শুক্রবার, ২৯ মে ২০২০, ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭

করোনা সন্দেহে মৃত্যু নিয়ে জনমনে আতঙ্ক

প্রকাশিতঃ রবিবার, মার্চ ২৯, ২০২০, ৭:০৩ অপরাহ্ণ


বগুড়ায় পুলিশের চেষ্টায় মৃত ব্যবসায়ীর দাফন সম্পন্ন

পার্সটুডে : দেশে টানা দু’দিন নতুন করে কারো দেহে কভিড-১৯ রোগের সংক্রমণ শনাক্ত হয়নি বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর)।

আজ (রোববার) দুপুরে নিয়মিত অনলাইন ব্রিফিং-এ সংস্থাটির পরিচালক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে ১০৯ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এই সময়ে নতুন করে কারও শরীরে কভিড-১৯ এর সংক্রমণ পাওয়া যায়নি।

আইইডিসিআরের তথ্য অনুযায়ী, দেশে এখন পর্যন্ত ৪৮ জনের দেহে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ শনাক্ত করা হয়েছে। এদের মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ৫ জনের। সেরে উঠেছেন ১৫ জন। আর হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন ২৮ জন।

তবে, করোনার লক্ষণ নিয়ে বিভিন্ন সরকারি হাসপাতালে করোনা ইউনিটে ভর্তি রোগীর মৃত্যু বা চিকিৎসা সেবা না পেয়ে মৃত্যু নিয়ে জনমনে আতঙ্ক বাড়ছে।

আজ সকালে রাজধানীর একটি আবাসিক এলাকায় দরিদ্র পরিবারের একটি শিশুর মৃত্যু নিয়ে এলাকাবাসীদের মধ্যে আতঙ্কের কথা জানা গেছে।

খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের করোনো আইসোলেশন ইউনিটে পর্যবেক্ষণে থাকা একজন সত্তর বছর বয়ষ্ক রোগী আজ (রোববার) সকাল সোয়া নয়টার দিকে মারা গেছেন।

বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের করোনা ইউনিটে মাত্র আট ঘন্টার ব্যবধানে দু’জন করোনা সন্দেহে ভর্তি হওয়া রোগী মারা গেছে। এদের মধ্যে একজন নারী শনিবার রাত ১২ টার দিকে মারা যান। আর দ্বিতীয় একজন ৪০ বছর বয়সী ব্যাংক কর্মচারী আজ সকাল ৮টায় মারা যান। তাদেরকে ক’দিন আগে জ্বর কাশি নিয়ে হাসপাতালের করোনা ইউনিটে ভর্তি করা হয়েছিল।

হাসপাতালের পরিচালক ডাঃ বাকির হোসেন জানান তাদের রক্ত ও কফ নমুনা পরীক্ষার জন্য ঢাকায় পাঠানো হলেও রিপোর্ট হাতে আসার আগেই মৃত্যু হয়েছে। এখন এ রোগীর সৎকার কিভাবে হবে তা প্রশাসনের উচ্চ পর্যায়ের সিদ্ধান্তের পর মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে।

ওদিকে পটুয়াখালীতে জ্বর-সর্দি-কাশি বুকে ব্যথায় আক্রান্ত মৃত ব্যক্তির মেয়ের বসতঘর লকডাউন করেছে প্রশাসন। আজ দুপুর ১২টায় পৌর সভার কালিকাপুরের মাদবাড়ীরর ফার্ম রোডস্থ ওই বাড়িতে লাল পতাকা উড়িয়ে লকডাউন ঘোষণা করে এলাকাবাসীতে সতর্ক করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা লতিফা জান্নাতি।

এ সময় তিনি এলাকাবাসীর উদ্যেশ্যে বলেন, মৃত রশিদের করোনা ভাইরাস সন্দেহে মরদেহ থেকে নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য আইইডিসিআর এ পাঠানো হয়েছে। তাই রিপোর্ট না আসা পর্যন্ত এ বাড়ি লকডাউন ঘোষণা করা হলো।

করোনা আক্রান্ত সন্দেহে শিশুসহ একই পরিবারের পাঁচজনকে দিনাজপুর মেডিকেল করৈজে হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। আজ তাদের নমুনা পরীক্ষার জন্য ঢাকায় আইইডিসিআর ল্যাবে পাঠানো হয়েছে।

এদিকে, আইইডিসি আর কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে করোনা ভাইরাস সনাক্ত করার যন্ত্রপাতি দেশের বিভিন্ন সরকারি হাসপাতালে স্থাপন করা হচ্ছে।

তবে, করোনা সনাক্ত হবার আগেই করোনা লক্ষণ নিয়ে মারা যাওয়া ব্যক্তির দাফন নিয়েও কোথাও কোথাও বিবাদ সৃষ্টির খবর পাওয়া গেছে।

নওগাঁর রাণীনগর উপজেলায় জ্বরে আক্রান্ত আল আমিন (২২) নামের এক যুবক শনিবার রাত ১০টার দিকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা গেছেন। তবে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন বলে সন্দেহ করছেন এলাকাবাসী। এদিকে আল আমিনের মৃতদেহ গ্রামে নিয়ে আসলে গ্রামের কোন লোকজন করোনা ভাইরাস সন্দেহে তার মৃতদেহের কাছে ঘেঁষছে না। এরআগে গতকাল সকালে সর্দি জ্বর ও কাশি নিয়ে ঢাকা থেকে গ্রামে ফিরে আসলে স্থানীয়রা তাকে বাড়িতে প্রবেশে বাধা দেয়।

আল আমিনের বাবা অভিযোগ করেছেন, স্থানীয় কমিউনিটি ক্লিনিক, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও জেলা সদর হাসপাতালে তাকে করোনা আক্রান্ত সন্দেহে চিকিৎসা দিতে অস্বীকার করে। অতঃপর রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানেও কোন পরীক্ষা-নিরীক্ষা ছাড়াই কিছু ওষুধ ও ইনজেকশন লিখে দিয়ে চলে যান চিকিৎসকরা। এরপর কোনো চিকিৎসক তার আশেপাশে আর আসেনি। অবশেষে গত রাতে মারা যায় আল আমিন।

ওদিকে, ঢাকা থেকে করোনাভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে বগুড়ায় ফেরা ব্যবসায়ীর (৫০) শিবগঞ্জ উপজেলার দাড়িদহ গ্রামের এক ভাড়াবাসায় মৃত্যুর পর তার লাশ কবর দেওয়া নিয়ে স্থানীয়রা বাধা দেয়। তবে শেষ পর্যন্ত পুলিশের চেষ্টায় তার দাফন সম্পন্ন হয়। তার মৃত্যুর পর ওই বাড়িটিসহ ১০টি বাড়ি লকডাউন করে দেয় প্রশাসন।