২৩ এপ্রিল ২০১৯, ৯ বৈশাখ ১৪২৬, সোমবার

রোহিঙ্গাদের গ্রামে হত্যাযজ্ঞে ৭ সেনার ১০ বছরের কারাদণ্ড

প্রকাশিতঃ বুধবার, এপ্রিল ১১, ২০১৮, ১১:০৯ পূর্বাহ্ণ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যের একটি গ্রামে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর ওপর হত্যাযজ্ঞ চালানোর দায়ে মিয়ানমারের ৭ সেনা সদস্যকে ১০ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। একই সঙ্গে তাদের সেনাবাহিনী থেকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করা হয়েছে। মিয়ানমারের স্থানীয় সংবাদমাধ্যমগুলো এ খবর দিচ্ছে।

গত সেপ্টেম্বরে দেশটির উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় রাখাইন রাজ্যের একটি গ্রামে ওই হামলায় ১০ জন রোহিঙ্গা মুসলমান নিহত হন।

দেশটির সামরিক বাহিনীর কমান্ডার ইন চিফ মিন অং লাইংয়ের অফিসের ফেসবুক পাতায় বিষয়টি ঘোষণা করা হয়েছে বলে সংবাদমাধ্যম জানাচ্ছে। তাতে বলা হয়েছে হত্যাকাণ্ডে অংশ নেওয়ার ও ভূমিকা রাখার জন্য সাত জনের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

রয়টার্সের দুই সাংবাদিক ওয়া লোন (৩১ এবং কিয়াও সোয়ে (২৮) রাখাইনে গণহত্যা নিয়ে তদন্ত করছিলেন। তাদের তদন্তে সেনাবাহিনীর ওই হত্যাকাণ্ডের বিষয়টি উঠে আসে। যদিও রাষ্ট্রের গোপনীয়তা লঙ্ঘনের অভিযোগে গত ডিসেম্বরে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়, এখনও তারা মিয়ানমারের কারাগারে বন্দি আছেন।

দেশটির কর্তৃপক্ষ রয়টার্সকে বলেছে, সেনাবাহিনী স্ব-প্রনোদিত হয়ে গত ফেব্রুয়ারিতে একটি তদন্ত চালিয়েছে। সেনাবাহিনীর ওই প্রতিবেদনের সঙ্গে রয়টার্সের প্রকাশিত প্রতিবেদনের অমিল রয়েছে।

গত ফেব্রুয়ারিতে রয়টার্স প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বলা হয়, উত্তর রাখাইনের ইন্না দিন গ্রামে গত সেপ্টেম্বরের শুরুর দিকে স্থানীয় বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের লোকজন ও সেনাবাহিনী রোহিঙ্গাদের বাড়িঘর জ্বালিয়ে দেয় ও নির্বিচারে হত্যা করে।

গত আগস্টের শেষে রোহিঙ্গাদের সশস্ত্র সংগঠন আরসা মিয়ানমার সেনাবাহিনীর ওপর হামলা চালিয়েছে এমন অজুহাতে বহু নিরস্ত্র রোহিঙ্গাকে নির্বিচারে হত্যা করেছে মিয়ানমার সেনাবাহিনী। তাদের ঘরবাড়ি জ্বালিয়ে দেওয়া হয়েছে, নারীদের ধর্ষণ করা হয়েছে, রোহিঙ্গাদের সম্পদ লুট করা হয়েছে। এ ঘটনাকে জাতিসংঘ জাতিগত নিধন আখ্যা দিলেও, মিয়ানমার তা শুরু থেকেই অস্বীকার করে আসছে।

একুশে/এএ