মঙ্গলবার, ১২ নভেম্বর ২০১৯, ২৮ কার্তিক ১৪২৬

ভুল চিকিৎসায় মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে ইয়ামিন

প্রকাশিতঃ বৃহস্পতিবার, নভেম্বর ৭, ২০১৯, ৯:৪৯ অপরাহ্ণ


চট্টগ্রাম : ভুল চিকিৎসায় মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে ইয়ামিন (১২) নামের এক বালক। বর্তমানে ঢাকার এ্যাপোলো হাসপাতালে জীবনমৃত্যুর সন্ধিক্ষণে ইয়ামিন। অসহ্য যন্ত্রণা সইতে না পেরে হাসপাতালের বিছানায় কাতরাচ্ছে সে।

ইয়ামিন নগরীর ছোটপুল ব্রিকফিল্ড রোড এলাকার ইয়াকুবের ছেলে। সে ছোটপুল সিটি স্কুলের ৫ম শ্রেণীর ছাত্র। আগামী ১৭ নভেম্বর পিএসসি পরীক্ষা দেওয়ার কথা ছিলো তার।

ইয়ামিনের চাচা বাবুল জানান, গত ৩১ অক্টোবর স্কুলে ছিলো ইয়ামিন। হঠাৎ চোখে যন্ত্রনা শুরু হলে বাসায় চলে আসে। ওইদিন স্থানীয় ডা. সৈয়দ মোহাম্মদ জাফর হোসাইনকে দেখানো হয়। বাবুলের অভিযোগ, কোনোরকম পরীক্ষা-নিরীক্ষা ছাড়াই এন্টিবায়োটিক ওষুধ প্রয়োগ করে ডাক্তার। ওষুধ খাওয়ার পর পুরো শরীরে লাল বিচি দেখা দেয়। অসহ্য যন্ত্রনায় চিৎকার করতে থাকে ইয়ামিন। পরবর্তীতে ইসলামিক ব্যাংক হাসপাতাল, এরপর ২ নভেম্বর আগ্রাবাদ মা ও শিশু হাসপাতালে আইসিইউতে ভর্তি করানো হয়। অবস্থার উন্নতি না হলে ৪ নভেম্বর ঢাকা এ্যাপোলো হাসপাতালে নেওয়া হয়।

চট্টগ্রামের কর্তব্যরত চিকিৎসকরা জানান, রোগীর অবস্থা গুরুতর। ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ায় এই অবস্থা হয়েছে ইয়ামিনের।

এদিকে ডা. সৈয়দ মোহাম্মদ মাহাম্মদ জাফর হোসাইন-এর বিরুদ্ধে হালিশহর থানায় আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছে ইয়ামিনের পরিবারের পক্ষ থেকে। এই ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে হালিশহর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওবায়দুল বলেন, বিষয়টি খুবই দু:খজনক। আমরা এই ব্যাপারে তদন্ত করে দেখছি।

এ্যাপোলো হাসপাতালের চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, ওষুধের পাশ্বপ্রতিক্রিয়ায় ইয়ামিনের এই অবস্থা। প্রস্রাবের সাথেও রক্ত বের হচ্ছে। আল্লার উপর ভরসা করা ছাড়া কোনো উপায় নেই। এমন খবরে ইয়ামিনের পরিবার, স্বজন এবং এলাবাসীর মাঝে হতাশা এবং ক্ষোভ দেখা দিয়েছে।

এদিকে ডা. সৈয়দ মোহাম্মদ জাফর হোসাইনের মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলেও তিনি কল রিসিভ করেননি।

একুশে/এএ/এটি