মঙ্গলবার, ২৬ মে ২০২০, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭

করোনাযোদ্ধা ও রোগীর জন্য নিজের ডুপ্লেক্স বাড়ি দিলেন ন্যান্সি

প্রকাশিতঃ মঙ্গলবার, এপ্রিল ২১, ২০২০, ২:২৬ অপরাহ্ণ


নেত্রকোনা : করোনাযোদ্ধা ও রোগীদের সেবায় নেত্রকোনার ডুপ্লেক্স বাড়ি ছেড়ে দিয়েছেন জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী নাজমুন মুনিরা ন্যান্সি।

ন্যান্সি জানান, নেত্রকোনায় আমার একটি ডুপ্লেক্স বাড়ি আছে। বাড়িটি করোনা রোগী কিংবা যোদ্ধাদের জন্য ছেড়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। বর্তমানে দেশ এক ক্রান্তিকাল সময় অতিক্রম করছে তাই বাড়িটি জনস্বার্থে ছেড়ে দিলাম। এতে করে যদি কারো উপকারে আসে সেটিই হবে আমার জন্য একটি বড় পাওয়া। যতদিন করোনা মহামারি থাকবে ততদিন আমার নেত্রকোনার বাড়িটি জনস্বার্থে ব্যবহার করতে পারবে প্রশাসন।

বাড়িটি কিভাবে কাজে লাগবে এমন প্রশ্নের জবাবে ন্যান্সি বলেন, এ বিষয়ে নেত্রকোনার জেলা প্রশাসক (ডিসি) মঈনউল ইসলামের সঙ্গে কথা হয়েছে আমার। তিনি কিভাবে বাড়িটি কাজে লাগাবেন তা আমাদের জানাবেন। আমরা বলেছি, ওই বাড়িটি করোনাযোদ্ধা চিকিৎসকদের থাকার জন্য কাজে লাগাতে পারেন। আবার অনেকের আইসোলেশনে জায়গা হচ্ছে না; সেক্ষেত্রে বাড়িটি কাজে লাগাতে পারেন। এছাড়া চাইলে করোনাভাইরাসের সংবাদ সংগ্রহে সাংবাদিকরা এখানে থাকতে পারবেন।

সংগীতশিল্পী ন্যান্সি আরও বলেন, আমরা একটি যুদ্ধে অবতীর্ণ হয়েছি। এই যুদ্ধ কতদিন চলবে তা কেউ বলতে পারব না। দেশের মানুষ আজ অসহায়। খাদ্যের জন্য হাহাকার, সুচিকিৎসার অভাব। এই দুঃসময়ে মানুষের পাশে দাঁড়ানো উচিত। আমরা যারা স্বাবলম্বি: তাদের সবারই এগিয়ে আসা উচিত। আমার নিজের অনুশোচনার জায়গা থেকে এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আমার কাছে মনে হয়েছে এই দুঃসময়ে মানুষের পাশে দাঁড়ানো উচিত। শুধু বাড়ি না, আমার গাড়িটা পর্যন্ত দিয়েছি এই মানবতার সেবায়। এই দুঃসময়ে যদি আমরা মানবিক না হই, তাহলে তো আমরা মনুষ্যত্বহীন মানুষে গণ্য হবো। যতদিন না পরিস্থিতি স্বাভাবিক হবে ততদিন বাড়িটি করোনাযোদ্ধারা ব্যবহার করতে পারবেন।

এ বিষয়ে নেত্রকোনার জেলা প্রশাসক (ডিসি) মঈনউল ইসলাম বলেন, সংগীতশিল্পী ন্যান্সি তার বাড়িটি ব্যবহারের কথা জানিয়েছেন। প্রয়োজন হলে আমরা তা কাজে লাগাবো।

এ পর্যন্ত নেত্রকোনায় মোট ২৭ জন করোনায় আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছেন। আক্রান্তদের মধ্যে জেলার বারহাট্টা উপজেলায় ১০ জন, নেত্রকোনা সদরে চারজন, খালিয়াজুরী উপজেলায় চারজন, কেন্দুয়া উপজেলায় একজন, মোহনগঞ্জ উপজেলায় দুজন, কলমাকান্দা উপজেলায় তিনজন ও আটপাড়া উপজেলায় তিনজন রয়েছেন।