রবিবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯, ১ পৌষ ১৪২৬

আ. লীগ নেতা মাসুমের দুটি অস্ত্র জব্দ

প্রকাশিতঃ শনিবার, আগস্ট ৩, ২০১৯, ৬:২৪ অপরাহ্ণ

চট্টগ্রাম : লাইসেন্স বাতিলের পর পুলিশের কাছে নিজের দুটি অস্ত্র জমা দিয়েছেন লালখান বাজার ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক দিদারুল আলম মাসুম। জমা দেওয়া অস্ত্রের মধ্যে একটি পিস্তল ও একটি শর্টগান বলে জানিয়েছে পুলিশ।

শনিবার (৩ আগস্ট) দুপুরে নগরের খুলশী থানায় দিদারুল আলম মাসুম নিজে অস্ত্র দুটি জমা দিলে তা জব্দ করা হয় বলে ওসি প্রণব চৌধুরী জানান।

মাসুম এক সময়ে চট্টগ্রামের প্রয়াত মেয়র এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরীর অনুসারি হিসেবে পরিচিত ছিলেন। পরে সাবেক মন্ত্রী ও সাংসদ আফসারুল আমিনের অনুসারি হিসেবে দেখা যায় তাকে। এখন তিনি সিটি মেয়র ও নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাছিরের অনুসারি হিসেবে পরিচিত।

বিভিন্ন সময়ে লালখান বাজার এলাকায় সংঘর্ষ, একাধিক হত্যাকাণ্ডের পর এবং গণমাধ্যমে অস্ত্রহাতে ছবি প্রকাশিত হওয়ায় আলোচনায় আসেন দিদারুল আলম মাসুম।

বৈধ অস্ত্রে অবৈধ গুলি’ ব্যবহার করে বিভিন্ন সময়ে অস্ত্রের প্রদর্শন করায় নিজের ও স্থানীয়দের ‘নিরাপত্তাহীনতার’ কারণ দেখিয়ে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের ১৪ নম্বর (লালখান বাজার) ওয়ার্ড কাউন্সিলর এফ কবির মানিক মাসুমের অস্ত্র জব্দের আবেদন করেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ে।

মাসুমের দাবি, অস্ত্র হাতে তার যে ছবি দিয়ে অভিযোগ করা হয়, সেটি ২০১৩ সালে হেফাজতে ইসলাম যখন ‘নগরী অবরুদ্ধ করে রেখেছিল’ তখন সেটি ব্যবহার হয়েছিল। তিনি বলেন, আসন্ন সিটি নির্বাচনে তিনি কাউন্সিলর পদে নির্বাচন করার ঘোষণা দেওয়ায় বর্তমান কাউন্সিলর তার ‘পেছনে লেগেছেন’।

পরে কাউন্সিলর মানিকের করা আবেদন আমলে নিয়ে মন্ত্রণালয় মাসুমের অস্ত্রের লাইসেন্স বাতিল করতে জেলা প্রশাসন খুলশী থানাকে চিঠি দিয়ে অস্ত্র দুটি জব্দের নির্দেশ দেয়।

ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সদস্য মানিক এক দশকেরও বেশি সময় ধরে লালখান বাজার ওয়ার্ডের কাউন্সিলর হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

১৯৯৭-৯৮ চট্টগ্রাম সরকারি সিটি কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি ছিলেন মাসুম। ২০০১ সালে তিনি লালখান বাজার ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক হন। বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের আমলে প্রায় তিন বছর কারাবাসের পর দীর্ঘদিন ধরে দেশের বাইরে ছিলেন তিনি।

একুশে/এসসি