সোমবার, ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ৫ ফাল্গুন ১৪২৬

চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগার: দিনে দিনে মুজিবপ্রেমী!

প্রকাশিতঃ মঙ্গলবার, ফেব্রুয়ারি ১১, ২০২০, ১১:২০ অপরাহ্ণ


চট্টগ্রাম: একুশে পত্রিকায় ভিডিও প্রতিবেদন প্রকাশের পর দিনে দিনে চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারে উঠেছে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছবিযুক্ত ব্যানার।

মুজিববর্ষের ক্ষণগণনা শুরুর এক মাস পর আজ মঙ্গলবার (১১ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যায় কারাগারে বঙ্গবন্ধুর ছবি দিয়ে ব্যানার লাগানো সংক্রান্ত ছয়টি ছবি ‘Chittagong Central Jail’ নামে কারাগার কর্তৃপক্ষের ফেইসবুক আইডিতে আপলোড করা হয়েছে। এছাড়া উক্ত ফেইসবুক আইডির প্রোফাইল ছবিও পরিবর্তন করা হয়, সেখানে কারাগারের প্রধান ফটকের উপর বঙ্গবন্ধুর ছবিযুক্ত ব্যানার শোভা পেতে দেখা গেছে।

এর আগে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী ও মুজিববর্ষ উপলক্ষে প্রায় সবকটি সরকারি প্রতিষ্ঠান কাউন্ট ডাউন ক্লক চালু ও নানা কর্মসূচি পালন করলেও চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগার কর্তৃপক্ষ ছিল একেবারেই নিরব। কারাগারে মুজিববর্ষের কাউন্ট ডাউন ক্লক চালু দূরে থাক, বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে একটি ব্যানারও লাগানো হয়নি।

সদ্য কারামুক্ত আওয়ামী লীগ নেতা দিদারুল আলম মাসুমের অভিযোগ, সিনিয়র জেল সুপার কামাল হোসেন তাকে বলেছেন, কারাগারে বঙ্গবন্ধুর দেশ চলে না। জেলখানা আলাদা দেশ। জেলখানা আলাদা জিনিস। সেখানে সিনিয়র জেল সুপার যেভাবে বলবেন সেভাবেই সবকিছু চলবে, কারাগারে বঙ্গবন্ধু চলবে না।

সিনিয়র জেল সুপারের বিরুদ্ধে মাসুমের এসব অভিযোগ উঠে আসে গতকাল সোমবার রাতে (১০ ফেব্রুয়ারি) একুশে পত্রিকার ফেইসবুক পেইজ ও ইউটিউব আইডিতে প্রকাশ হওয়া একটি ভিডিও প্রতিবেদনে। এরপর আজ মঙ্গলবার দিনে দিনে কারাগারের বিভিন্ন অংশে বঙ্গবন্ধুর ছবিযুক্ত ব্যানার লাগিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

এর আগে একুশে পত্রিকা ভিডিও প্রতিবেদনে সদ্য কারামুক্ত আওয়ামী লীগ নেতা দিদারুল আলম মাসুম অভিযোগ করে বলেন, আমি উনাকে (সিনিয়র জেল সুপার কামাল হোসেন) বললাম, বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী সারাদেশে পালন করা হচ্ছে। বিভিন্ন জায়গায় কাউন্ট ডাউন ক্লক শোভা পাচ্ছে, বঙ্গবন্ধুর ছবি সম্বলিত। বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী এখন থেকে উদযাপন করা হচ্ছে ধরতে গেলে। কারাগারে আপনি কিছুই করছেন না। উনি তখন বলেছেন, আপনি আমাকে বঙ্গবন্ধু শেখাবেন না, এখানে বঙ্গবন্ধুর দেশ চলতেছে না, এটা আমার দেশ চলতেছে, জেলখানা এটা আলাদা দেশ। উনি আমাকে স্পষ্ট বলেছেন। জেলখানা এটা আলাদা জিনিস। এখানে আমি যা বলি তা। এখানে বঙ্গবন্ধু চলবে না। উনি স্পষ্ট বলেছেন।

মাসুম আরো বলেন, আমি তখন বলেছি, দেখুন আপনি ভুল কথা বলছেন। আমি রাজনীতি করি। উনি বলেছেন, না আপনি বন্দি। আমি বলেছি, আমি একজন রাজনৈতিক কর্মী। আপনার কথাটা কিন্তু আমি বাইরে বলবো। তিনি বললেন, আপনি বাইরে বললে কেউ আমার কিছু করার ক্ষমতা রাখে না। এ ধরনের ঔদ্ধত্যপূর্ণ ব্যবহার তিনি আমার সাথে করেছেন। আপনারা যদি আমার এই কথার সত্যতা যাচাই করতে চান, আপনারা কারাগারে যান, ছাত্রলীগের ছেলেদের ডেকে এনে জিজ্ঞেস করুন। তারা সেই কথাটি অবশ্যই বলবে।

এসব অভিযোগ প্রসঙ্গে সিনিয়র জেল সুপার কামাল হোসেন একুশে পত্রিকাকে বলেন, অসম্ভব। এসব মিথ্যা কথা। সে ভুল ইনফরমেশন দিয়েছে। সে অবৈধ সুবিধা চেয়েছিল। আমরা দেইনি। এজন্য ক্ষিপ্ত হয়ে সে এ ধরনের মিথ্যাচার করছে, প্রলাপ বকছে।