বাংলাদেশকে আরও করোনার টিকা দেবে জাপান


ঢাকা : করোনাভাইরাস মোকাবিলায় আগামী নভেম্বরে বাংলাদেশকে আরও ভ‌্যাকসিন দেবে জাপান। বৃহস্পতিবার (১৪ অক্টোবর) জাতীয় প্রেসক্লাবে ডিপ্লোম্যাটিক করেসপন্ডেন্টস অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ (ডিকাব) আয়োজিত সংলাপে এ তথ্য জানান ঢাকায় নিযুক্ত জাপানের রাষ্ট্রদূত ইতো নাওকি।

তিনি বলেন, ‘করোনার সময়ে বাংলাদেশকে বিভিন্নভাবে সহায়তা করছে জাপান। জাপান বাংলাদেশকে ইতোমধ্যে ৩০ লাখ ডোজ টিকা অনুদান দিয়েছে। আগামী নভেম্বরে বাংলাদেশকে আরও টিকা দেবে জাপান। করোনা মোকাবিলায় দুই দেশ একযোগে কাজ করছে, আগামীতেও করবে।’

এর আগে বাংলাদেশকে কোভ্যাক্সের আওতায় ৩০ লাখ টিকা উপহার দেওয়ার ঘোষণা দেয় জাপান। এর মধ্যে দেশটি দিয়েছে ১৬ লাখ ৪৩ হাজার ৩০০ ডোজ টিকা। গত ২৪ জুলাই জাপান থেকে ২ লাখ ৪৫ হাজার ২০০ টিকার প্রথম চালান ঢাকায় আসে। ৩১ জুলাই ৭ লাখ ৮১ হাজার ৩২০ টিকার দ্বিতীয় চালান আসে। ৩ আগস্ট জাপান থেকে আসে ৬ লাখ ১৬ হাজার ৭৮০ ডোজ টিকা।

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন শুরু করতে মিয়ানমারের ওপর আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের চাপ অব্যাহত রাখার বিষয়ে গুরুত্ব আরোপ করে জাপানের রাষ্ট্রদূত বলেন, ‘আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়সহ বিভিন্ন দেশকে যার যার অবস্থান থেকে মিয়ানমারকে চাপ দেওয়া অব্যাহত রাখতে হবে। মিয়ানমারে সেনা সমর্থিত সরকার ক্ষমতা নেওয়ার পর রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনের বিষয়টি একটু কঠিন হয়ে গেছে। প্রত্যাবাসনের জন্য মিয়ানমারের রাখাইনে সহায়ক পরিবেশ জরুরি। সত্যি বলতে—শিগগির প্রত্যাবাসন করা খুব কঠিন হয়ে পড়েছে। তবে, প্রত্যাবাসন শুরু করতে মিয়ানমারকে চাপ দিতে হবে। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়সহ বিভিন্ন দেশকে যার যার অবস্থান থেকে মিয়ানমারকে চাপ দেওয়া অব্যাহত রাখতে হবে।’

প্রত্যাবাসনে জাপানের ভূমিকা নিয়ে ইতো নাওকি বলেন, ‘প্রত্যাবাসন শুরু করা খুব জরুরি। জাপান প্রত্যাবাসনে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিচ্ছে। জাপান সবদিক থেকে চেষ্টা করছে কীভাবে প্রত্যাবাসন শুরু করা যায়। জাপান অব্যাহতভাবে এটা তুলছে এবং চেষ্টা অব্যাহত রাখবে। তবে, আন্তর্জাতিকভাবে মিয়ানমারের ওপর চাপ প্রয়োগ করে যেতে হবে।’

রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে মিয়ানমারের সঙ্গে জাপান সরাসরি যোগাযোগ করছে, এ তথ‌্য জানিয়ে রাষ্ট্রদূত বলেন, ‘প্রত্যাবাসন বা রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে একেক দেশ একেকভাবে ভূমিকা রাখতে পারে। কেউ সরাসরি যোগাযোগ করতে পারে, আবার কেউ অন্যভাবেও অবদান রাখতে পারে। জাপান সরাসরি যোগাযোগ করছে। জাপান গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। সর্বোচ্চ পর্যায়ে যোগাযোগ করে যাচ্ছে।’

ভাসানচরে স্থানান্তরিত রোহিঙ্গাদের মানবিক কার্যক্রমে জাতিসংঘের শরণার্থীবিষয়ক সংস্থার (ইউএনএইচসিআর) যুক্ত হওয়া প্রসঙ্গে জাপানের রাষ্ট্রদূত বলেন, ‘ভাসানচরে রোহিঙ্গাদের স্থানান্তর সফল হবে। জাপান মানবিক কার্যক্রমে সহায়তা করবে। জাতিসংঘ ও ইউএনএইচসিআরের সঙ্গে কাজ করবে।’

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন—ডিকাব’র প্রেসিডেন্ট পান্থ রহমান ও সাধারণ সম্পাদক একেএম মঈনুদ্দিন।