বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০২২, ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৯

স্বাভাবিক হচ্ছে বিদ্যুৎ, বিপর্যয়ের কারণ অনুসন্ধানে কমিটি

প্রকাশিতঃ ৪ অক্টোবর ২০২২ | ১০:০০ অপরাহ্ন


ঢাকা : জাতীয় গ্রিডে বিপর্যয়ের কারণে রাজধানী ঢাকা, বন্দরনগরী চট্টগ্রামসহ দেশের প্রায় অর্ধেক এলাকায় বিদ্যুৎ ছিল না পাঁচ থেকে আট ঘণ্টা। বেশির ভাগ এলাকায় বিদ্যুৎ এলেও এখনও কোনো কোনো এলাকা রয়েছে অন্ধকারে। তবে বিদ্যুৎ বিভাগ জানিয়েছে, মধ্যরাতের মধ্যেই দেশে স্বাভাবিক হয়ে যাবে বিদ্যুৎ সরবরাহ।

এদিকে কেন হঠাৎ করে বিদ্যুতের এই বিপর্যয় সেটার কারণ সম্পর্কে এখনও সুস্পষ্টভাবে কিছু জানা যায়নি। এ ব্যাপারে একটি তদন্ত কমিটি করা হয়েছে। আগামী শুক্রবারের মধ্যে এই কমিটি প্রতিবেদন দিলে জানা যাবে কারণ। এছাড়া কারণ অনুসন্ধানে বিদ্যুৎ বিভাগের বাইরেও তদন্ত কমিটি করার কথা জানিয়েছে বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ মন্ত্রণালয়।

মঙ্গলবার (৪ অক্টোবর) রাত ৯টায় বিদ্যুৎ জ্বালানি ও খনিজসম্পদ মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, ঢাকার বিদ্যুৎ পরিস্থিতি স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসছে। সর্বশেষ বিদ্যুৎ রিস্টোর হয়েছে রাজধানীর মিরপুর, মগবাজার, মাদারটেক, রামপুরা, গুলশান, উলন, বসুন্ধরা, ধানমন্ডি, আফতাবনগর, বনশ্রী, ধানমন্ডি (আংশিক), আদাবর, শেরে বাংলা নগর, তেজগাঁও, মিন্টুরোড, মতিঝিল, শ্যামপুর, পাগলা, পোস্তগোলা, সিদ্ধিরগঞ্জসহ বেশকিছু এলাকায়।

বিদ্যুৎ বিভাগের সকল দফতর, সংস্থা ও কোম্পানির কর্মকর্তাবৃন্দ, ইঞ্জিনিয়ার ও টেকনিশিয়ানরা অক্লান্ত শ্রম দিচ্ছেন, দ্রুতই বিদ্যুৎ সরবরাহ সম্পূর্ণ স্বাভাবিক হবে বলে জানায় মন্ত্রণালয়।

বিদ্যুৎ জ্বালানি ও খনিজসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ তার ফেসবুক পেজে বলেছেন, ‘পাওয়ার গ্রিডের ইঞ্জিনিয়ার ও টেকনিশিয়ানরা অক্লান্ত শ্রম দিচ্ছেন। দ্রুতই বিদ্যুৎ সরবরাহ সম্পূর্ণ স্বাভাবিক হবে। ধৈর্য ধারণের জন্য সবাইকে ধন্যবাদ।’

প্রতিমন্ত্রী জানান, রাজধানীর মিরপুর, মগবাজার, মাদারটেক, রামপুরা, গুলশান, উলন, বসুন্ধরা, ধানমন্ডি, আফতাবনগর, বনশ্রী, ধানমন্ডি (আংশিক), আদাবর, শেরেবাংলা নগর, তেজগাঁও, মিন্টু রোড, মতিঝিল, শ্যামপুর, পাগলা, পোস্তগোলাসহ বেশ কিছু এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ শুরু হয়েছে।

ডিপিডিসির ব্যবস্থাপনা পরিচালক বিকাশ দেওয়ান গণমাধ্যমকে বলেন, ‘এখন পর্যন্ত ডিপিডিসির অধিকাংশ এলাকায় বিদ্যুৎ চলে এসেছে। তবে সব এলাকায় পুরোপুরি দিতে পারিনি এখনও। কোথাও কোথাও আংশিক বিদ্যুৎ দিতে পেরেছি।’