শুক্রবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৬ ফাল্গুন ১৪২৬

এবার জনশুমারির পাশাপাশি খানা ও গৃহগণনাও হবে : পরিকল্পনামন্ত্রী

প্রকাশিতঃ বৃহস্পতিবার, জানুয়ারি ২৩, ২০২০, ৫:৫৫ অপরাহ্ণ


চট্টগ্রাম: পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেছেন, ২০২১ সালের ২ জানুয়ারি থেকে ৮ জানুয়ারিতে দেশে শুরু হচ্ছে ৬ষ্ঠ জনশুমারি ও গৃহগণনা কার্যক্রম। জনশুমারির সাথে এবারই দেশে প্রথম যোগ হবে খানা ও গৃহগণনা কাজ সম্পন্ন হবে।

ক্ষুধা ও দারিদ্রমুক্ত একটি নিরাপদ বিশ্ব গড়ার প্রত্যয়ে জনশুমারি ও গৃহগণনা ২০২১ অতীতের যেকোন শুমারি অপেক্ষা অধিকতর গুরুত্ব বহন করবে বলেও মন্তব্য করেন মন্ত্রী।

আজ বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) ‘জনশুমারি ও গৃহগণনা-২০২১’ চট্টগ্রাম বিভাগের মতবিনিময় সভা উপলক্ষ্যে চট্টগ্রাম সার্কিট হাউজে ‘জনশুমারি ও গৃহগণনা-২০২১’ এর মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে পরিকল্পনামন্ত্রী এসব কথা বলেন।

এ সময় অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (সার্বিক) শংকর রঞ্জন সাহার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের সচিব সৌরেন্দ্র নাথ চক্রবর্তী, বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো‘র মহাপরিচালক মোহাম্মদ তাজুল ইসলাম, ‘জনশুমারি ও গৃহগণনা প্রকল্পের পরিচালক মো. জাহিদুল হক সরদার, অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (উন্নয়ন) মো. নুরুল আলম নিজামী, চট্টগ্রাম বিভাগের স্থানীয় সরকারের পরিচালক দ্বীপক চক্রবর্তী, ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক ইয়াসমিন পারভীন তিবরীজিসহ বিভাগীয় পর্যায়ের কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।

মন্ত্রী বলেন, ৬ মাসের বেশি সময় যারা দেশের বাইরে অবস্থান করছেন এবং বাংলাদেশে বিদেশী নাগরিক যারা ৬ মাস বসবাস করছে তাদের এ জনশুমারিতে গণনা করা হবে। এবার প্রথমবারের মত জনগণনার পাশাপাশি গৃহগণনা করা হবে। তাই দেশের জনগণের সংখ্যাসহ গৃহের সংখ্যা জানা যাবে।

সভায় পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের সচিব সৌরেন্দ্র নাথ চক্রবর্তী বলেন, গত ২৯ অক্টোবর, ২০১৯ একনেক সভায় বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (বিবিএস) ‘জনশুমারি ও গৃহগণনা ২০২১’ শীর্ষক প্রকল্প অনুমোদিত হয়। প্রকল্প ব্যয় নির্ধারণ হয়েছে ১ হাজার ৭ শত ৬১ কোটি ৭৯ লাখ টাকা। এবারের শুমারিতে দেশের সকল জনগণসহ বাংলাদেশে অবস্থানকারী বিদেশীদেরও গণনা করা হবে। সর্বশেষ আদমশুমারি ও গৃহ গণনা ২০১১ সালে বিবিএস কর্তৃক পরিচালিত হয়েছিল যার হিসাবমতে বাংলাদেশে মোট জনসংখ্যা ছিল ১৪ কোটি ৪০ লাখ।

প্রকল্প পরিচালক জাহেদুল হক সরদার সভার মূল কার্যক্রম বিষয়ে পাওয়ার পয়েন্ট উপস্থাপন করেন। উপস্থাপনায় তিনি বাংলাদেশে ইতোপূর্বে পরিচালিত জনশুমারি ও গৃহগণনার বিবরণ তুলে ধরেন। ২০২১ সালে অনুষ্ঠেয় জনশুমারিতে অন্তর্ভূক্ত নতুন বৈশিষ্ট্য তুলে ধরা হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, প্রচলিত সাক্ষাৎকার পদ্ধতির পাশাপাশি আসছে জনশুমারি ২০২১ এ ই-সেন্সাস এর মাধ্যমে তথ্য সংগ্রহ করা হবে।

তিনি আরো বলেন, বর্তমানে বাংলাদেশে তথ্য যোগাযোগ প্রযুক্তির উন্নয়ন হয়েছে। সে জন্য ৬ষ্ঠ জনশুমারিতে মোবাইল অ্যাপস এর মাধ্যমে খানা তালিকা প্রণয়ন কার্যক্রম সম্পাদনের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী ১৭ মার্চ ২০২০ থেকে শুমারির ক্ষণগণনা শুরু হবে এবং ২০২১ সালের ২ জানুয়ারি জিরো আওয়ারকে রেফারেন্স পয়েন্ট ধার্য করা হয়েছে।