বুধবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০, ৮ আশ্বিন ১৪২৭

একুশে পত্রিকার প্রতিনিধিকে অপহরণ, মূল হোতাকে বাদ দিয়ে মামলা

প্রকাশিতঃ সোমবার, আগস্ট ৩, ২০২০, ১০:২০ অপরাহ্ণ

চট্টগ্রাম : একুশে পত্রিকার বাঁশখালী উপজেলা প্রতিনিধি মো. বেলাল উদ্দিনকে অপহরণের পর হত্যাচেষ্টার ঘটনায় পাঁচজনের নাম উল্লেখ করে ও অজ্ঞাত আরও ৮-১০ জনের বিরুদ্ধে বাঁশখালী থানায় মামলা হয়েছে। তবে মামলায় আসামি করা হয়নি ঘটনার মূল হোতা, নির্দেশদাতা ছনুয়া ইউপি চেয়ারম্যান এম হারুনুর রশিদকে।

আসামিরা হলেন, ছৈয়দুল মোস্তাফা প্রকাশ বাক্কা (৪০), আশরাফ হোসাইন (৩৫), মিয়া হোসেন (৩৫), মো. আশেক (২৫), নজরুল সিকদার (৪০)।

বাঁশখালী থানার ওসি রেজাউল করিম মজুমদার একুশে পত্রিকাকে বলেন, অপহরণের সঙ্গে সরাসরি জড়িতদের আসামি করা হয়েছে। চেয়ারম্যান যেহেতু নিজে এসে ভিকটিমকে তুলে নেয়নি, তাই তাকে আসামি করা হয়নি। তবে অপহরণের ঘটনায় চেয়ারম্যানের ভূমিকা এজাহারে উঠে এসেছে।

এদিকে সোমবার সকালে মামলাটি রেকর্ড হলেও রাত ১০টায় এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত কেউ গ্রেপ্তার হয়নি। বেলালের কাছ থেকে ছিনিয়ে নেয়া দুটি মোবাইল, ঘড়ি, নগদ টাকা, একুশে পত্রিকার পরিচয়পত্রও উদ্ধার করতে পারেনি পুলিশ।

এ বিষয়ে ওসি রেজাউল করিম মজুমদার বলেন, আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে। তারা গ্রেপ্তার হলে জিনিসপত্রও উদ্ধার হবে।

এর আগে গতকাল রোববার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে বাঁশখালীর ছনুয়া আবাখালী এলাকা থেকে একুশে পত্রিকার প্রতিনিধি বেলাল উদ্দিনকে সিএনজি অটোরিকশায় তুলে নিয়ে যায় ছনুয়া ইউপি চেয়ারম্যান এম হারুনুর রশিদের অনুগত সন্ত্রাসীরা। এরপর পুলিশ ও র‌্যাবের তৎপরতায় সন্ত্রাসীরা বেলালকে আহত অবস্থায় ছেড়ে দেয়। পরে তাকে চিকিৎসা দিতে হাসপাতালে নিয়ে যায় বাঁশখালী থানা পুলিশ।

জিম্মিদশা থেকে মুক্ত হয়ে হাসপাতালে যাওয়ার পথে সেদিন রাত সাড়ে ১০টার দিকে বেলাল উদ্দিন একুশে পত্রিকাকে মুঠোফোনে বলেন, ‘চোখ-মুখ বেঁধে আমাকে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে গিয়ে মারধর করে, জামা-প্যান্ট ছিঁড়ে ফেলে সন্ত্রাসীরা। আমাকে তারা বলে, কালেমা পড়ে ফেলতে। শেষ ইচ্ছা কী বলে ফেলতে। আমি তাদের কাছে পানি চেয়েছি, তখন বলেছে এখন আর পানি খাওয়া লাগবে না। রাত ১২টার পর শেষ করে দেবো।’

‘তুলে নেয়ার ঘন্টাখানেক পর তারা বলাবলি করে, আমার জন্য বিভিন্ন জায়গা থেকে ফোন যাচ্ছে। পরে তারা আমাকে সিএনজি অটোরিকশায় করে চেয়ারম্যানের বাড়ির সামনে এনে ছেড়ে দেয়। রশি খুলে দেয়ার সময় তারা বলে, জীবনে আর চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে লিখবি না, চেয়ারম্যান অন্যায় করলেও না। ছাড়ার আগে আমার দুটি মোবাইল, ঘড়ি, নগদ টাকা ও একুশে পত্রিকার পরিচয়পত্র কেড়ে নেয় তারা।’

