শনিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২০, ৯ কার্তিক ১৪২৭

‘মধ্যবর্তী নির্বাচনের নামে মধ্যবর্তী টালবাহানার প্রয়োজন নেই’

প্রকাশিতঃ শনিবার, অক্টোবর ১৭, ২০২০, ৩:৪০ অপরাহ্ণ


ঢাকা : মধ্যবর্তী নির্বাচনের নামে মধ্যবর্তী টালবাহানার প্রয়োজন নেই বলে মন্তব‌্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

শনিবার (১৭ অক্টোবর) দুপুরে এক আলোচনা সভায় অংশ নিয়ে তিনি এ কথা বলেন।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে ঢাকা মাস ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেডের উদ্যোগে আয়োজিত আলোচনা সভায় নিজ বাসভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে যুক্ত হন ওবায়দুল কাদের।

সরকারের জনপ্রিয়তা যাচাইয়ে বিরোধী রাজনৈতিক মতের পক্ষ থেকে মধ্যবর্তী নির্বাচনের দাবিকে নাকচ করে দিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘একটি মহল মধ্যবর্তী নির্বাচনের কথা বলছে। সরকার পরিবর্তন চাইলে পরবর্তী নির্বাচন পর্যন্ত অপেক্ষা করুন। জনগণ চাইলে আমরা আবার আসবো, আর না চাইলে সরে দাঁড়াবো।’

সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘ষড়যন্ত্র করে নয়, দেশের উন্নয়নের মাধ্যমেই মানুষের মন জয় করতে চায় আওয়ামী লীগ। তাই মধ্যবর্তী নির্বাচনের নামে মধ্যবর্তী কোনো টালবাহানার প্রয়োজন নেই। প্রয়োজন নেই মধ্যবর্তী কোনো ইস্যু তৈরির। সময় এলেই নির্বাচন হবে, দেশের মানুষ তখন পরবর্তী সরকার কে হবে তা ঠিক করবে।’

একটি অপশক্তি মিথ্যাচারের মাধ্যমে সরকার ও জনপ্রশাসনে অস্থিরতা তৈরির অপপ্রয়াস চালাচ্ছে উল্লেখ করে আওয়ামী লীগের এই নেতা বলেন, ‘সরকারকে টার্গেট করতে গিয়ে দেশের ভাবমূর্তি নষ্ট করছে তারা। সরকারের অন্ধ সমালোচনা করতে গিয়ে বিদেশে অবস্থানরত প্রবাসীদের অবস্থানকে দুর্বল করে তুলছে। ’

‘যারা জনগণের কাছে যাওয়ার সাহস পায় না, ক্ষমতায় যেতে অন্ধকারের চোরাগলি খোঁজে, দেশের ইমেজ নষ্ট করে, তাদের সম্পর্কে জনগণ সতর্ক রয়েছে, জনগণ এসবে এখন আর বিশ্বাস করে না। ষড়যন্ত্রকারীদের সব অপচেষ্টাই ব্যর্থ হয়ে যাবে।’

ইউরোপের বিভিন্ন দেশে করোনা সংক্রমণের দ্বিতীয় পর্যায় শুরু হয়েছে জানিয়ে আসন্ন শীতে সম্ভাব্য ঝুঁকি রোধে সতর্ক থাকতে এবং স্বাস্থ্যবিধি কঠোরভাবে মেনে চলার আহ্বান জানান তিনি।

করোনা সংকট মোকাবিলায় সরকারের সঠিক সময়ে সঠিক সিদ্ধান্ত নেওয়ার দক্ষতা বিশ্বব্যাপী প্রশংসিত হয়েছে জানিয়ে সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘ঘুরে দাঁড়িয়েছে দেশের অর্থনীতি। বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ এখন প্রায় ৪০ বিলিয়ন ডলার। বাড়ছে রপ্তানি ও প্রবাসি আয়। বিশ্ব ক্ষুধাসূচকে ভারত-পাকিস্তানকে পেছনে ফেলে এগিয়েছে বাংলাদেশ। আর্থসামাজিক প্রায় সব সূচকে পাকিস্তানকে পেছনে ফেলে এগিয়ে যাচ্ছে অদম্য বাংলাদেশ।’