সোমবার, ৮ মার্চ ২০২১, ২৪ ফাল্গুন ১৪২৭

আপস হচ্ছে, ফেসবুকে খবর পড়তে পারবেন অস্ট্রেলীয়রা

প্রকাশিতঃ মঙ্গলবার, ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০২১, ৬:০৫ অপরাহ্ণ


আন্তর্জাতিক ডেস্ক : অস্ট্রেলিয়ায় প্রস্তাবিত আইনের বিরোধের জের ধরে গত বৃহস্পতিবার থেকে অস্ট্রেলিয়ানদের কাছে প্রযুক্তি জায়ান্ট ফেসবুক খবরের লিংক সরিয়ে নিয়েছে। অস্ট্রেলিয়া বলছে, আলোচনার পরে ফেসবুক প্রধান মার্ক জুকারবার্গ বলেছেন, এই নিষেধাজ্ঞার অবসান হবে। অন্যদিকে, আইনে সংশোধন করা হবে এমন ইঙ্গিতও দিয়েছে ফেসবুক। রয়টার্স ও বিবিসি অনলাইনের প্রতিবেদনে এসব তথ্য তুলে ধরা হয়েছে।

মঙ্গলবার অস্ট্রেলিয়ার রাজধানী ক্যানবেরায় সাংবাদিক সম্মেলনে অস্ট্রেলিয়ার ফেডারেল ট্রেজারার জোশ ফ্রিডেনবার্গ বলেন, ‘ফেসবুক অস্ট্রেলিয়াকে পুনরায় বন্ধু করেছে।’

এদিকে নিউজ লিংকের জন্য সংবাদপত্র প্রতিষ্ঠানকে অর্থ দেওয়ার বিষয়ে প্রণীত আইন নিয়ে অস্ট্রেলিয়া সরকার গত সপ্তাহে সিনেটে তোলেন। তবে আইনটি বিতর্কও তৈরি হয়েছে।

ফেসবুক কেন অস্ট্রেলিয়ার নিউজ কনটেন্ট ব্লক করে
গত বৃহস্পতিবার সকাল থেকে অস্ট্রেলিয়ানরা তাদের অ্যাকাউন্টে কোনও সংবাদ স্টোরি লিংকিং বা শেয়ার করতে না পারেননি। ফেসবুক যুক্তি দিয়েছিল যে প্রস্তাবিত আইনটির জবাবে অস্ট্রেলিয়ান সংবাদগুলি ব্লক করতে বাধ্য করা হয়েছিল। নিউজ কোডে অর্থ দেওয়ার আইনে ফেসবুক ও সংবাদ সংস্থার মধ্যে সংবাদের মূল্য প্রদানের বিষয়কে কেন্দ্র করে একটি আলোচনার প্রক্রিয়া স্থাপন করতে চেয়েছিল অস্ট্রেলিয়া।

তবে এ আইনটি নিয়ে ফেসবুক ও গুগল তীব্র বিরোধীতা করে। উভয়েই যুক্তি যুক্তি দিয়েছিল যে কোডটি ইন্টারনেট কীভাবে কাজ করে তা নিয়ে ভুল বুঝেছে অস্ট্রেলৈয়া। ফেসবুক আরও জানিয়েছে যে এটি খবরের বিষয়বস্তু থেকে তারা খুব কম বাণিজ্যিক লাভ পায়।

অস্ট্রেলিয়ার বক্তব্য
অস্ট্রেলিয়া সরকার বলেছে যে সংবাদ প্রকাশকদের এখন দুর্দিন। অনলাইনে জন্য ‘খেলার মাঠ সমতলকরণ’ করার একটি কোড দরকার। এদিকে আজ মঙ্গলবার ফেসবুক জানিয়েছে যে সরকারের সাথে সাম্প্রতিক আলোচনার মাধ্যমে এটি আশ্বাস পেয়েছে।

ফেসবুকের গ্লোবাল নিউজ অংশীদারিত্বের ভাইস প্রেসিডেন্ট ক্যাম্পবেল ব্রাউন বলেছেন, ‘সরকার স্পষ্ট করে জানিয়েছে যে আমরা ফেসবুকে সংবাদ প্রকাশিত হবে কী না তা সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষমতা রাখব। যাতে আমরা জোর করে আলোচনার শিকার না হই। আমরা একটি চুক্তিতে পৌঁছেছি যা ছোট এবং স্থানীয় প্রকাশকসহ আমাদের বেছে নেওয়া প্রকাশকদের আর্থিক সমর্থনের অনুমতি দেবে।’

ফেসবুকের ইতিমধ্যে নিজস্ব ‘শোকেস’ পণ্য রয়েছে যেমন ফেসবুক নিউজ ট্যাব। এর মাধ্যমে এটি মিডিয়া সংস্থাগুলিকে তার প্ল্যাটফর্মে তাদের নিউজ স্টোরিলো প্রদর্শন করার জন্য একটি ফি প্রদান করে। এ সুযো্গটি পাচ্ছে যুক্তরাজ্য ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র।

জানা গেছে গুগল অস্ট্রেলিয়া থেকে তার প্রাথমিক অনুসন্ধান ইঞ্জিনটি প্রত্যাহারের হুমকিও দিয়েছিল তবে সংস্থাটি সম্প্রতি নাইন এন্টারটেইনমেন্ট, সেভেন ওয়েস্ট মিডিয়া এবং রুপার্ট মারডোকের নিউজ কর্পোরেশন সহ স্থানীয় মিডিয়া সংস্থাগুলির সাথে চুক্তি করতে সম্মত হয়েছে। অস্ট্রেলিয়ার সংবাদ নিষিদ্ধ করার ফেসবুকের পদক্ষেপ গত সপ্তাহে একটি বড় ঝুঁকি ছিল। এতে বিশ্বব্যাপী ফেসবুক সমালোচনার শিকার হয়েছে।

তিন ডব্লিউর নির্মাতা স্যার টি বার্নার্স-লি বলেছেন, আমি উদ্বিগ্ন যে সংস্থাগুলিকে নির্দিষ্ট সামগ্রীর জন্য অর্থ প্রদান করতে বাধ্য করা ইন্টারনেটকে ‘অকার্যকর’ করতে পারে। এদিকে অস্ট্রেলিয়ার আইনটির উদ্দেশ্য ছিল সংগ্রামী সাংবাদিকতা রক্ষা করা

অস্ট্রেলিয়া ও ফেসবুকের আপস
অস্ট্রেলিয়া সরকার এবং ফেসবুক বিভিন্ন ধরনের শর্তে একটি আপসে পৌঁছেছে। অস্ট্রেলিয়া কর্তৃপক্ষ চারটি সংশোধনী প্রবর্তন করবে, এর একটি হল স্থানীয় সাংবাদিকতায় ‘উল্লেখযোগ্য অবদান’ প্রদর্শন করতে হবে ফেসবুককে। এটি পারলে সরকার এই কোডটি ফেসবুকে প্রয়োগ করবে না। সরকারি প্রয়োগকারী সালিশি শুরু করার আগে তাদের দুই মাসের মধ্যস্থতা হয়েছে।

অস্ট্রেলিয়ার বৃহত্তম স্থানীয় মালিকানাধীন সংস্থা নাইন এন্টারটেইনমেন্ট বলেছে যে তারা ‘সন্তুষ্ট’। সরকার একটি সমঝোতা পেয়েছে এবং বাণিজ্যিক ব্যবস্থাপনার বিষয়ে আলোচনা আবার শুরু করার অপেক্ষায় রয়েছে।