আবিদ হত্যা মামলার রায়ের নিন্দা জানিয়ে মহানগর বিএনপির বিবৃতি

চট্টগ্রামঃ চটগ্রাম কলেজে ছাত্রদল-ছাত্রলীগ সংঘর্ষে নিহত আবিদ হত্যা মামলায় রায়ে ছাত্রদল নেতাদের সাজা প্রত্যাখান করে নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে মহানগর বিএনপি। গণমাধ্যমে পাঠানো এক যৌথ বিবৃতিতে মহানগর বিএনপির সভাপতি ডা. শাহাদাত হোসাইন ও সাধারণ সম্পাদক আবুল হাশেম বক্কর এই নিন্দা জানান।

বিবৃতিতে নেতারা বলেন, ছাত্রদলকে মাঠ পর্যয়ের নেতৃত্ব শূন্য করতে এক গভীর ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবেই এই রায় দেয়া হয়েছে। বিশ্বজিত হত্যাকান্ড,সেভেন মার্ডার,সাগর রুনি হত্যা, ডেসটিনি,হলমার্ক শেয়ার বাজার,সোনালী ব্যাংক কেলেঙ্কারীর মত ঘটনা দিবালোকের মত পরিষ্কার হওয়ার পরও সরকারের ইশারায় তারা পার পেয়ে যায়। আর মিথ্যা ষড়যন্ত্রমূলক রাজনৈতিক উদ্দেশ্য প্রনোদিত মামলায় আদালতে ছাত্রদল নেতাদের সাজা দেওয়ার মধ্য দিয়ে প্রমাণিত হয়েছে এই দেশে ন্যায়ের শাসন বলতে কিছু নেই।

এদিকে এই রায়ের প্রতিবাদে আগামীকাল চট্টগ্রাম মাহানগর ছাত্রদল বিক্ষোভ কর্মসূচী ঘোষণা করেছে। রায় ঘোষণার পর নসিমন ভবনস্থ দলীয় কার্যালয়ে এক সংক্ষিপ্ত সমাবেশে মহানগর ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক বেলায়েত হোসেন বুলু এই কর্মসূচী ঘোষণা করেন। এ সময় ছাত্রদলের বিভিন্ন পর্যয়ের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

চট্টগ্রাম মহানগর দায়রা জজ আদালতের বিচারক শাহেনুর রহমান এই মামলার রায়ে আসামী চট্টগ্রাম কলেজ শাখা ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি আবু বকর,সাধারণ সম্পাদক মো. রোকন উদ্দিন,মেজবাহ,রায়হান,মো. ইউনুস,ফেরদাউস হোসেন,নেজাম উদ্দিন,সাইফুদ্দীন, শহীদুল ইসলাম,সরওয়ার আলম,সাইদুল ইসলাম,ফখরুল,মজিবর রহমান,শামীম,নোমান, মাসুদুল ইসলাম ছাত্রদল নেতাদের ১০ বছরের সশ্রম কারাদন্ড ও ৩০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও ছয়মাসের কারাদ- প্রদান করেন।

উল্লেখ্য,২০১৪ সালের ৩ জানুয়ারি চট্টগ্রাম কলেজে ছাত্রদলের সাথে ছাত্রলীগের সংঘর্ষে আবিদ নিহত হয়। এই ঘটনায় পুলিশ বাদি হয়ে ২৮ জনের নাম উল্লেখ করে ৫ জানুয়ারি মামলা করে। এই মামলায় ১ নম্বর আসামী ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সহ-সম্পাদক নুরুল আলম নুরু ক্রসফয়ারে নিহত হয়।