সোমবার, ২৫ জানুয়ারি ২০২১, ১২ মাঘ ১৪২৭

তেলাপোকাও পাখি আর মামুনুল হকও মানুষ : নিক্সন

প্রকাশিতঃ সোমবার, নভেম্বর ৩০, ২০২০, ২:৫২ অপরাহ্ণ


চট্টগ্রাম : বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্কর্য স্থাপনের বিরোধিতাকারীদের কঠোর হুঁশিয়ারি দিয়েছেন যুবলীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মজিবুর রহমান চৌধুরী নিক্সন।

আজ সোমবার দুপুরে চট্টগ্রাম নগরের পুরাতন রেলওয়ে স্টেশনে যুবলীগের চট্টগ্রাম মহানগর, উত্তর ও দক্ষিণ জেলা শাখা আয়োজিত গণসংবর্ধনা অনুষ্ঠানে তিনি একথা বলেন।

বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের নেতা এবং হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হক রাজধানীর ধোলাইরপাড়ে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নির্মাণে আপত্তি জানিয়েছেন। ভাস্কর্য নির্মাণ করা হলে তা বুড়িগঙ্গায় ফেলে দেওয়ার হুমকিও দিয়েছেন তিনি।

এ নিয়ে দেশজুড়ে আলোচনার মধ্যে চট্টগ্রামে এসে ফরিদপুর-৪ আসনের সংসদ সদস্য মজিবুর রহমান চৌধুরী নিক্সন বলেন, ‘মামুনুল হক কি পাগল? তিনি যে মন্তব্যগুলো করেছেন তা সজ্ঞানে করেছেন তো? তেলাপোকাও পাখি আর মামুনুল হকও মানুষ।’

নিক্সন বলেন, ‘যুবলীগ যদি মাঠে নামে তাহলে পালানোর পথ পাবেন না। যু্বলীগ মাঠে নামলে এক সেকেন্ডও দাঁড়াইতে পারবেন না। যদি সাহস থাকে তাহলে মাঠে আসুন, মাঠে আসল খেলা হবে। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু বা আমাদের নেত্রীকে উদ্দেশ্য করে কিছু বলার আগে আমাদের মোকাবেলা করতে হবে।’

এসময় উপস্থিত নেতাকর্মীদের স্লোগানে উত্তাল হয়ে পড়ে পুরাতন রেলওয়ে স্টেশন এলাকা।

তখন মজিবুর রহমান চৌধুরী নিক্সন বলেন, ‘আপনাদের স্লোগান, হাততালি দেয়া বন্ধ করুন। শো ডাউন বন্ধ করুন। জীবনে অনেক মিছিল-মিটিং করেছি। আমরা সবাই স্লোগান-মিছিল দিতে জানি। আজ আপনাদের মাঝে সংগঠনের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকের কিছু ম্যাসেজ নিয়ে এসেছি। সেগুলো বলার সুযোগ দিন।’

বারবার অনুরোধ করার পরও স্লোগান বন্ধ না হওয়ায় নিক্সন চৌধুরী বলেন, ‘স্লোগান বন্ধ না করলে আমি বক্তৃতা শুরু করবো না। আপনারা এসব বন্ধ করুন। আপনাদের শো ডাউনের কথা আমি সভাপতি-সাধারণ সম্পাদককে বলবো।’

এরপর স্লোগান বন্ধ হলেও বক্তব্যের মাঝখানে বারবার স্লোগান দেয়ায় বেশ কয়েকবার বক্তৃতা থামিয়ে স্লোগান বন্ধ করতে বলার অনুরোধ করেন নিক্সন চৌধুরী।

এর আগে সংবর্ধিত অতিথির বক্তব্য দিতে উঠেন যুবলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বদিউল আলম বদি; ৭ মিনিট বক্তৃতার মধ্যে ৩ মিনিটই স্লোগান বন্ধের অনুরোধ করেন তিনি।

সম্প্রতি ফরিদপুরের চরভদ্রাসন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে উপনির্বাচনকে কেন্দ্র করে জেলা প্রশাসক ও নির্বাচনী দায়িত্ব পালন করা কর্মকর্তাদের হুমকি-ধমকি দেওয়ার অভিযোগ ওঠে নিক্সনের বিরুদ্ধে।

এছাড়া বিভিন্ন সময়ে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য কাজী জাফর উল্যাহকে বিষোদগার করে বক্তব্য দিয়ে আলোচনায় আসেন নিক্সন চৌধুরী।