রবিবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ৫ আশ্বিন ১৪২৭

পশ্চিমা যোগসাজশ: হংকংয়ে মিডিয়া মুঘল গ্রেপ্তার

প্রকাশিতঃ সোমবার, আগস্ট ১০, ২০২০, ৬:১৫ অপরাহ্ণ


আন্তর্জাতিক ডেস্ক : হংকংয়ে চীনবিরোধি জনপ্রিয় ট্যাবলয়েড অ্যাপল ডেইলির মালিক জিমি লাইকে গ্রেপ্তার করেছে দেশটির পুলিশ। বিদেশি শক্তি ও পশ্চিমাদের সাথে যোগসাজশ থাকার অভিযোগে তাঁকে জাতীয় নিরাপত্তা আইনে সোমবার সকালে গ্রেপ্তার করা হয়।

জিমি লাইকে গ্রেপ্তারের পর তাঁর প্রতিষ্ঠানের অন্যান্য কর্মকর্তারা জানান, গত জুনে চীনের আরোপ করা বিতর্কিত জাতীয় নিরাপত্তা আইনের আওতায় তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তানর বিরুদ্ধে অভিযোগ গেল বছর হংকংয়ে যে গণতন্ত্রপন্থী বিক্ষোভ হয়েছিল তাতে তিনি সমর্থন দিয়েছিলেন। এমনকি তাকে সক্রিয়ভাবে এসব বিক্ষোভে অংশও নিতে দেখা গেছে। এফপি জানিয়েছে, জিমি লাইয়ের বিরুদ্ধে দুইটি অভিযোগ। বিদেশি শক্তির সঙ্গে হাত মেলানো এবং জালিয়াতি করা।

অ্যাপল ডেইলি জানিয়েছে, রবিবার ১০ জন পুলিশ কর্মকর্তা ৭২ বছর বয়সী জিমির বাড়িতে হানা দেয় এবং পরে তার প্রতিষ্ঠানের সদর দপ্তরে অভিযান শুরু করে। এসময় তারা জিমির অফিসের বিভিন্ন নথিপত্র বের করে তল্লাসি চালায়। লাই এর নেক্সট মিডিয়া গ্রুপের একজন সিনিয়র নির্বাহী মার্ক সাইমন টুইটারে জানান, বিদেশী শক্তির সাথে যোগসাজশের অভিযোগে মিডিয়া টাইকুন জিমি লাইকে গ্রেফতার করা হচ্ছে।

হংকং পুলিশ তাদের এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, জাতীয় নিরাপত্তা আইন লঙ্ঘনের অভিযোগে আরো সাত ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তবে তাদের নাম প্রকাশ করা হয়নি। তবে জাতীয় নিরাপত্তা আইনে এখনো পর্যন্ত যাঁদের গ্রেফতার করা হয়েছে, তার মধ্যে লাই হলেন সব চেয়ে হাই প্রোফাইল।

বিবিসি জানিয়েছে, জনপ্রিয় ট্যাবলয়েড অ্যাপল ডেইলির মালিক জিমি লাই হংকংয়ে গণতন্ত্রের পক্ষের একজন স্পষ্টভাষী ব্যক্তিত্ব এবং তিনি নিয়মিতভাবে চীনের কর্তৃত্ববাদী শাসনের সমালোচনা করে থাকেন। ৭১ বছর বয়সী জিমি লাইয়ের ব্রিটেনের নাগরিকত্বও রয়েছে। এর আগে গত ফেব্রুয়ারিতে তার বিরুদ্ধে অবৈধ সমাবেশ এবং ভয়-ভীতি প্রদর্শনের অভিযোগ এনে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। তবে পরবর্তীতে তাকে জামিন দেওয়া হয়।

নতুন আইনে পরিষ্কারভাবে বলা হয়েছে, সরকারের বিরুদ্ধে কোনোরকম উস্কানি দেওয়া যাবে না। তারা যে হংকং মিডিয়াকে শাসন করতে চায়, এ নিয়ে চীনও কোনো লুকোছাপা করেনি। আর তারা স্থানীয় ও বিদেশি এই দুই ধরনের মিডিয়াকেই শাসন করতে চায়। হংকং-এর রিপোর্টারদের মধ্যমেই মূল চীনের খবর এতদিন বাইরের দুনিয়ায় এসেছে। কিন্তু এখন সাংবাদিকদের আশঙ্কা, তাঁদের এই ধরনের রিপোর্টিং বিপদ ডেকে আনবে।