থ্যালাসেমিয়ায় আক্রান্ত চৈতী ও সুশান্ত বড়ুয়া বাঁচতে চায়


চট্টগ্রাম : কৃষক বাবার দুই আদুরে সন্তান চৈতী ও সুশান্ত বড়ুয়া। জন্মের পর থেকেই জটিল রোগে ভুগছেন তারা। এখনও ভর্তি আছেন নগরীর মা ও শিশু হাসপাতালে। দীর্ঘদিন ধরে দুই সন্তানের চিকিৎসা ভার বহন করে আর্থিকভাবে নিঃস্ব হয়ে যাওয়া বাবার কাঁধে উঠেছে সন্তানদ্বয়কে জটিল অস্ত্রোপচারের ব্যবস্থা করার।

কৃষিকাজ আর দিনমজুরি করে যেখানে পরিবারের জন্য দু’বেলা-দু’মুঠো আহার যোগাড় করতে হিমশিম খেতে হয় সেখানে সন্তানদের জন্য এ ব্যয়বহুল চিকিৎসা করানো একেবারে অসম্ভব হয়ে পড়েছে। তাই বাবা অমল বড়ুয়া সন্তানদের বাঁচানোর জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ দেশের বিত্তবানদের সাহায্য কামনা করেছেন।

চট্টগ্রামের মিরসরাই উপজেলার ইছাখালী ইউনিয়নের চরছর গ্রামের সন্তান চৈতী বড়ুয়া ও সুশান্ত বড়ুয়া। তারা ভাই-বোন। চৈতী বড়ুয়ার বয়স ৮ ও সুশান্ত বড়ুয়ার বয়স ৬। জন্মগতভাবেই ‘এইচবিইবি’ নামক থ্যালাসেমিয়া রোগে আক্রান্ত তারা। প্রতি মাসেই তাদের শরীরে চার ব্যাগ করে রক্তের প্রয়োজন হয়। যার খরচ গরিব বাবা অমল বড়ুয়ার পক্ষে বহন করা অসম্ভব হয়ে পড়েছে। বর্তমানে তারা চট্টগ্রাম নগরের মা ও শিশু হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছে।

আগামী এক মাসের মধ্যে তাদের শরীরে একটি জটিল অস্ত্রোপচার প্রয়োজন। এজন্য প্রয়োজন প্রায় পাঁচ লাখ টাকা। ওই টাকা জোগাড় করা তার অসহায় বাবার পক্ষে একেবারেই অসম্ভব। নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে তাদের শরীরে অস্ত্রোপচার করা না গেলে চৈতী ও সুশান্তকে বাঁচানো অনেকটা কঠিন হয়ে পড়বে।

তাই তার বাবা অনন্যোপায় হয়ে প্রধানমন্ত্রীসহ সমাজের হৃদয়বান ও বিত্তশালীদের কাছে সন্তানদের বাঁচাতে আর্থিক সহযোগিতা কামনা করেছেন। সবার সামান্য সামান্য আর্থিক সাহায্যে নতুন জীবন ফিরে পেতে পারে চৈতী ও সুশান্ত বড়ূয়া। একই সঙ্গে নিঃস্ব একটি পরিবার ফিরে পাবে দুটি নতুন জীবনও।’

চৈতী ও সুশান্ত বড়ুয়ার জন্য সাহায্য পাঠাতে (বিকাশ নাম্বার-০১৭৮৭-৮৬২৩৮৩, বাবার মোবাইল নাম্বার-০১৮৮২-৮১২৯৩১) এসব নাম্বারে যোগাযোগ করা যাবে।