সোমবার, ১০ আগস্ট ২০২০, ২৬ শ্রাবণ ১৪২৭

অনুমতি পাওয়ার আগেই পশুর চারটি অস্থায়ী হাট ইজারা দিল চসিক

প্রকাশিতঃ শনিবার, জুলাই ১১, ২০২০, ৬:২৮ অপরাহ্ণ


ইমরান এমি : চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন প্রতিবারের মতো এবারও চারটি অস্থায়ী পশুর হাট বসানোর জন্য জেলা প্রশাসনের কাছে আবেদন করলেও এখানে অনুমতি পায়নি। অনুমোদন না পেলেও চারটি অস্থায়ী বাজারের তিনটির ইজারা দিয়ে দেওয়া হয়েছে। অনুমতি না পেলে পশুরহাট শেষ পর্যন্ত বসবে কিনা- এমন প্রশ্ন সংশ্লিষ্টদের।

চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক মো. ইলিয়াস হোসেন একুশে পত্রিকাকে বলেন, করোনা মহামারীর কারণে জনসমাগম এড়িয়ে চলার জন্য পরামর্শ দিয়েছে স্বাস্থ্য বিশেজ্ঞরা। আসন্ন ঈদ উল আযহা উপলক্ষে নগরের চারটি অস্থায়ী পশুর হাট বসানোর জন্য অনুমতি চেয়েছে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন। কিন্তু আমরা এখনো তাদেরকে অনুমতি দিই নাই।

তিনি বলেন, কাল আমাদের এ বিষয়ে ঢাকা থেকে জানানো হবে। তারপর আমরা পরিস্থিতির উপর নির্ভর করে দেখবো কয়টি অনুমোদন দেওয়া যায়। যত সম্ভব কম পশুর হাট অনুমোদন দেওয়া হবে। পশুর হাটে জনসমাগম হলে কোভিড সংক্রমণ বেড়ে যেতে পারে। তাতে বর্তমানে যে করোনার হার কমতে শুরু করেছে তা বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। তাই অনুমোদন দিলেও সড়কের উপর পশুর হাট বসানো যাবে না। স্বাস্থ্য বিধি মেনেই বাজারে প্রবেশ করানোর জন্য নির্দেশনা দেওয়া থাকবে বলে জানান তিনি।

জানা যায়, চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নগরীতে চারটি পশুর হাট বসানোর জন্য অনুমোদন চেয়েছে। সেগুলো হলো, কমল মহাজন হাট পশুর হাট, সল্টগোলা গরু বাজার, বাটারফ্লাই পার্কের পাশের টিকে গ্রুপের মাঠ ও কর্ণফুলী নুর নগর হাউজিং মাঠ। তার মধ্যে তিনটি বাজার ইজারা দেওয়া হলেও নুর নগর হাউজিং মাঠের কোন দরপত্র জমা না পড়াতে এখনো ইজারা হয়নি।

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের ভূূ-সম্পদ কর্মকর্তা এখলাস উদ্দীন বলেন, চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের পক্ষ থেকে চারটি অস্থায়ী পশুর হাটের জন্য জেলা প্রশাসনের অনুমতি চাওয়া হয়েছে। তবে এখনো অনুমতি দেওয়া হয়নি। চারটি বাজারের মধ্যে তিনটি বাজার ইজারা হলেও কর্ণফুলী নুর নগর হাউজিং মাঠ পশুর হাট এখনো ইজারা হয়নি।

অনুমতি না পেলেও ইজারা দেওয়ার কারণ জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমরা আশাবাদী কালকের মধ্যেই আমরা অনুমতি পাবো।

জানতে চাইলে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের রাজস্ব কর্মকর্তা মুফিদুল আলম একুশে পত্রিকাকে বলেন, চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক চারটি অস্থায়ী পশুর হাটের বিষয়ে আমরা এখনো কোন আপত্তি পাইনি। ইতিমধ্যে পুলিশ ক্লিয়ারেন্স আমরা পেয়েছি।

অনুমতি না পেলে সিদ্ধান্ত কি হবে এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, আমরা খবর পেয়েছি অনুমতি দেওয়া হবে। যদি অনুমতি না পাই, তাহলে আমাদের যে কমিটি আছে সেখানে আলোচনা করে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

এদিকে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে এ বছর ঢাকা, চট্টগ্রাম, নারায়ণগঞ্জ ও গাজীপুরে কোরবানির পশুর হাট না বসানোর সুপারিশ করেছে কোভিড-১৯ বিষয়ক জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটি।

শুক্রবার (১০ জুলাই) পরামর্শক কমিটির ১৪তম অনলাইন সভায় যেসব সুপারিশ করা হয় সেগুলো পরে কমিটির সভাপতি মোহাম্মদ সহিদুল্লা ও সদস্য সচিব মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, কোরবানির ঈদ সামনে রেখে জাতীয় পরামর্শক কমিটি কোভিড-১৯ পরিস্থিতি পর্যালোচনা করেছে। কোভিড-১৯ সংক্রমণ এখনও নিয়ন্ত্রণে আসেনি। এ অবস্থায় ঢাকাসহ বিভিন্ন এলাকায় অবাধ জীবনযাত্রায় উদ্বেগ প্রকাশ করে জাতীয় কমিটি।