সোমবার, ১০ আগস্ট ২০২০, ২৬ শ্রাবণ ১৪২৭

মহামারিতে জাতীয় নির্বাচন এক বছর পেছাল হংকং

প্রকাশিতঃ শনিবার, আগস্ট ১, ২০২০, ১১:৪৪ পূর্বাহ্ণ


আন্তর্জাতিক ডেস্ক : প্রথম ধাক্কায় করোনা ভাইরাসকে ধরাসায়ী করেছিল যেই দেশ সেই দেশ এবার সংক্রমণের কারণে নিজেদের জাতীয় নির্বাচন পেছাতে বাধ হল। জুলাই থেকে করোনা পরিস্থিতি নাজুক হয়ে পড়ায় এমন সিদ্ধান্তের কথা জানালো হংকং সরকার। দেশটিতে আগামী ৬ সেপ্টেম্বর পার্লামেন্ট নির্বাচন হওয়ার দিনক্ষণ নির্ধারিত ছিল। খবর বিবিসির।

দেশটির প্রধান ক্যারি লাম শুক্রবার জানিয়েছেন, জানুয়ারির পর এবারই প্রথম মহামারীর ‘সবচেয়ে খারাপ সময়’ পাড়ি দিচ্ছে হংকং । জনস্বাস্থ্যের কথা বিবেচনা করে তাই নির্বাচন পেছানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। নির্বাচনে বড় ধরনের লোক সমাগম থেকে সংক্রমণের ঝুঁকি থাকায় এটি জরুরি ছিল। তবে বিবিসির সূত্রে জানা গেছে সরকার মানুষজনকে ভোট দিতে না দেওয়ার জন্য মহামারীকে অজুহাত হিসাবে ব্যবহার করছে এমন অভিযোগ করেছে বিরোধীরা।

ধারণা করা হচ্ছিল সেপ্টেম্বরের নির্বাচনে হংকংয়ের গণতন্ত্রপন্থি শিবিরের বড় ধরনের জয়লাভের আশা ছিল। তাই সরকারের নির্বাচন পেছানোর সিদ্ধান্ত তাদের জন্য একটি বড় ধাক্কা। তাদের আভিযোগ তুলে ধরে বিবিসি জানায়, হংকং সরকার বৃহস্পতিবারেই নতুন নিরাপত্তা আইনের বিরোধিতাসহ আরও কয়েকটি কারণে ১২ গণতন্ত্রপন্থি প্রার্থীর নির্বাচনে দাঁড়ানো নিষিদ্ধ করেছে। এরপরই তারা নির্বাচন পেছানোর সিদ্ধান্ত দিল যা স্পষ্টতই ষড়যন্ত্র।

এদিকে পরবর্তী নির্বাচনে এক বছর সময় চাইলেও তার কোন নির্দিষ্ট দিনক্ষণ ঘোষণা না করায় সমালোচনা বাড়িয়েছে সরকার। বিরোধীরা দাবী করেছেন স্থানীয় নির্বাচনী আইনে নির্বাচন কেবল ১৪ দিনের জন্য পেছানো যায়। তাই দীর্ঘ এই বিরতি হলে হংকং ‘সাংবিধানিক সংকট’ এর মুখোমুখি হবে।

তবে এদের পাল্টা জবাবে নেতা ক্যারি লাম জানিয়েছেন, সেপ্টেম্বরে নির্বাচন যদি হত তবে বয়স্ক ভোটাররা বেশি ঝুঁকিতে পড়তেন। তাছাড়া চীনা মূল ভূখন্ড এবং বিদেশেও হংকংয়ের অনেক নিবন্ধিত ভোটার রয়েছেন যারা মহামারীর কারণে সীমান্ত বন্ধ থাকায় নির্বাচনে অংশ নিতে পারতেন না। এর আগে তিনি হুশিয়ারি দিয়েছিলেন দ্রুতগতিতে বাড়তে থাকা করোনাভাইরাস সংক্রমণ হংকংকে গ্রাস করছে। এতে নগরীর হাসপাতাল ব্যবস্থাপনা ভেঙে পড়তে পারে।

সম্প্রতি সংক্রমণ বেড়ে হংকংয়ে শনাক্ত হয়েছে ৩ হাজার ৫শ’র বেশি করোনা রোগী। এ পর্যন্ত মারা গেছে ৩০ জন।