সোমবার, ১৫ অক্টোবর ২০১৯, ২৯ আশ্বিন ১৪২৬

মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ হলেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের রাফাহ

প্রকাশিতঃ শনিবার, অক্টোবর ১২, ২০১৯, ৫:০৮ অপরাহ্ণ


চবি প্রতিনিধি: প্রায় ৩৭ হাজার প্রতিযোগীকে পেছনে পেলে ‘মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ-২০১৯’ নির্বাচিত হয়েছেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) শিক্ষার্থী রাফাহ নানজীবা তোরসা। বর্তমানে তিনি চবির আর্ন্তজাতিক সম্পর্ক বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষে অধ্যয়নরত। তার বাড়ি চট্টগ্রামের কক্সবাজার জেলার কুতুবদিয়ায়।

শুক্রবার (১১ অক্টোবর) রাতে রাজধানীর একটি পাঁচ তারকা হোটেলে প্রায় এক মাসের প্রতিযোগিতা শেষে দেশের সেরা সুন্দরীর মুকুট অর্জন করেন তিনি। এ সময় তার মাথায় মুকুট পরিয়ে দেন গত বছরের মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ জান্নাতুল ফেরদৌস ঐশী। প্রতিযোগিতায় প্রথম রানার আপ হয়েছেন ফাতিহা মায়াবী ও দ্বিতীয় রানার আপ হয়েছেন জান্নাতুল ফেরদৌস মেঘলা।

জানা যায়, গত ৫ সেপ্টেম্বর আনুষ্ঠানিক ঘোষণার মাধ্যমে যাত্রা শুরু করে নতুন মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ নির্বাচনের এ আয়োজনটি। অমিকন এন্টারটেইনমেন্টে সঙ্গে অনুষ্ঠানটির আয়োজক সহযোগী হিসেবে থাকছে এক্সপার্ট ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট।

এ বছরের ‘মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ’ অডিশনের জন্য ৩৭ হাজার ২৪৩ জন সুন্দরী নিবন্ধন করেন। সেখান থেকে অডিশনের জন্য ডাক পান ৩০০ জন। তাদের বিচারক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন দেবাশীষ বিশ্বাস, লুনা, সুমনা সোমা ও রফিকুল ইসলাম রাফ।

সেখান থেকে যাচাই-বাছাই শেষে ৩৫ জন সুন্দরী নিয়ে শুরু হয় প্রতিযোগিতার মূল আয়োজন। সৌন্দর্য, শিক্ষা, বুদ্ধিমত্তাসহ আরও কিছু যোগ্যতার ওপর ভিত্তি করে বাছাই করা হয় সেরা ১২ সুন্দরী। সেখান থেকে শুক্রবার সেরা সুন্দরীকে নির্বাচিত করা হয়েছে। সেরা ১২ নির্বাচিত হয়েছেন, শান্তা, স্নিগ্ধা রহমান, মায়ামী, ত্রিদিপা, জান্নাত, প্রিয়ন্তী উর্বী, মিতু, তোশরা, নিশা চৌধুরী, তামান্না, নওশিন মিম ও শাবন্তী দাস।এ আয়োজনে প্রধান তিন বিচারক ছিলেন চিত্রনায়িকা মৌসুমী, চিত্রনায়ক ফেরদৌস ও সৌন্দর্য বিশেষজ্ঞ ফারনাজ আলম।

চলতি বছরের ডিসেম্বরে লন্ডনে অনুষ্ঠিতব্য ‘মিস ওয়ার্ল্ড ২০১৯’ প্রতিযোগিতার মূল আসরে বাংলাদেশের হয়ে প্রতিনিধিত্ব করবেন নির্বাচিত এই সুন্দরী। পড়াশোনার পাশাপাশি তোরসা বাংলাদেশ বেতারের উপস্থাপক ও আবৃত্তি শিল্পী। এছাড়া একটি বেসরকারী টিভি চ্যানেলের উপস্থাপক হিসেবে কাজ করছেন তিনি। ২০১০ সালে জাতীয় শিশুকিশোর প্রতিযোগিতায় নৃত্যে স্বর্ণ পদক লাভ করেন তোরসা। শিল্পের সব মাধ্যমেই পারদর্শী তিনি। তৌকির আহমেদ পরিচালিত হালদা চলচ্চিত্রের একটি চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন।

এদিকে চবি শিক্ষার্থীর এই ধরনের অর্জনে উল্লাসীত বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ সর্বত্র রাফাহকে শুভেচ্ছা জানাচ্ছেন সকলেই। তার এমন অর্জনকে বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি গৌরব হিসেবে উল্লেখ করে রাফার বন্ধু ও বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী মাহির চৌধুরী একুশে পত্রিকাকে বলেন, প্রথম বর্ষ থেকে তার সাথে একসাথে আসা-যাওয়া। খুব ভালো বন্ধু আমার। মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করেছে শুনে বলেছিলাম, তুই পারবি। ওর মধ্যে সেরাটা দেখতে পেয়েছি আমি। মন থেকেই চাইছিলাম সে জয় করে আসুক।অবশেষে গতকাল শুনেই বুকটা গর্বে ভরে উঠে। তার মধ্যে বিশেষ কিছু গুণ রয়েছে যা তাকে অনেকদূর এগিয়ে নিয়ে যাবে। সে খুবই পরিশ্রমী। সবমিলিয়ে রাফাহই সেরা ছিল, সত্যি একজন নারী অলরাউন্ডার।

এদিকে এই অর্জনে সকলকে কৃতজ্ঞতা জানিয়ে রাফাহ নানজীবা তোরসা একুশে পত্রিকাকে বলেন, নিজেকে সেরা প্রমাণ করতে অনেক পরিশ্রম করেছি। আমার আত্মবিশ্বাস ছিল, অবশেষে সফল হয়েছি।

তিনি বলেন, এই আয়োজনে বিচারক থেকে সংশ্লিষ্ট সকলে যথেষ্ট সহায়তা করেছেন। আমি তাদের কাছে কৃতজ্ঞ।

এক প্রশ্নের জবাবে রাফাহ নানজীবা তোরসা বলেন, আমার এই অর্জনের পেছনে সবচেয়ে বড় কৃতিত্ব আমার মায়ের। তার সহযোগীতায় আমি এতদূর। তিনি বলেন, মা যখন জানতে পারেন আমি সেরা হয়েছি তিনি খুবই আবেগী হয়ে পড়েন। আমি চাই যতটুকু পারি বিশ্বদরবারে বাংলাদেশকে তুলে ধরতে।

এজন্য সকলের দোয়া ও সমর্থন কামনা করেছেন এই সুন্দরী।