মঙ্গলবার, ১১ আগস্ট ২০২০, ২৭ শ্রাবণ ১৪২৭

খালেদা জিয়া মুক্ত থাকলেও সুচিকিৎসা পাচ্ছেন না : ফখরুল

প্রকাশিতঃ শনিবার, আগস্ট ১, ২০২০, ৮:৩০ অপরাহ্ণ


ঢাকা : বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া জামিনে মুক্ত থাকলেও প্রকৃত অর্থে সুচিকিৎসা পাচ্ছেন না বলে জানিয়েছেন, দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

তিনি বলেন, এই মুহূর্তে দেশের হাসপাতালগুলোতে যাওয়া যাচ্ছে না এবং বিদেশে চিকিৎসা নেয়ার মতো কোনো সুযোগ পাচ্ছেন না। ফলে বাস্তবিক অর্থে তার স্বাস্থ্যের যে উন্নতি হওয়ার কথা ছিল তা হচ্ছে না।

শনিবার দলের স্থায়ী কমিটির সদস্যদের নিয়ে শেরে বাংলা নগরে অবস্থিত বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের মাজার জিয়ারত শেষে মির্জা ফখরুল সাংবাদিকদের কাছে এসব কথা বলেন।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘এই করোনা পরিস্থিতির সাথে আমরা পরিচিত ছিলাম না। সেই পরিস্থিতিতে দলের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আজ ঈদের দিন আমাদের স্থায়ী কমিটির সদস্যদের সাথে শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের মাজার জিয়ারত করতে এসেছি।’

ফখরুল বলেন, ‘দুর্ভাগ্য, আজকে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে একটি সম্পূর্ণ মিথ্যা মামলায় তাকে আটক করে রাখা হয়েছে এবং বিভিন্ন প্রকার শর্ত আরোপ করে রাখা হয়েছে। আমরা বরাবরই যখন মাজার জিয়ারত করতে আসি তখন আমাদের সাথে হাজার হাজার নেতা কর্মী থাকেন। কিন্তু আজকে এই কোভিড-১৯-এর কারণে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার লক্ষে এবং আমাদের নেতাকর্মী ও জনগণের নিরাপত্তার স্বার্থে আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি কোথাও কোনো সমাবেশে অংশগ্রহণ করব না। তাই আজকে শুধু দলের জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্যদের নিয়ে আমাদের প্রতিষ্ঠাতার মাজার জিয়ারত করতে এসেছি।’

তিনি জানান, ‘আমরা আজকে বিশেষ এই দিনে চলমান সংকট ও দুর্দিনে সাধ্যমত মানুষের পাশে দাঁড়ানোর শপথ নিয়েছি। একইসাথে গণতন্ত্র রক্ষা ও পুনরুদ্ধারের শপথ নিয়েছি।’

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর আরো বলেন, ‘আজকে করোনার মধ্যে দেখা দিয়েছে বন্যা। মানুষ অবর্ণনীয় দুর্দশায় পড়েছেন। সরকারের সেদিকে কোনো ভ্রুক্ষেপ নেই। আবারো দাবি জানাতে চাই দুর্গতদের ত্রাণ ও অবিলম্বে পুনর্বাসন করা হোক।’

এ সময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, নজরুল ইসলাম খান, বেগম সেলিমা রহমান, ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু, বিএনপি চেয়ারপারসনের মিডিয়া উইং কর্মকর্তা শামসুদ্দিন দিদার ও শায়রুল কবির খান।