মঙ্গলবার, ২৬ মে ২০২০, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭

আমি বেঁচে থাকলে নতুন মেয়রও আর বিলবোর্ড উঠাতে পারবে না : নাছির

প্রকাশিতঃ সোমবার, মে ১৮, ২০২০, ২:২৯ পূর্বাহ্ণ

হিমাদ্রী রাহা : করোনার লকডাউনে যেখানে প্রকৃতি তার সবুজের সৌন্দর্য প্রসারিত করছে সেখানে চট্টগ্রাম শহরের সবুজ প্রকৃতি ডাকা পড়ছে বিলবোর্ডে।

একসময় বিলবোর্ডের দৌরাত্ম্যে সবুজের শহর চট্টগ্রাম ডাকা পড়লেও ২০১৫ সালের জুলাইয়ে মেয়র হিসেবে আ জ ম নাছির উদ্দীন দায়িত্ব নেয়ার পর চট্টগ্রাম শহরকে মুক্ত করেন বিলবোর্ডের জঞ্জাল থেকে। বলা যায়, মেয়র হিসেবে আ জ ম নাছিরের এটাই সবচেয়ে বড় সাফল্য।

কিন্তু সম্প্রতি আগামী মেয়র নির্বাচনে তাঁর দলীয় মনোনয়ন না পাওয়াই বিলবোর্ড ব্যবসায়ীদের জন্য পোয়াবারো হয়ে উঠেছে বলে মনে করছেন কেউ কেউ। বলা হচ্ছে পুরোনো বিলবোর্ড ব্যবসায়ীরা আবারো মাথাচাড়া দিয়ে উঠছে। যার প্রমাণ মিলছে নগরজুড়ে বিভিন্ন পয়েন্টে লাগানো নতুন বিলবোর্ড। নগরীর সিটি গেইট, টাইগার পাস, খুলশী, বহদ্দারহাটসহ বিভিন্ন পয়েন্টে এখন শোভা পাচ্ছে প্রায় অর্ধশতাধিক বিলবোর্ড।

কারা জড়িত এসব বিলবোর্ডের পেছনে? এই প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে বিলবোর্ডের নাম্বারে বিজ্ঞাপনদাতা সেজে কথা হয় এক ব্যবসায়ীর সাথে। মো. আলী নামের সেই ব্যবসায়ী জানান, প্রতি মাসে ১৫ হাজার টাকার বিনিময়ে টাইগার পাসের বিলবোর্ডটি ভাড়া দেবেন তিনি। তবে স্থানভেদে তারতম্য হবে ভাড়ার।

বিলবোর্ডের অনুমোদন আছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন এখনো কোনো অনুমোদন দেয়নি। তবে আপনি নিশ্চিন্তে বিজ্ঞাপন দিতে পারেন। আমাদের সিন্ডিকেট আছে। সমস্যা হবে না। তাছাড়া করোনার সময়ে এসব নিয়ে কেউ মাথা ঘামাবে না। প্রশাসন এখন করোনা নিয়ে ব্যস্ত।

এ বিষয়ে কথা হয় মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীনের সাথে। তিনি জানান, কারোনাকালে একদল সুযোগ সন্ধানী, কুচক্রী মহল যারা এতদিন পর্যন্ত মেয়র থাকাকালীন সময়ে পারে নাই এখন তারা হয়তো কেউ কেউ মনে করছে যেহেতু নির্বাচনে মনোনয়ন দিয়েছেন দলের পক্ষ থেকে আরেকজনকে, সেহেতু মেয়রের দায়িত্ব মেয়াদশেষে পালন করতে পারবো না, তাই এটাই বোধহয় সুবর্ণ সুযোগ বিলবোর্ড ব্যাবসার। এটা তাদের ভুল ধারণা।

আমি বলবো ওরা বোকার স্বর্গে বাস করছে। আমি মেয়র থাকি, না থাকি আর কখনো এই নগরে আর কেউ বিলবোর্ড উঠাতে পারবে না। মোটকথা আমি যদি বেঁচে থাকি এই শহরে আর বিলবোর্ড উঠবে না। এমনকি নতুন মেয়রও বিলবোর্ড ওঠাতে পারবে না। প্রয়োজনে জনগণকে সাথে নিয়ে চরম গণআন্দোলন গড়ে তুলবো। যোগ করেন মেয়র নাছির।

আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেন, বিলবোর্ড ব্যবসায়ীরা হলো একটা অশুভ শক্তি। এই অশুভ শক্তি রাজনীতি করে না, রাজনীতির আবরণে তারা হীনস্বার্থ চরিতার্থ করে। আমি কর্পোরেশনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটদের সাথে কথা বলেছি ইতোমধ্যে। যে কয়টি বিলবোর্ড লাগানো হয়েছে নগরীতে, শিগগির সেসব বিলবোর্ড উচ্ছেদে নামবো।