভিএম)। উপ-নির্বাচনে ১৭ জন প্রিজাইডিং কর্মকর্তা, ১২৪ জন সহকারি প্রিজাইডিং কর্মকর্তা ও ২৪৮ জন পোলিং কর্মকর্তা ভোটগ্রহণের দায়িত্বে থাকবেন বলে জেলা নির্বাচন অফিস জানিয়েছে। এই ওয়ার্ডে মোট ভোটারের সংখ্যা ৪৯ হাজার ৭৮২ জন। তারমধ্যে পুরুষ ২৩ হাজার ৭৩৩ জন ও নারী ভোটার ২৬ হাজার ৪৯ জন।

শুক্রবার (১২ জুলাই) রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে প্রার্থীদের প্রতীক বরাদ্দ দেওয়া হয়।

প্রতীকপ্রাপ্ত প্রার্থীরা হলেন, মো. মাসুদ করিম টিটু (রেডিও), একেএম আরিফুল ইসলাম (মিষ্টি কুমড়া), মোহাম্মদ শহিদুল আলম (ঘুড়ি), মো. শফি (লাটিম), শাহেদুল ইসলাম (টিফিন ক্যারিয়ার) ও শেখ নায়েম উদ্দীন (ঠেলাগাড়ি)।

গত ১৭ এপ্রিল নগরের একটি বেসরকারি হাসপাতালে পশ্চিম বাকলিয়া ওয়ার্ডের কাউন্সিলর একেএম জাফরুল ইসলাম মারা যান। ১২ জুন পশ্চিম বাকলিয়া ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদটি শূন্য হয়। সিটি করপোরেশন আইন ২০০৯-এর ১৬ ধারা অনুযায়ী, মেয়াদ শেষ হওয়ার ১৮০ দিন পূর্বে মেয়র বা কাউন্সিলর পদ শূন্য হলে ৯০ দিনের মধ্যে পূরণ করতে হবে। উপ-নির্বাচনে যিনি নির্বাচিত হবেন, তিনি অবশিষ্ট মেয়াদের জন্য ওই পদে বহাল থাকবেন।

এদিকে প্রতীক বরাদ্দ পেয়ে প্রার্থীরা নির্বাচনী প্রচারণা চালাতে পারবেন বলে জানিয়েছেন আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা ও রিটানিং কর্মকর্তা মুহাম্মদ হাসানুজ্জামান। তিনি বলেন, প্রতিদ্বন্দ্বী ছয় প্রার্থীকে প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। এখন নির্বাচনী প্রচারে তাদের আর কোনো বাধা নেই।

হাসানুজ্জামান বলেন, নির্বাচন কমিশনের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী উপ-নির্বাচনে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) ব্যবহার করা হবে। এজন্য ভোটারদের জন্য ডেমো ভোটের ব্যবস্থা থাকবে। পাশাপাশি ভোটগ্রহণ কর্মকর্তাদেরও প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে।

২৫ জুলাই ভোটগ্রহণের তারিখ ঘোষণা করে পশ্চিম বাকলিয়া ওয়ার্ড উপ-নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হয়।

একুশে/এসসি