শুক্রবার, ১২ আগস্ট ২০২২, ২৮ শ্রাবণ ১৪২৯

মূল্যবৃদ্ধির পরও জ্বালানি তেলের দাম অনেক দেশের তুলনায় কম : তথ্যমন্ত্রী

প্রকাশিতঃ ৬ অগাস্ট ২০২২ | ৫:৫৯ অপরাহ্ন


ঢাকা : মূল্যবৃদ্ধির পরও এদেশের জ্বালানি তেলের দাম অনেক দেশের তুলনায় কম বলে মন্তব্য করেছেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

সংযুক্ত আরব আমিরাত, সিঙ্গাপুর, ভারত, ইন্দোনেশিয়া, নেপালসহ বেশ কয়েকটি দেশে বাংলাদেশি টাকায় জ্বালানি তেলের মূল্য তালিকা তুলে ধরে তিনি বলেন, ‘মূল্যবৃদ্ধির পর এদেশে জ্বালানি তেলের দাম যেই পর্যায়ে গেছে, আশেপাশের দেশগুলোতে সেই পরিমাণ মূল্যবৃদ্ধি অনেক আগেই করেছে। মূল্য সমন্বয় করার পর এদেশের জ্বালানি তেলের দাম আশেপাশের দেশগুলোর পর্যায়ে গেছে মাত্র। কিন্তু তেলের দাম অনেক দেশের তুলনায় কম। আরব আমিরাত, চীন, নেপাল, ইন্দোনেশিয়া, সিঙ্গাপুর, হংকংসহ অনেক দেশের চেয়ে তেলের দাম এদেশে কম এবং ভারতের সমান। অর্থাৎ মূল্যবৃদ্ধির পরও অনেক দেশের তুলনায় কম।’

শনিবার সকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্র (টিএসসি) মিলনায়তনে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জ্যেষ্ঠ পুত্র শেখ কামালের ৭৩তম জন্মদিন উপলক্ষে ‘স্পর্ধিত তারুণ্যের প্রতিচ্ছবি শেখ কামাল’ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ’ এর আয়োজন করে।

ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘২০২১-২২ অর্থবছরে সরকার জ্বালানি ও বিদ্যুৎ খাতে ছয় বিলিয়ন মার্কিন ডলার বা ৫৩ হাজার কোটি টাকা ভর্তুকি দিয়েছিল। আশেপাশের দেশগুলো এ ধরনের ভর্তুকি দেয়নি। সেসব দেশে জ্বালানি তেলের মূল্য অনেক আগেই বাড়ানো হয়েছে। এদেশের চেয়ে ওই দেশগুলোতে জ্বালানি তেলের মূল্য অনেক বেশি। ভারতে ডিজেলের মূল্য বাংলাদেশি টাকায় ১১৪ টাকা এবং অকটেন ১৩৫ টাকা অনেক আগে থেকেই। আমাদের দেশে দাম কম হওয়ার কারণে সীমান্ত দিয়ে প্রচুর জ্বালানি তেল পাচার হয়ে যাচ্ছিল।’

তিনি বলেন, ‘দেশের পক্ষে বর্তমানে এভাবে ভর্তুকি দেওয়া সম্ভব নয়। এতে সাধারণ মানুষের কিছুটা অসুবিধা হতে পারে। কেননা বিশ্ববাজারে তেলের মূল্য অস্বাভাবিকভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। এখন হয়তো অনেক বিশেষজ্ঞ রাত ১২টায় টেলিভিশন গরম করবেন। এদেশে তো নানা ধরনের বিশেষজ্ঞ রয়েছে। তারা সবজান্তা বিশেষজ্ঞ। কেউ ঢাবিতে আইন পড়ে এবং পড়িয়ে অর্থনীতির বিশেষজ্ঞ, আবার কেউ অর্থনীতি পড়ে তেল-গ্যাস বিশেষজ্ঞ। অর্থাৎ সব বিষয়ে বিশেষজ্ঞ। তারা টেলিভিশনে নানা ধরনের কথা বলবেন।’

তেলের দাম বাড়ায় পরিবহন খাতের কী ধরনের প্রভাব পড়তে পারে- এ বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘যদি একটি বাসে ৫০ জন যাত্রী ধারণ ক্ষমতা থাকে এবং এর মধ্যে যদি ৭০ ভাগ আসন পূর্ণ থাকে, তাহলে প্রতি কিলোমিটারে ভাড়া বাড়বে মাত্র ২৯ পয়সা। বর্তমানে প্রতি কিলোমিটারে এক টাকা ৮০ পয়সা করে ভাড়া নেওয়া হয়। সেটি বেড়ে এখন দুই টাকা নয় পয়সা হবে। সরকার পরিবহন সেক্টরসহ সবার সঙ্গে বসবে এবং মূল্যবৃদ্ধির অবৈধ সুযোগ যাতে কেউ নিতে না পারে, সেদিকে লক্ষ্য রাখবে।’

হাছান মাহমুদ বলেন, ‘আজ বিএনপি নানা ধরনের বক্তব্য দিচ্ছে। কয়েকদিন ধরে তারা বলছেন যে, বাংলাদেশ শ্রীলঙ্কা হবে। শ্রীলঙ্কা এবং বাংলাদেশের মধ্যে অনেক পার্থক্য রয়েছে। কিন্তু বাংলাদেশ শ্রীলঙ্কাকে ঋণ দিয়েছে আর শ্রীলঙ্কা সারা পৃথিবীর কাছ থেকে ঋণ নিয়েছে। এটাই ওই দেশের সঙ্গে আমাদের প্রধান পার্থক্য। এছাড়া বাংলাদেশ দক্ষিণ সুদানকেও ঋণ দিয়েছে। এদেশ এখন যেমন ঋণ নেয়, তেমনি ঋণ দেয়ও। অন্যদিকে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এদেশের অর্থনীতিকে একটি শক্ত ভিত্তির ওপর প্রতিষ্ঠিত করেছেন। বিধায় অনেক বড় বড় দেশ খেলাপি হলেও ঋণ পরিশোধে বাংলাদেশ এক দিনের জন্যেও খেলাপি হয়নি। কারণ, এদেশের অর্থনীতির ভিত অনেক গভীরে গ্রথিত।’

ঢাবি ছাত্রলীগের সভাপতি সনজিত চন্দ্র দাসের সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ঢাবি উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ সামাদ, যুবলীগের চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস্ পরশ, ছাত্রলীগের সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় এবং সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য।