২১ মার্চ ২০১৯, ৭ চৈত্র ১৪২৫, বৃহস্পতিবার

এক বছরেও পারল না থানা পুলিশ, এক মাসে পারল পিবিআই

KSRM Advertisement
প্রকাশিতঃ বৃহস্পতিবার, নভেম্বর ১, ২০১৮, ৩:২৫ অপরাহ্ণ

চট্টগ্রাম: চট্টগ্রামের পটিয়ায় পশ্চিম মনসাস্থ সিপাহী বাড়ির পুকুরে এক ব্যক্তির লাশ উদ্ধারের ঘটনার তদন্ত করে থানা পুলিশ এক বছরে কাউকে ধরতে না পারলেও পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) এক মাসেই হত্যার রহস্য উদঘাটন করেছে।

এই হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় ভাড়াটে খুনিসহ তিনজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তারা হচ্ছেন চট্টগ্রামের রাউজানের গরীব উল্লাহপাড়ার আবু তাহেরের ছেলে মো. রোকন উদ্দীন ওরফে মামুন (৪০), রাউজানের ব্রাক্ষণহাটের ছানা উল্ল্যাহের ছেলে মো. নাছির (২২) ও নোয়াখালীর হাতিয়ার উচখালীর মোশারফ হোসেনের ছেলে মো. জামশেদ (২৮)।

এদের মধ্যে রোকন হচ্ছেন রাউজান থানার তালিকাভুক্ত অস্ত্রধারী শীর্ষ সন্ত্রাসী। তার বিরুদ্ধে রাউজানের রাশেদ হত্যা, খায়েজ চেয়ারম্যান হত্যা, হাতকাটা রফিক হত্যা মামলা রয়েছে। এ ছাড়া পাঁচলাইশ থানার অস্ত্র মামলা ও একাধিক চাঁদাবাজি এবং আরো বিভিন্ন মামলার এজাহারভুক্ত পলাতক আসামি রোকন। গ্রেফতার জামশেদ হচ্ছেন ভুক্তভোগীর বড় বোনের স্বামী।

পিবিআই জানায়, ২০১৭ সালের ৩১ আগস্ট সকাল ৬টায় পটিয়ায় পশ্চিম মনসাস্থ সিপাহী বাড়ীর পুকুর থেকে এক ব্যক্তির লাশ উদ্ধার করা হয়। ঘটনার ১০ দিন পর পুলিশ জানতে পারে, লাশটি নোয়াখালীর হাতিয়ার পঞ্চায়েত গ্রামের মৃত আবুল কাশেমের ছেলে রুবেল উদ্দিনের (২৫)। ভুক্তভোগী পেশায় সিএনজি অটোরিকশা চালক ছিলেন। এ ঘটনায় দায়ের করা মামলাটি তদন্ত করে কিছু পাননি পটিয়া কালারপোল পুলিশ ফাঁড়ির তদন্তকারী কর্মকর্তা ইন্সপেক্টর মোহাম্মদ আলী। পরে পুলিশ সদর দপ্তরের নির্দেশের পর গত ২৯ সেপ্টেম্বর মামলাটি তদন্তের দায়িত্ব পান পিবিআই চট্টগ্রাম জেলার এসআই পরিতোষ দাশ।

এরপর গত ৩০ অক্টোবর নগরের কাপ্তাই রাস্তার মাথা থেকে এ ঘটনায় জড়িত রোকন উদ্দীনকে গ্রেফতার করা হয় বলে পিবিআই চট্টগ্রাম জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. রেজাউল করিম জানান।

তিনি বলেন, রোকনের স্বীকারোক্তির ভিত্তিতে রাউজান থানা এলাকা থেকে নাছির ও জামশেদকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এরপর তাদেরকে বুধবার পটিয়া চৌকি আদালতে হাজির করা হয়। এদের মধ্যে ভাড়াটে খুনি রোকন জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম বিশ্বেশ্বর সিংহ এর আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়। এতে হত্যার মূল পরিকল্পনাকারী ও জড়িত সাত আসামির নাম উঠে আসে।

পিবিআই চট্টগ্রাম জেলার পরিদর্শক (প্রশাসন) আবু জাফর মো. ওমর ফারুক বলেন, পারিবারিক বিরোধের জের ধরে নাছিরের পরিকল্পনায় জামশেদ তার শ্যালককে ভাড়াটে খুনি দিয়ে খুন করান। হত্যার পর লাশ গুম করার জন্য পানিতে ফেলে দিয়েছিল তারা। খুনের পর রুবেলের সিএনজি অটোরিকশাটি ৭০ হাজার টাকায় বিক্রি করে দেয় তারা। গাড়িটি উদ্ধারের চেষ্টা চলছে।

তদন্তের স্বার্থে খুনের সাথে জড়িত অন্যদের পরিচয় এখনই জানাতে নারাজ পিবিআই চট্টগ্রাম জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. রেজাউল করিম।