শুক্রবার, ২২ অক্টোবর ২০২১, ৭ কার্তিক ১৪২৮

ছবিটি এখন কেবলই স্মৃতি

প্রকাশিতঃ বুধবার, অক্টোবর ১৩, ২০২১, ৭:২৩ অপরাহ্ণ


চট্টগ্রাম : চট্টগ্রামের হাটহাজারী উপজেলার ফতেয়াবাদ পূর্ব ছড়ারকুল এলাকায় বজ্রপাতে মোহাম্মদ মহসিন (৪০) নামে এক ব্যক্তি মারা গেছেন; মৃত্যুর আগে একমাত্র মেয়ের সঙ্গে তোলা মহসিনের একটি ছবি এখন স্বজনের কাছে স্মৃতি হয়ে গেছে।

আজ বুধবার দুপুর দেড়টার দিকে পূর্ব ছড়ারকুলের দায়েমুদ্দিন বশির উল্লাহ (রহ.) শাহ’র বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। মৃত মহসিন স্থানীয় ইউসুফ নামে নির্মাণকাজের একজন ঠিকাদারের ‘ফোরম্যান’ ছিলেন।

স্থানীয় সূত্র জানায়, মাজার সংলগ্ন পুকুরের পূর্বপাড়ে মহসিনের বসতঘর। তিনি স্ত্রী ও ১১ বছর বয়সী কন্যা সন্তান নিয়ে ওই ঘরে থাকতেন। আজ বুধবার দুপুর দেড়টার দিকে গুড়ি গুড়ি বৃষ্টির সঙ্গে প্রচুর বজ্রপাত হচ্ছিল। এসময় নিজের ঘরের অদূরে পুকুর পাড়ে একটি তালগাছের পাশে দাঁড়িয়ে ছিলেন মহসিন।

তখন বজ্রপাত হলে পুকুর পাড় থেকে পাশের ধানি জমিতে ছিটকে পড়েন মহসিন। বজ্রপাতে তালগাছের পাশে থাকা একটি কড়ই গাছের বড় একটি ডালও ভেঙে যায়। গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে স্থানীয় চৌধুরীহাট এলাকার একটি ক্লিনিকে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মহসিনকে মৃত ঘোষণা করেন।

প্রতিবেশী মো. জাকির হোসেন বাবুল একুশে পত্রিকাকে জানান, মহসিনের মা, স্ত্রী এবং স্থানীয় ছেলে-মেয়েদের কান্না শুনে ঘটনাস্থলে দৌঁড়ে যান তিনি এবং আরেক প্রতিবেশী মোহাম্মদ আহসান হাসান। ধানি জমি থেকে মহসিনকে তুলেন তারা। কিন্তু ততক্ষণে নিথর হয়ে যায় মহসিনের দেহ। বজ্রপাতে মহসিনের বুক লাল এবং কালচে বর্ণের হয়ে যায়।

এদিকে খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে যান স্থানীয় চিকনদণ্ডী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হাসানুজ্জামান বাচ্চু। তিনি একুশে পত্রিকাকে বলেন, ‘শুনেছি তালগাছ বজ্রপাত থেকে মানুষকে রক্ষা করে। কিন্তু বজ্রপাতের সময় মহসিন দাঁড়িয়ে ছিলেন সেই তালগাছের পাশে।’ মৃত মহসিন অত্যন্ত বিনয়ী, সদালাপী ছিলেন বলেও জানান চেয়ারম্যান।