বেলাল উদ্দিন বলেন, ‘ছেড়ে দেয়ার কিছুক্ষণ পর চেয়ারম্যানের বাড়িতে ওসি সাহেব আসেন। তখন চেয়ারম্যান ঘটনা মিটমাট করে ফেলতে চেয়েছিলেন। আমি বলেছি, আমার সম্পাদকের সাথে কথা বলা ছাড়া আমি কিছু বলতে পারবো না। চেয়ারম্যান টাকাও দিতে চেয়েছেন। কত লাগবে জানতে চেয়েছেন। চেয়ারম্যান আরও বলেছেন, তোমার মতো ১৪ জন মানুষ পালার ক্ষমতা আমার আছে। কোন সময় কী লাগে সেটা শুধু আমাকে বলবে। আমার পক্ষে লিখবে, মঙ্গল হবে।’

চেয়ারম্যান হারুনের লোকজনের এভাবে তুলে নেয়ার কারণ জানিয়ে বেলাল বলেন, ‘ছনুয়া ইউনিয়ন পরিষদে ৫০ টাকার জন্ম নিবন্ধন ৩০০ টাকা নেয়া হচ্ছিল। এ নিয়ে নিউজ করায় পরিষদের সচিব বদলি হন দুই মাস আগে। এতে চেয়ারম্যান আমার প্রতি ক্ষুব্ধ হন।’

এদিকে তুলে নিয়ে যাওয়ার ঘটনায় জড়িত তিন সন্ত্রাসী ছনুয়া ইউপি চেয়ারম্যান এম হারুনুর রশিদের অনুসারী হিসেবে এলাকায় পরিচিত। তাদের বিরুদ্ধে সন্ত্রাস সৃষ্টিসহ বিভিন্ন অভিযোগে বাঁশখালী থানায় একাধিক মামলা রয়েছে বলে স্থানীয়রা তথ্য দিয়েছেন।

চেয়ারম্যান হারুনুর রশিদ ধর্ষণ, চাঁদাবাজি, ভূমিদস্যুতাসহ বিভিন্ন অভিযোগে অন্তত ১২টি মামলার আসামি। ১২ বছরের কাজের মেয়েকে ধর্ষণের অভিযোগে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছিল নগরের পাঁচলাইশ থানায়।

এছাড়া চেয়ারম্যানের ভাই মো. আলমগীর অন্তত ৮টি মামলার আসামি। চেয়ারম্যানের পুরো পরিবারের বিরুদ্ধে সন্ত্রাস, সাগরে জেলেদের আটকে চাঁদা আদায়, জলদস্যুতাসহ নানা অপরাধ কর্মকাণ্ডে লিপ্ত থাকার অভিযোগ আছে।

চেয়ারম্যান হারুনের বাহিনীর অন্যতম সদস্য বহু মামলার আসামি সোলতান বাহাদুর প্রকাশ বাহাদুর ডাকাত, নুরুল আলম, মো. হোসাইন ও আবু তালেব র‌্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ বিভিন্ন সময় নিহত হয়েছে।

অন্যদিকে ঘটনার পরপর একুশে পত্রিকার প্রতিনিধি বেলাল উদ্দিনকে দ্রুত উদ্ধার করতে চট্টগ্রামের পুলিশ সুপার (এসপি) এস এম রশিদুল হককে ফোনে নির্দেশ দেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

এছাড়া বেলাল উদ্দিনকে উদ্ধারে তৎপরতা শুরু করে র‌্যাব-৭ চট্টগ্রামের সদস্যরাও।

### একুশে পত্রিকার বাঁশখালী প্রতিনিধিকে তুলে নিয়ে গেল চেয়ারম্যানের সন্ত্রাসীরা
### একুশে পত্রিকার বাঁশখালী প্রতিনিধিকে উদ্ধারে এসপিকে তথ্যমন্ত্রীর নির্দেশ
### একুশে পত্রিকার বাঁশখালী প্রতিনিধিকে উদ্ধারে র‌্যাবের তৎপরতা
### অবশেষে আহত অবস্থায় উদ্ধার একুশে পত্রিকার বাঁশখালী প্রতিনিধি