রবিবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯, ১ পৌষ ১৪২৬

লক্ষাধিক পচা চামড়া অপসারণ করছে চসিক

প্রকাশিতঃ বুধবার, আগস্ট ১৪, ২০১৯, ৪:২৮ অপরাহ্ণ


চট্টগ্রাম: মৌসুমী ব্যবসায়ী ও বিভিন্ন মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ চামড়া সংগ্রহ করার পর তা বিক্রি করতে পারেনি আড়তদারদের কাছে। ফলে পচে যাওয়া এসব চামড়া অপসারণে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের (চসিক) কাজ করছে। ফেলে দেওয়া এসব পচা চামড়ার সংখ্যা এক লাখের বেশী হবে বলে মনে করছেন চসিক কর্মকর্তারা, যার অনেকগুলোই উন্নতমানের চামড়া ছিল।

এ বিষয়ে চট্টগ্রামের সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন সাংবাদিকদের বলেন, বিক্রি করতে না পারা চামড়া পচবে, সেই চামড়া অপসারণ করতে হবে এ ধরনের কোনো ভাবনাই আমাদের ছিল না। আমরা কোরবানির দিন পশুর নাড়ি-ভুঁড়ি, বর্জ্য, রক্ত, উচ্ছিষ্টাংশ দ্রুত অপসারণের প্রস্তুতি নিয়েছিলাম। সেই লক্ষ্য আমরা অর্জনও করেছি। কিন্তু পচা চামড়া অপসারণের কাজটি ছিল নতুন একটি চ্যালেঞ্জের। গভীর রাত পর্যন্ত এ কাজটিও অত্যন্ত দক্ষতার সঙ্গে আমরা সম্পন্ন করেছি।

ঈদের পর থেকে চট্টগ্রামের বিভিন্ন রাস্তায় ও ডাস্টবিনে জমা এসব চামড়া ৩২টি ট্রাক দিয়ে অপসারণের কাজ করছে চসিক। মঙ্গলবার রাত আড়াইটা পর্যন্ত ২০০ শ্রমিক ও ৮টি পে লোডারের সাহায্যে ৩২টি ট্রাকে ৯০ ট্রিপে প্রায় এক লাখ পচা চামড়া অপসারণ করেছে বলে জানিয়েছেন কর্মকর্তারা।

এ বিষয়ে চসিকের পরিচ্ছন্ন বিভাগের প্রধান শফিকুল মান্নান সিদ্দিকী বলেন, কাঁচা চামড়ার প্রধান বাজার হামজারবাগ, আতুরার ডিপোসহ বহদ্দারহাট, আগ্রাবাদসহ বিভিন্ন স্থান থেকে পচা চামড়াগুলো সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। এভাবে রাস্তঘাটে পচা চামড়া পড়ে থাকার দৃশ্য আগে কখনো দেখিনি।

মহান বিজয় দিবস ২০১৯ উপলক্ষে একুশে পত্রিকা কর্তৃক একটি বিশেষ সংখ্যা প্রকাশের উদ্যেগকে স্বাগত জানাই। বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদের পক্ষ হতে উক্ত প্রকাশনার সাথে সংশ্লিষ্ট সকলকে জানাই-

বিজয় দিবসের শুভেচ্ছা

একটি সুখী, সমৃদ্ধ, ক্ষুধা ও দারিদ্র স্বপ্নীল ও ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার অঙ্গীকার এবং সন্ত্রাসমুক্ত পরিবেশ প্রতিষ্টার প্রত্যয় নিয়ে বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদ নিজস্ব উন্নয়ন কর্মসূচি এবং ২৮ টি ন্যস্ত বিভাগের বিভাগীয় কার্যক্রমের সমন্বয় সাধনসহ নিম্নবর্ণিত কার্যদি গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করছেঃ

১) শিক্ষা
২) স্বাস্থ্য সেবা
৩) কৃষি
৪) মৎস্য ও প্রাণি সম্পদ
৫) ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প
৬) যোগাযোগ
৭) পানীয় জল ও স্যানিটেশন
৮) সমবায় ও সমাজ সেবা কার্যক্রম
৯) ক্রীড়া ও সংস্কৃতি কর্মকান্ড
১০) স্থানীয় পর্যটন
১১) আইসিটি সেক্টর উন্নয়ন এবং
১২) মানব সম্পদ উন্নয়ন ইত্যাদি।

একটি উন্নত, সমৃদ্ধ, আধুনিক ও সম্প্রীতিত মডেল জেলা হিসেবে বান্দরবানকে গড়ে তোলাই হলো আমাদের দৃঢ় অঙ্গীকার-

ক্য শৈ হ্লা
চেয়ারম্যান
বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদ
বান্দরবানান