রবিবার, ৯ আগস্ট ২০২০, ২৫ শ্রাবণ ১৪২৭

১৬৮ বাংলাদেশিকে ফেরত পাঠাল ইতালি

প্রকাশিতঃ বৃহস্পতিবার, জুলাই ৯, ২০২০, ৮:২৩ পূর্বাহ্ণ


ইতালি: কাতার এয়ারওয়েজের ফ্লাইটে করে দোহা থেকে ইতালি যাওয়া সাত মাসের অন্ত:সত্ত্বা এক বাংলাদেশি নারী ছাড়া বাকী সবাইকে ফেরত পাঠানো হয়েছে। দু’টি ফ্লাইটে বুধবার ইতালি যাওয়া ১৬৮ বাংলাদেশি পাসপোর্টধারীকে দোহাগামী ফিরতি ফ্লাইটে তুলে দিয়েছে দেশটির ইমিগ্রেশন ডিপার্টমেন্ট।

বাংলাদেশ মিশন জানায়, বুধবার ঢাকা থেকে দোহা হয়ে ১৮৩ জন ইতালি যান। তাদের সারাদিন বিমান থেকে নামতেই দেয়নি কর্তৃপক্ষ। মানবিক কারণে তাদের গ্রহণ করতে বাংলাদেশ দূতাবাস রোম এবং মিলানস্থ বাংলাদেশ কনস্যুলেট তাৎক্ষণিক নোট ভারবাল পাঠিয়ে জোর অনুরোধ করেছিল। কিন্তু ইতালি সরকার তার নীতি বা সিদ্ধান্তের প্রশ্নে একচুলও নমনীয় হয়নি।

তারা শেষ পর্যন্ত ইতালিয় পাসপোর্টধারী ১৪ জন এবং বাংলাদেশি পাসপোর্টধারী ৭ মাসের অন্ত:সত্ত্বা একজন নারীকে গ্রহণে সম্মত হয়। বাকী সবাইকে ফেরত পাঠায়। এর মধ্যে মিলানে নামা ৪০ যাত্রীর ৩৯ জনকে দোহাগামী ফিরতি ফ্লাইটে ফেরত পাঠানো হয়। একজন নারী যাত্রী অপেক্ষমাণ অবস্থায় বিমানবন্দরে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে নিকটস্থ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সুস্থ হওয়ার পর তাকেও ফেরত পাঠানোর কঠিন সিদ্ধান্ত জানিয়ে দেয়া হয়েছে।

এদিকে, আগেই খবর বেরিয়েছে কাতার এয়ারওয়েজের অপর ফ্লাইটে ইতালির রোমে যাওয়া ১২৫ বাংলাদেশিকে বিমান থেকে নামতে দেয়া হয়নি। বুধবার স্থানীয় সময় দুপুর ১টার দিকে ফিউমিসিনো বিমানবন্দরে ওই বিমানটি অবতরণ করে। ইতালির জাতীয় দৈনিক ইল মেসসাজ্জেরোর অনলাইন সংস্করণের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, ওই বাংলাদেশি যাত্রীদের ইতালিতে প্রবেশ করতে দেয়া হয়নি। মঙ্গলবার বাংলাদেশ ফেরত যাত্রীদের শরীরে করোনা ভাইরাসের উপস্থিতি শনাক্ত করে ইতালি কর্তৃপক্ষ। এরপর বাংলাদেশের সঙ্গে এক সপ্তাহের জন্য সকল ফ্লাইট বাতিল ঘোষণা করে দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়।

বাংলাদেশের সঙ্গে ফ্লাইট বাতিল করলেও কাতার থেকে যাওয়া ফ্লাইট চালু রেখেছে ইতালি। তাই দোহা থেকে যাওয়া ওই ফ্লাইটটির বাংলাদেশি যাত্রীদের ইতালি প্রবেশে কোনো বাধা থাকার কথা ছিল না। কিন্তু ইতালির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে উদ্ধৃত করে ইল মাসসাজ্জেরো জানায়, ওই ১২৫ বাংলাদেশি ইতালিতে প্রবেশ করতে পারবেন না। এমনকি তাদের বিমান থেকেও নামতে দেয়া হবে না। কেবলমাত্র জরুরি স্বাস্থ্যসেবার প্রয়োজন এমন যাত্রীরা নামতে পারবেন। ওই বিমানেই স্থানীয় সময় বিকালে তাদের ফেরত পাঠানো হবে।

রোমের বাংলাদেশ মিশনের দায়িত্বশীল সূত্রগুলো বলছে, সংখ্যা নিয়ে বিভ্রান্তি আছে। আগে ১২৫ বলা হলেও বাংলাদেশ থেকে রোমে যাওয়া যাত্রীর সংখ্যা ১৫১ জন ছিল বলে হযরত শাহজালাল বিমানবন্দর সূত্রে জানা গেছে।

করোনা আক্রান্ত ৬০০ বাংলাদেশি ঘুরে বেড়াচ্ছেন ইতালিতে

অন্যদিকে, ইতালির লাজিও প্রশাসনিক এলাকার হেলথ কাউন্সিলর আলেস্সিতও ডি’আমাতো জানিয়েছেন, রাজধানী রোমসহ দেশটির বিভিন্ন এলাকায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত কমবেশি ৬০০ বাংলাদেশি ঘুরে বেড়াচ্ছেন। যাদেরকে এখনও চিহ্নিত করা সম্ভব হয়নি। রোম থেকে প্রকাশিত দৈনিক ইল মেসাজ্জেরোকে এসব কথা বলেন ডি’আমাতো।

তিনি বলেন, “সোমবার (৬ জুলাই) ঢাকা থেকে আসা বিশেষ ফ্লাইটের যাত্রীদের থেকে সংগৃহীত নমুনা থেকে পাওয়া তথ্যে ভিত্তিতে আমাদের গবেষকরা হিসেব করে দেখেছেন, সেখানকার ১৩% যাত্রী কোভিড-১৯ পজিটিভ।”

মঙ্গলবার ঢাকা থেকে রোমে যাওয়া ২১ যাত্রীর শরীরে সংক্রমণ শনাক্ত হয়। এরপর বাংলাদেশ থেকে রোমগামী ফ্লাইটের ওপর এক সপ্তাহের নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেন ইতালির স্বাস্থ্যমন্ত্রী।