শুক্রবার, ১৬ এপ্রিল ২০২১, ৩ বৈশাখ ১৪২৮

‘চট্টগ্রামে এখন পানির জন্য আন্দোলন-মিছিল করতে হয় না’

প্রকাশিতঃ শনিবার, ফেব্রুয়ারি ২৭, ২০২১, ৭:৫৬ অপরাহ্ণ


চট্টগ্রাম : চট্টগ্রামের পতেঙ্গায় সুপেয় পানির সংকট নিরসনে স্থাপন করা “বুস্টিং পাম্প স্টেশন” উদ্বোধন করেছেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় (এলজিআরডি) মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম। এটি উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে মদুনাঘাট শেখ রাসেল পানি সরবরাহ প্রকল্পে উৎপাদিত দৈনিক ৯ কোটি লিটার পানি থেকে সাড়ে ৪ কোটি লিটার পানি পাবেন ইপিজেড-বন্দর-পতেঙ্গা এলাকার বাসিন্দারা।

শনিবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) বেলা সাড়ে ১২টায় নগরের রেডিসন ব্লু-তে আয়োজিত চট্টগ্রাম পানি সরবরাহ ও স্যানিটেশন প্রকল্পের অধীনে ‘পতেঙ্গা বুস্টার পাম্প স্টেশন’ উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন এলজিআরডি মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম।

এ সময় মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম বলেন, ‘নগরীর গুরুত্বপূর্ণ এলাকা বলে হালিশহর, সিডিএতে পানির জন্য হাহাকার ছিল। প্রধানমন্ত্রীর গতিশীল নেতৃত্বে চট্টগ্রাম শহরের মানুষ এখন পানি পাচ্ছে, পানির জন্য আন্দোলন-মিছিল করতে হয় না। দেশে পানির কোনো সংকট নেই।’

‘২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতা গ্রহণের আগে বন্দরনগরীতে জনগণ নিরাপদ সুপেয় পানির সংকটে ভুগেছে’,- উল্লেখ করে তাজুল ইসলাম বলেন, ‘প্রায় ৩৬ কোটি লিটার চাহিদার বিপরীতে চট্টগ্রাম ওয়াসা তখন ১৩-১৪ কোটি লিটার পানি সরবরাহ করত। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার চট্টগ্রামে নিরাপদ ও সুপেয় পানি সরবরাহের যে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল, তা বাস্তবায়ন করেছে। আজকে সারা চট্টগ্রাম পানি পাচ্ছে।’

মন্ত্রী বলেন, শুধু একজন মেয়র নির্বাচন করে তার ওপর সব বোঝা উঠিয়ে দিলে হবে না। সকলকে সহযোগিতা করতে হবে। আর তা করতে হলে মেয়রকে এগিয়ে আসতে হবে। আবার চট্টগ্রামে যারা বিভিন্ন দায়িত্ব পালন করেছেন তাদেরও সহযোগিতা করতে হবে। নিজেদের সম্পৃক্ততা বাড়ানো গেলে চট্টগ্রামের উন্নয়নে আমিও সহযোগিতা করতে পারবো।

মন্ত্রী আরও বলেন, সারা বাংলাদেশের উন্নয়ন হবে, কিন্তু চট্টগ্রামের উন্নয়ন হবে না তা প্রধানমন্ত্রী বিশ্বাস করেন না। চট্টগ্রামের উন্নয়নে সরকার সবসময় অগ্রাধিকার দিয়ে থাকে। কিন্তু এই অগ্রাধিকারের সুযোগ আপনাদের কাজে লাগাতে হবে। চট্টগ্রাম বাংলাদেশের অর্থনৈতিক গেটওয়ে। নদীর আশপাশে আবর্জনা পড়ে থাকছে, জায়গা ইজারা নিয়ে ইন্ডাস্ট্রি করে দখল করা হচ্ছে, যা কখনোই কাম্য নয়। এটি কোনো দস্যুর দেশ নয়।

চট্টগ্রাম ওয়াসার বোর্ড চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. জাহাঙ্গীর আলমের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ। অতিথি ছিলেন বোয়ালখালীর সংসদ সদস্য মোছলেম উদ্দিন আহমদ, চন্দনাইশের সংসদ সদস্য নজরুল ইসলাম, সাতকানিয়া-লোহাগাড়ার সংসদ সদস্য ড. আবু রেজা নদভী, চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র রেজাউল করিম চৌধুরী, মহানগর মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হাসিনা মহিউদ্দিন।

এদিকে শনিবার উদ্বোধন হওয়া পতেঙ্গা বুস্টার পাম্প স্টেশনটির মাধ্যমে নগরের দক্ষিণাংশে বসবাসকারী জনগোষ্ঠির কাছে পানি পৌঁছানো সম্ভব হবে। ফলে চট্টগ্রাম বন্দর-ইপিজেড এলাকায় অবস্থিত বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি স্থাপনার বিশাল জনগোষ্ঠির পানির চাহিদা মিটানো সম্ভব হবে। এই বুস্টার মেশিনের মাধ্যমে দৈনিক ৪ দশমিক ৫ কোটি লিটার পানি সরবরাহ করা সম্ভব হবে বলে ওয়াসা সূত্রে জানা গেছে।

এর আগে ২০১৮ সালের চট্টগ্রাম ওয়াসার মদুনাঘাট পানি সরবরাহ প্রকল্পের অধীনে কালুরঘাট থেকে পতেঙ্গা পর্যন্ত ৩০ কিলোমিটার পাইপ লাইন নির্মাণের কাজ শুরু হয়। নগরীর বিশুদ্ধ পানি সরবরাহে প্রায় ২ হাজার কোটি টাকার মেগা প্রকল্প, ওয়াসার ‘ওয়াটার সাপ্লাই ইমপ্রুভমেন্ট অ্যান্ড স্যানিটেশন’ প্রকল্পের আওতায় ‘ডব্লিও-৫’ নামের এ প্যাকেজটি স্থানীয় সরকার, বিশ্বব্যাংক এবং ওয়াসার নিজস্ব অর্থায়নে করা হচ্ছে।

নির্বিঘ্নে পানি সরবরাহের জন্য কালুরঘাট থেকে পতেঙ্গা পর্যন্ত ৩০ কিলোমিটার পাইপ লাইনের মধ্যে ১৫ কিলোমিটার ট্রান্সমিশন পাইপ লাইন এবং ১৫ কিলোমিটার ডিস্ট্রিবিউশন পাইপলাইন নির্মাণ করতে হয়েছে।