বুধবার, ১৯ জানুয়ারি ২০২২, ৬ মাঘ ১৪২৮

জামাই নয়, নাতনিই খুন করেছেন নানাকে

প্রকাশিতঃ রবিবার, ডিসেম্বর ৫, ২০২১, ৯:৪১ অপরাহ্ণ


চুয়াডাঙ্গা : নাতনি জামাই জাহিদ নয়; নাতনি কামনা খাতুন নিজেই হত্যা করেছেন নানা সামশুল শেখকে। রাশেদ নামের একজনের সাথে পরকিয়ার বিষয়ে নানা জেনে যাওয়ায় তাকে হত্যা করা হয়।

আজ রোববার চুয়াডাঙ্গার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. সাইদুল ইসলামের আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন কামনা খাতুন।

চুয়াডাঙ্গা সদর থানার ওসি মোহাম্মদ মহসীন বলেন, ‘সাবেক স্বামী হাসানের সাথে ডিভোর্সের আগেই কামনা সম্পর্কে জড়ান রাশেদের সাথে। সেই ছেলের সাথে সম্পর্কের কথা জেনে যান নানা, বকাঝকাও করেন। পরে রাশেদের বুদ্ধিতেই ঘুমন্ত নানার ঘাড়ে কিটনাশক ভর্তি ইনজেকশন পুশ করেন কামনা।’

‘নানা উঠেই রাশেদকে দেখেন। কিন্তু হাসানের চেহারার সাথে মিল থাকায় অন্ধকারে তাকে হাসানই মনে করেন। তাই হাসানের নামই বলতে থাকেন। পরকিয়া ভালবাসাকে বাঁচাতে নিজ হাতেই নানাকে খুন করেন কামনা।’ বলেন ওসি মহসীন।

এর আগে গত ২৯ নভেম্বর নিজ বাসায় সামশুল শেখের ঘাড়ে কিটনাশকের ওষুধ দিয়ে ইনজেকশন পুশ করা হয়। তাকে গুরুতর আহতাবস্থায় উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হলে গত বুধবার সকালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। পরে তার সন্তান রফিকুল ইসলাম মামলা করলে সন্ধ্যায় জাহিদকে নিজ বাসা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়।