শুক্রবার, ৩ এপ্রিল ২০২০, ২০ চৈত্র ১৪২৬

সমালোচনার মুখে বাতিল হলো `বেসরকারি টিভির গুজব’ মনিটরিং কমিটি

প্রকাশিতঃ শুক্রবার, মার্চ ২৭, ২০২০, ১২:৩৬ পূর্বাহ্ণ

ঢাকা : গণমাধ্যম সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিবর্গ, সাংবাদিক নেতৃবৃন্দসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তীব্র সমালোচনার মুখে অবশেষে বাতিল করা হয়েছে বেসরকারি টেলিভিশনসমূহে করোনা নিয়ে গুজব মনিটরিংয়ে গঠিত তথ্যমন্ত্রণালয়ের বিতর্কিত গুজব মনিটরিং কমিটি।

বৃহস্পতিবার (২৬ মার্চ) তথ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (সম্প্রচার) মিজানুল উল আলম স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে এই কমিটি বাতিল করা হয়।

চিঠিতে বলা হয়, করোনা ভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধ সংক্রান্ত গুজব/প্রচারণা মনিটরিং সংক্রান্ত জারিকৃত পরিপত্রে ভুলভ্রান্তি থাকায় তা কর্তৃপক্ষের নির্দেশের পরিপ্রেক্ষিতে বাতিল করা হলো্।

এর আগে মঙ্গলবার (২৪ মার্চ) তথ্যমন্ত্রণালয়েল উপ সচিব নাসরিন পারভিন স্বাক্ষরিত এক পরিপত্রে ৩০টি বেসরকারি টেলিভিশনে করোনা ভাইরাস সংক্রান্ত প্রচারণা/গুজব সৃষ্টি করা হচ্ছে কিনা তা মনিটরিংয়ের জন্য সরকারের উপ সচিব থেকে সহকারী সচিব পদমর্যাদার ১৫ জন কর্মকর্তার সমন্বয়ে একটি গুজব মনিটরিং কমিটি গঠনের কথা বলা হয়।

বিষয়টি জানাজানি হওয়ার পর গণমাধ্যম সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিবর্গ ছাড়াও বিভিন্ন মহলে সমালোচনার ঝড় ওঠে। অনেকেই মন্তব্য করেন বেসরকারি টেলিভিশনগুলো যখন বৈশ্বিক এই দুযোর্গ কিংবা মহামারিতে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সঠিক ও ইতিবাচক সংবাদ প্রচার করে মুলধারার প্রতিটি গণমাধ্যম যখন যোদ্ধার ভূমিকা পালন করছে, তখন তথ্য মন্ত্রণালয়ের এই সিদ্ধান্ত সত্যিই দুঃখজনক এবং প্রতিপক্ষের ভূমিকায় অবতীর্ণ হওয়ার শামিল।

জিটিভি, সারাবাংলার প্রধান সম্পাদক ও বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সহ সভাপতি সৈয়দ ইশতিয়াক রেজা বৃহ্স্পতিবার (২৬ মার্চ) সন্ধ্যা ৭ টার দিকে তার ফেসবুকে পরিপত্রটি পোস্ট দিয়ে তাতে লিখেন, ‌’আকামের লোকজনের কাম খুঁজে পাওয়া কত সহজ!’

পোস্টটিতে বৃহস্পতিবার রাত ১২ টা পর্যন্ত বিভিন্ন পেশার ৬৯ জন ব্যক্তি কমেন্ট করেন।

নোমান খালেদ চৌধুরী নামের এক ব্যক্তি কমেন্ট করেন, আমি খুব অবাক হচ্ছি।খুব কষ্ট পাচ্ছি। এই রকম একটা ডিজাস্টার এর মুখে আমরা কী করছি!
উন্নত দেশগুলো তাদের সকল রিসোর্স ব্যবহার করে করোনা ভাইরাস সংক্রমণ মোকাবিলায় হিমশিম খাচ্ছে, সেখানে আমরা যা করছি তার উত্তর আমার জানা নেই। শুধু বলছি, এই ধরনের আচরণ যুদ্ধের আগে, যুদ্ধক্ষেত্রে যাত্রাকারীদের হীনবল করে দেয়।

হা্বিবুর রহমান স্বপন নামের একজন মন্তব্য করেন, একজন ডেপুটি কমিশনার পদবীর অফিসার মিডিয়ার (টেলিভিশনের) মনিটর! অথচ একজন সম্পাদক নাকি একজন রাষ্ট্রনায়ক তুল্য?

সংবাদমাধ্যম একদা ছিল রাষ্ট্রের চতুর্থ স্তম্ভ। এখন মনে হচ্ছে পররাষ্ট্র! হায়রে অবস্থা! সংবাদ মাধ্যমের মালিকেরা এবং সাংবাদিক নেতারা কি জনগণের প্রতিপক্ষ? গণতন্ত্রের লড়াই জোরদার করতে না পারলে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা মুছে যাবে। অপশক্তি মাথাচাড়া দেবে।

এছাড়া এ নিয়ে উষ্মা ও ক্ষোভ প্রকাশ করে বৃহস্পতিবার (২৬ মার্চ) রাত ৮টার দিকে নিজের ফেসবুকে পোস্ট দেন বাংলাদেশ প্রতিদিন সম্পাদক ও নিউজ ২৪ এর প্রধান সম্পাদক নঈম নিজাম।

পোস্টে পরিপত্রটি আপ দিয়ে তিনি লিখেন, না আপনাদের কাছে কোনো ধন্যবাদ প্রত্যাশা মিডিয়াকর্মীরা করে না। এই মুহূর্তে ডাক্তার, নার্স, আইন প্রয়োগকারী সংস্থা আর মিডিয়াকর্মীরা কাজ করছে নিরলসভাবে। পেশাগত কাজে মিডিয়া কর্মীদের হুমকি কারও থেকে কম নয়। দেশের স্বার্থরক্ষায় মিডিয়াকর্মীরা জীবনের চিন্তা করছে না। মূলধারার মিডিয়া গুজব নয়, খবর জানায়। একবারও চিন্তা করলেন না আপনার টিভি বন্ধের ঘোষণা রেখে কমিটি গঠন এই খারাপ সময়ে সবার মাঝে একটা ক্ষত তৈরি করবে। এই ক্ষত আগামীতেও থেকে যাবে। জানি না কার বুদ্ধিতে এই কাণ্ডগুলো ঘটান। আশা করছি, এই চিঠি প্রত্যাহার করবেন।

সেই পোস্টটিতে ৩৯ জন মন্তব্য প্রদানকারী তথ্য মন্ত্রণালয়ের এই সিদ্ধান্তের কঠোর সমালোচনা করেন।