২৩ মে ২০১৯, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬, বুধবার

৭ দিনের মধ্যে কর্ণফুলীর অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের দাবি

প্রকাশিতঃ শনিবার, মার্চ ৩০, ২০১৯, ৫:৪০ অপরাহ্ণ


চট্টগ্রাম: হাইকোর্টের নির্দেশনা অনুযায়ী আগামী সাতদিনের মধ্যে কর্ণফুলী তীরের ২ হাজার ১৮১টি অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করার দাবি এসেছে একটি মানববন্ধন থেকে। অন্যথায় কর্ণফুলীর সব ঘাট অচল করে দেওয়ার হুঁশিয়ারি দেয়া হয়েছে।

শনিবার সকাল ১১টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত কর্ণফুলী তীরের সদরঘাটে চট্টগ্রাম নদী ও খাল রক্ষা আন্দোলনের উদ্যোগে আয়োজিত উক্ত কর্মসূচিতে সাম্পান মাঝিদের বিভিন্ন সংগঠন অংশ নেয়।

সমাবেশে বক্তারা বলেন, গত ৪ ফেব্রুয়ারি থেকে ৯ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত মাত্র ৬ দিন উচ্ছেদ অভিযান শেষে কী কারণে জেলা প্রশাসন নীরব হয়ে গেল তা মানুষ জানতে চায়। জনগণকে অন্ধকারে রেখে অতীতে কোন ষড়যন্ত্র সফল হয়নি, এখনো তা হতে দেওয়া যাবে না। নদী রক্ষায় এতো নাটকীয়তা কিছুতেই মেনে নেওয়া যায় না।

চট্টগ্রাম নদী ও খাল রক্ষা আন্দোলনের উদ্যোগে আয়োজিত মানববন্ধন ও বৈঠা বর্জন সমাবেশে বাংলাদেশ পরিবেশ ফোরাম, কর্ণফুলী নদী সাম্পান মাঝি কল্যাণ সমিতি ফেডারেশন, ইছানগর সদরঘাট সাম্পান মালিক কল্যাণ সমিতি, সদরঘাট সাম্পান মালিক সমিতি, চরপাথরঘাটা ব্রিজঘাট সাম্পান চালক কল্যাণ সমিতি, ইছানগর বড় সাম্পান মালিক কল্যাণ সমিতি, কর্ণফুলী নদী ফিশিং জাহাজ যাত্রী পারাপার কল্যাণ সমিতি, সদরঘাট ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতি ও সদরঘাট লেবার কল্যাণ সমিতি নেতৃবৃন্দ অংশগ্রহণ নেন।

মানববন্ধন পূর্ব সমাবেশে বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি নাজিমুদ্দিন শ্যামল, কর্ণফুলী গবেষক ও বাংলাদেশ পরিবেশ ফোরাম চট্টগ্রামের সভাপতি অধ্যাপক ড. ইদ্রিচ আলী, চট্টগ্রাম নদী ও খাল রক্ষা আন্দোলনের সাধারণ সম্পাদক আলীউর রহমান, কর্ণফুলী নদী সাম্পান মাঝি কল্যাণ সমিতি ফেডারেশন সভাপতি এস এম পেয়ার আলী প্রমুখ।