১৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ৩ ফাল্গুন ১৪২৫, শুক্রবার

মেয়েটাও নাই, সাংসদের পায়ে ক্ষত !

KSRM Advertisement
প্রকাশিতঃ রবিবার, এপ্রিল ৮, ২০১৮, ১১:৪৫ অপরাহ্ণ

চট্টগ্রাম : ”দেশে থাকলে মেয়েটাই আমার নখ ছোট করে দেয়, যত্নআত্তি করে। মেয়েটা নেই, নখগুলোও তাই অনেক বড় হয়ে গেলো। আর সেই ‘বড় নখ’ বিপদ ডেকে আনলো। নখ উল্টে গিয়ে একসপ্তাহ ধরে কষ্ট পাচ্ছি। ডায়বেটিস থাকায় কষ্টটা আরো বড় হলো।”

একটি ফুটবল টুর্নামেন্টের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে পায়ের নখ উল্টে পায়ে ক্ষত সৃষ্টির পর মালয়েশিয়া সানওয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ে বিবিএ পড়ুয়া মেয়ে নাজিজা ইসলাম চৌধুরীকে এভাবেই মিস করছেন চট্টগ্রাম-১৪ (চন্দনাইশ-সাতকানিয়া আংশিক) আসনের সাংসদ নজরুল ইসলাম চৌধুরী।

জানা যায়, গত ৩০ মার্চ (শুক্রবার) নির্বাচনী এলাকার কাশেম-মাহাবুব স্কুলের ফুটবল টুর্নামেন্টের উদ্বোধক ছিলেন স্থানীয় সংসদ সদস্য নজরুল ইসলাম চৌধুরী। আয়োজকদের অনুরোধে বলে পা লাগিয়ে উদ্বোধন করতে গিয়েই বাধে বিপত্তিটা। সঙ্গে সঙ্গে উল্টে যায় ডান পায়ের বৃদ্ধাঙ্গুলির নখ। চিকিৎসকদের সর্বোচ্চ চেষ্টার পরও পুরোপুরি সেই ক্ষত শুকায়নি। এখনো ক্ষতস্থানে প্রচণ্ড ব্যথা অনুভূত হয়।

রাজনৈতিক কর্মী, শুভানুধ্যায়ীদের আড্ডা, আলোচনায় নখের ক্ষত কিংবা চোট পাওয়ার প্রসঙ্গ এলেই মালয়েশিয়ায় অধ্যয়নরত মেয়ে নাজিজা ইসলাম চৌধুরীকে টেনে আনছেন এমপি বাবা নজরুল ইসলাম।

বলছেন, ‌‌‌’আহা মেয়ে আমার! দু-এক মাস পর পর শিক্ষা-ছুটিতে সে দেশে আসে। এলেই আমার নখগুলো যত্ন করে কেটে দেয়। পড়ালেখার চাপ বেড়েছে, তাই গত দু-তিনমাস তার দেশে আসা হয়নি। মেয়েটা আসেনি বলে আমার নখগুলোও আর ছোট করা হয়নি। বড় নখে ফুটবলে পা ছোয়ালে যা হবার তাই হয়েছে।

আজারবাইজানে একটি আন্তর্জাতিক সম্মেলনে অংশ নিতে মঙ্গলবার রাতে ঢাকা ত্যাগ করার কথা রয়েছে এমপি নজরুল ইসলাম চৌধুরীর। সব প্রস্তুতি ঠিকঠাক থাকলেও নখের ক্ষতটা এখনো তাঁকে বেশ পীড়া দিচ্ছে।

রোববার রাতে নগরীর সদরঘাটস্থ ব্যবসায়িক কার্যালয়ে এমপি নজরুল ইসলাম চৌধুরীর সঙ্গে একুশে পত্রিকা প্রতিবেদকের আলাপকালে প্রসঙ্গটি সামনে চলে আসে। এসময় তিনি বলেন, পায়ের কষ্ট নিয়ে দেশের বাইরে যাচ্ছি। জানি না কী বিড়ম্বনায় পড়তে হয়! এসময় বার বার মালয়েশিয়া অবস্থানরত ছোট মেয়ে নাজিজা ইসলাম চৌধুরীর কথা মনে করছিলেন এমপি নজরুল। বলছেন মেয়েটা কাছে থাকলে হয়তো আজকে এ অবস্থা হতো না।

এটি/একুশে