বুধবার, ২৫ মে ২০২২, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯

মুক্তিযোদ্ধাকে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা, মহেশখালীর মেয়র কারাগারে

প্রকাশিতঃ Wednesday, January 26, 2022, 4:29 pm


কক্সবাজার প্রতিনিধি : বীর মুক্তিযোদ্ধা আমজাদ হোসেনকে (৭০) প্রকাশ্যে কুপিয়ে হত্যাচেষ্টা মামলায় তালিকাভুক্ত রাজাকারের ছেলে এবং কক্সবাজারের মহেশখালী পৌর মেয়র মকছুদ মিয়াকে কারাগারে পাঠিয়েছে আদালত।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কক্সবাজার আদালতের পুলিশ পরিদর্শক চন্দন কুমার চক্রবর্তী।

তিনি জানান, বুধবার দুপুরে কক্সবাজার চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট হাজির হয়ে জামিনের জন্য আবেদন করেন মেয়র মকছুদ মিয়া। দুই পক্ষের শুনানি শেষে বিচারক আলমগীর মোহাম্মদ ফারুকীর আদালত তার জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে কারাগারে প্রেরণের আদেশ দেন।

বাদী পক্ষের আইনজীবী মোহাম্মদ মোস্তাফা বলেন, মেয়র মকছুদ মিয়া প্রথমে বীর মুক্তিযোদ্ধা আমজাদ হোসেনের চিংড়ি ঘের ডাকাতি ও দখলের চেষ্টা করেন। এ ঘটনার পর পুলিশ মামলা না নেয়ায় বাধ্য হয়ে কোর্টে মামলা করে ভুক্তভোগী আমজাদ হোসেছেন। আদালত মামলটি গ্রহণ করে নথিভুক্ত করার জন্য থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে নির্দেশ দেন।

এর জেরে গত ২৪ নভেম্বর রাতে মহেশখালী পৌরসভার ৭ নম্বর ওয়ার্ডের আলিশান রোডের মোড়ে এলাকায় মেয়র মকছুদ মিয়া নিজেই কিরিচ হাতে বীর মুক্তিযোদ্ধা আমজাদ হোসেনকে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা করে। এ ঘটনায় মামলা হলেও উচ্চ আদালত থেকে ৬ সপ্তাহের জন্য অন্তর্বর্তীকালীন জামিন নেয় মেয়র মকছুদ।

আদালতের নির্দেশে আজ বুধবার নিম্ন আদালতে আত্মসমর্পণ করেন তিনি। আদালতে তার জামিন আবেদন খারিজ করে দিয়ে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

আইনজীবী মোহাম্মদ মোস্তাফা আরও বলেন, বাংলাদেশ সৃষ্টির পেছনে বীর মুক্তিযোদ্ধা আমজাদ হোসেনের অবদান রয়েছে। অপরদিকে মেয়র মকছুদ একজন তালিকাভুক্ত রাকারের ছেলে। তার পেছনে শুধু অন্ধকার। বিষয়টি আদালতে তুলে ধরা হয়েছে।

এদিকে বুধবার দুপুর আড়াইটার দিকে আদালতের হাজতখানা থেকে বের করে মেয়র মকছুদ মিয়াকে ভিআইপি প্রটোকল ও বিলাসবহুল মাইক্রোবাসে করে কারাগারে নিয়ে যেতে দেখা গেছে। এসময় সাংবাদিকরা ছবি তুলতে গেলে পুলিশের সামনে মকছুদ মিয়ার ক্যাডার বাহিনী সাংবাদিকদের বাধা প্রদান করে।

এ বিষয়ে কক্সবাজার আদালতের পুলিশ পরিদর্শক চন্দন কুমার চক্রবর্তী বলেন, ক্যাডার বাহিনী কর্তৃক সাংবাদিকদের বাধা প্রদানের বিষয়টি আমি জানি না। ভিআইপি প্রটোকলের বিষয়ে তিনি বলেন, আদালতের হাজতখানায় মকছুদ মিয়ার কর্মী সমর্থকরা ভিড় করার কারণে তাকে পুলিশ পাহারায় দ্রুত কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে।