মঙ্গলবার, ৭ জুলাই ২০২০, ২৩ আষাঢ় ১৪২৭

আরশেদুল আলম বাচ্চুর ভ্রাম্যমাণ চিকিৎসাসেবা

প্রকাশিতঃ মঙ্গলবার, জুন ৩০, ২০২০, ১০:০০ অপরাহ্ণ


চট্টগ্রাম : করোনাভাইরাস সঙ্কটে মানবিক কর্মসূচি নিয়ে তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছেন আওয়ামী লীগের নির্বাচন পরিচালনা উপ-কমিটির সদস্য ও সাবেক ছাত্রনেতা আরশেদুল আলম বাচ্চু। করোনাভাইরাস আতঙ্কে চিকিৎসকরা যখন বন্ধ রেখেছেন প্রাইভেট চেম্বার; বেসরকারি হাসপাতালগুলোতেও মিলছে না পর্যাপ্ত সেবা, ঠিক তখনই ভ্রাম্যমাণ চিকিৎসাসেবার উদ্যোগ নিয়েছেন তিনি।

গত ৭ জুন থেকে আরশেদুল আলম বাচ্চুর এই ভ্রাম্যমাণ চিকিৎসাসেবা যাচ্ছে নগরের প্রত্যেকটা এলাকায়। ইতোমধ্যে ১৫টি এলাকায় প্রায় ৫ শতাধিক মানুষকে চিকিৎসাসেবা দেওয়া হয়েছে। শুধু চিকিৎসা নয় সঙ্গে দেওয়া হচ্ছে ফ্রি ওষুধপত্রও। করোনা আক্রান্ত ও সাধারণ রোগীদের চিকিৎসাসেবা দিচ্ছেন দুইজন চিকিৎসক। আর তাদের সহযোগিতা করছেন ২০ জন স্বেচ্ছাসেবক।

এ বিষয়ে আরশেদুল আলম বাচ্চু বলেন, চট্টগ্রামে বিভিন্ন হাসপাতালে সাধারণ রোগীরা চিকিৎসাসেবা না পাওয়ার অভিযোগ থেকে ফ্রি চিকিৎসাসেবা ব্যবস্থা করা। ৭ জুন থেকে আমরা করোনা আক্রান্ত ও সাধারণ রোগীদের চিকিৎসাসেবাসহ নানা পরামর্শ দিচ্ছি। মূলত করোনা আক্রান্ত যেসব রোগীর মৃদু লক্ষণ আছে, তাদের এ সেবা দেওয়া হচ্ছে।

এদিকে আজ মঙ্গলবারও (৩০ জুন) আগ্রাবাদের শান্তিবাগে শতাধিক মানুষকে চিকিৎসাসেবা দেওয়া হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন সাবেক ছাত্রলীগ নেতা ওসমান গনি আলমগীর, নগর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক জাকারিয়া দস্তগীর, সাবেক ছাত্রনেতা শরিফুল রহমান রিয়াজ, আদনান শাহরিয়ার তমাল, মোহাম্মদ সুমন, যুবলীগ নেতা তাজুল ইসলাম, নগর ছাত্রলীগের উপ-ক্রীড়া সম্পাদক কাজী মাহমুদুল হাসান রনি, উপ-অর্থ সম্পাদক আবু হানিফ রিয়াদ।

এছাড়া নগর ছাত্রলীগের সদস্য মাহমুদুর রশীদ বাবু, ডবলমুরিং থানা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রাকিব হায়দার, ছাত্রলীগ নেতা ইমাম হোসেন ইমন, শফিক জাবেদ, এস এম মিসবাহ, তৌহিদুল ইসলাম অভি, জাবেদ রহিম মুন, আসিফ, সেলিম উদ্দীন, আশরাফুল ইসলাম শান্ত, রিফাত আবরার আলামিন, তানজিম শাওন, শুভখান মিশু শীল হাসান তারেক সায়েম, জহিরুল ইসলাম সোলতান, মোহাম্মদ দিদার, ফাহিম উদ্দীন, দিদার উদ্দীন, রিপন আহম্মেদ, মোহাম্মদ রাব্বি প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

প্রসঙ্গত, দেশে করোনা শুরু হওয়ার পর থেকে অসহায় ও মধ্যবিত্ত পরিবারকে খাবার সহায়তা দিচ্ছেন বাচ্চু। খাবার সহায়তা ছাড়াও ফ্রি সবজি বাজার কার্যক্রম চালু করেন তিনি। তার এই দুটি কার্যক্রম এখনও চলমান আছে।