জনগণকে সাম্প্রদায়িক ষড়যন্ত্র বিষয়ে সতর্ক থাকার আহ্বান হেফাজতের

ঢাকা : কুমিল্লায় কোরআন অবমাননাকারী সকল অপরাধীদের দ্রুত গ্রেপ্তার করে কঠোর শাস্তির ব্যবস্থা করার দাবি জানিয়েছে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ।

বৃহস্পতিবার (১৪ অক্টোবর)  রাজধানীর খিলগাঁও-এ অবস্থিত হেফাজত মহাসচিবের কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত খাস কমিটির বৈঠক থেকে এ দাবি জানান হেফাজত নেতারা।

হেফাজত নেতৃবৃন্দ বলেন, কুমিল্লার ঘটনার  প্রতি আমরা গভীরভাবে নজর রাখছি। এ দেশের ইসলামপ্রিয় তৌহিদী জনতা কোনোভাবেই পবিত্র কোরআন অবমাননা সহ্য করবে না, করতে পারে না। আমরা ইতিমধ্যে জানতে পারেছি সরকার কুমিল্লার নানুয়ার দিঘিতে অবস্থিত সেই পূজা মণ্ডপটি বন্ধ করে দিয়েছে এবং কোরআন অবমাননায় অভিযুক্ত কয়েকজন  অপরাধীকে গ্রেপ্তার করেছে।

নেতৃবৃন্দ আরো বলেন, আমরা সরকারের উদ্দেশ্যে বলতে চাই, দ্রুত কোরআন অবমাননাকারীদের গ্রেপ্তার করায় ও পূজামণ্ডপটি বন্ধ করে দেওয়ায় আপনাদের ধন্যবাদ জানাই। একই সাথে চাঁদপুরের ঘটনায় কারো উস্কানি ছিলো কিনা, কীভাবে ৩ জন মানুষ মারা গেলো এর সুষ্ঠু তদন্ত হতে হবে। এ ঘটনায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কোনো ক্রুটি ছিলো কিনা, তাও খতিয়ে দেখতে হবে।

দেশের সকল ইসলামপ্রিয় তৌহিদি জনতা, হেফাজতের সর্বস্তরের নেতা-কর্মি ও কওমী মাদরাসাসমূহের আলেম-উলামা ও শিক্ষার্থীদের প্রতি আমাদের বিশেষ আহবান থাকবে, কারও উস্কানিতে কোনোরকম সিদ্ধান্ত নেবেন না।

তৌহিদী জনতার আন্দোলনকে পুঁজি করে অতীতের মতো কেউ যেন স্বার্থ উদ্ধার করতে না পারে সে বিষয়েও সদা সর্তকতা অবলম্বন করতে হবে বলে বৈঠকে মত প্রকাশ করা হয়।

আল্লামা আতাউল্লাহ হাফেজ্জীর সভাপতিত্বে বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন মহাসচিব আল্লামা নুরুল ইসলাম, অধ্যক্ষ মিজানুর রহমান চৌধুরী, মাওলানা মুহিব্বুল হক গাছবাড়ি, মাওলানা আবদুল আওয়াল, মাওলানা মহিউদ্দিন রাব্বানী, মাওলানা আবদুল কাইয়ুম সুবহানী, মাওলানা জহুরুল ইসলাম।

আহালে সুন্নাত আল জাম’আত ও বাংলাদেশ তরিকত ফেডারেশন (বিটিএফ) পৃথক বিবৃতিতে কুমিল্লায় পুজামণ্ডপে কোরআন অবমাননা করার জন্য তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন এবং দোষী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে দ্রুত বিচারের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য আহ্বান জানিয়েছেন।