বৃহস্পতিবার, ২৭ জানুয়ারি ২০২২, ১৪ মাঘ ১৪২৮

‘আমি এখন রাজার মতো ঘুমাই, সম্রাটের মতো উঠি’

প্রকাশিতঃ বুধবার, নভেম্বর ২৪, ২০২১, ১২:৫৪ অপরাহ্ণ


ঢাকা : মো. সিরাজুল হক খান। ২০১০ সালের মে থেকে ২০১৩ সালের ১৬ এপ্রিল পর্যন্ত চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার ছিলেন। পরে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয় এবং স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের সচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন শেষে ২০১৮ সালে অবসরে যান ১৯৮৪ ব্যাচের প্রশাসন ক্যাডারের এ কর্মকর্তা।

এখন কীভাবে সময় কাটান— একুশে পত্রিকা সম্পাদক আজাদ তালুকদারের উক্ত প্রশ্নের উত্তর দেন মো. সিরাজুল হক খান। বলেন, ‘এখন আমি রাজার মতো ঘুমাই, আর সম্রাটের মতো ঘুম থেকে উঠি। সকাল ১১টার আগে কারও ফোন আমি রিসিভ করি না। কারণ আমার অনেক ঘুম পেন্ডিং। ৩৬ বছর চাকরিজীবনে ঘুমাতে পারিনি। দুই ঘণ্টা ঘুমিয়ে আবার উঠে যেতাম, এভাবে সময় দিয়েছি ৩৬ বছর।’

‘কাজ শেষে আমি যখন ঘুমাতে যেতাম, তখন হয়তো সারা দেশে কিছু মানুষ জেগে থাকতো, তাদের মধ্যে আমি একজন। যে কারণে আমার অনেক ঘুম পেন্ডিং আছে। তাই রাজার মতো ঘুমাই, সম্রাটের মতো উঠি। খেলা দেখি। আমি ভব সংসার ছেড়ে দিয়েছি।’

মঙ্গলবার (২৩ নভেম্বর) সন্ধ্যায় ঢাকার পাঠক সমাবেশ কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত এক আড্ডায় এসব কথা বলেন অবসরপ্রাপ্ত সচিব মো. সিরাজুল হক খান। এ আড্ডায় চট্টগ্রামে একাধারে জেলা প্রশাসক, বিভাগীয় কমিশনার ও পরবর্তীকালে সচিব হওয়া আমলাতন্ত্রের দুই সুপুরুষ –কথাসাহিত্যিক হাসনাত আবদুল হাই ও হোসেন আবদুল মান্নান (মো. আবদুল মান্নান) উপস্থিত ছিলেন।

এছাড়া পাঠক সমাবেশ কেন্দ্রের কর্ণধার শহিদুল ইসলাম বিজু, চট্টগ্রাম সিটির প্রাক্তন কাউন্সিলর অ্যাডভোকেট রেহানা বেগম রানু ও অবসরপ্রাপ্ত সচিব মো. সিরাজুল হক খানের স্ত্রী আড্ডায় অংশ নেন।

আলস্য উপভোগ করতে হয় মন্তব্য করে অবসরপ্রাপ্ত সচিব মো. সিরাজুল হক খান বলেন, ‘আলস্য উপভোগ করতে পারলে সৃষ্টি করতে পারবেন। সৃষ্টির মধ্য থেকে আলস্য উদযাপন করে নিতে হবে। আপনি যদি রিল্যাক্স না নেন, নিজেকে ছেড়ে না দেন একদম পুরোপুরি, অনবরত ধেয়ে চললে দেখবেন আপনি ভেঙে পড়ছেন।’

‘যারা ভালো খেলোয়াড় তারা দেখবেন খেলার ফাঁকে বিশ্রাম নেয়। ম্যারাডোনা খুব হোঁচট খেয়েছে, কিন্তু হোঁচট সামাল দেওয়ার ক্ষমতা তার ছিল, পড়ে যাওয়ার যে আর্ট, তা তাঁর মধ্যে আমরা দেখেছি।’

পাঠক সমাবেশে সপ্তাহে দুই-একদিন আসেন আর টিভিতে খেলা দেখে অবসরজীবন কাটাচ্ছেন বলে জানান মো. সিরাজুল হক খান।

১৯৫৯ সালের ডিসেম্বরে গোপালগঞ্জে জন্ম নেওয়া সিরাজুল হক খান স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম-সচিব এবং চাপাইনবাবগঞ্জের জেলা প্রশাসকের দায়িত্বও পালন করেন।

২০১৫ সালের ৮ জুলাই প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মো. সিরাজুল হক খানকে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব করে সরকার।

এরপর ২০১৭ সালের ২৮ মার্চ জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের আদেশে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. সিরাজুল হক খানকে স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের সচিবের দায়িত্ব দেওয়া হয়। স্বাস্থ্যসচিবের পদে থাকাকালীন ২০১৮ সালের ৩০ নভেম্বর অবসরে যান সৎ, দক্ষ ও যোগ্য এ কর্মকর্তা।