রবিবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ৫ আশ্বিন ১৪২৭

জাতীয় শুদ্ধাচার পুরস্কার পেলেন বাঁশখালীর আরাফাত

প্রকাশিতঃ সোমবার, আগস্ট ১০, ২০২০, ৭:৩০ অপরাহ্ণ


চট্টগ্রাম : ২০১৯-২০ অর্থবছরে জাতীয় শুদ্ধাচার কৌশল কর্ম-পরিকল্পনা মোতাবেক চট্টগ্রাম বিভাগীয় পর্যায়ে জাতীয় শুদ্ধাচার পুরস্কারের জন্য মনোনীত হয়েছেন ৩-১০ গ্রেডভূক্ত কর্মকর্তা খোন্দকার মো. ইখতিয়ার উদ্দীন আরাফাত। তিনি চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার কার্যালয়ে সিনিয়র সহকারী কমিশনার হিসাবে কর্মরত।

সর্বশেষ কর্মদক্ষতা, সঠিক পরিকল্পনা ও সততার জন্য তিনি এ পুরস্কারে মনোনীত হয়েছেন। বিভাগীয় নৈতিকতা কমিটির সদস্য সচিব ও অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (উন্নয়ন) মো. মিজানুর রহমান স্বাক্ষরিত পত্রে এ তথ্য জানানো হয়।

সোমবার সকাল ১১ টায় চট্টগ্রামের বিভাগীয় কমিশনার এবিএম আজাদ তাঁকে এ পুরস্কার প্রদান করেন।

সিনিয়র সহকারি সচিব আরাফাত ৩৩ তম বিসিএস প্রশাসন ক্যাডারের একজন চৌকস কর্মকর্তা। সম্প্রতি তিনি ইউএনও হিসাবে পদায়ন হয়েছেন।

এর আগে পেশাগত প্রশিক্ষণে সাফল্যের জন্য তিনি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে পুরস্কার গ্রহণ করেছেন।

চকরিয়া উপজেলায় এসি ল্যান্ড হিসেবে কর্মরত থেকে উপজেলা ভূমি সেবায় ব্যাপক পরিবর্তন আনেন আরাফাত। তাঁর দায়িত্বকালীন ২ বছরে চকরিয়া ভূমি অফিস-ডিজিটাল, সেবাবান্ধব ও নান্দনিক অফিস হিসাবে ভূমি মন্ত্রণালয়ে প্রসংসিত হয়েছে এবং তাঁর গৃহিত উদ্ভাবনী উদ্যোগসমূহ ভূমি মন্ত্রণালয়ের প্রকাশনা, বিভিন্ন জাতীয় ও স্হানীয় সংবাদপত্রে প্রকাশিত হয়।

তিনি বাঁশখালীর বাণীগ্রাম সাধনপুর উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি, চট্টগ্রাম কলেজ থেকে এইচএসসি এবং চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ইইই বিভাগ থেকে বি.এসসি ইঞ্জিনিয়ারিং এবং ইউআইটিএস থেকে কৃতিত্বের সাথে এমবিএ ডিগ্রি অর্জন করেন।

কর্মজীবনের শুরুতে একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে কিছুদিন শিক্ষকতা করে পরবর্তীতে বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশনের ইস্টার্ণ রিফাইনারি লিমিটেডে যোগদান করে ম্যানেজার হিসাবে কর্মরত থাকাবস্থায় সর্বশেষ ২০১৪ সালে সরকারি চাকরিতে যোগদান করেন।

ব্যক্তিগত জীবনে তিনি দুই পুত্র সন্তানের জনক। তাঁর স্ত্রী একজন প্রকৌশলী এবং ৩২তম বিসিএস (সড়ক ও জনপথ) এ যোগদান করে বর্তমানে সড়ক বিভাগে উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী হিসাবে কর্মরত।

খোন্দকার মো. ইখতিয়ার উদ্দীন আরাফাত বাণীগ্রাম নিবাসী সাধনপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ও মুক্তিযুদ্ধকালীন গ্রুপ কমান্ডার প্রয়াত খোন্দকার মো. ছমিউদ্দীনের দ্বিতীয় পুত্র।