বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০১৯, ৩ শ্রাবণ ১৪২৬

জল ঘোলা করে খান খালেদা-ফখরুল : তথ্যমন্ত্রী

প্রকাশিতঃ সোমবার, এপ্রিল ১, ২০১৯, ৬:৫৬ অপরাহ্ণ

চট্টগ্রাম : বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া ও দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর জল ঘোরা করে খান বলে মন্তব্য করেছেন তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ এমপি।

সোমবার বিকেলে নগরের ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য, সাবেক মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেনের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে তিনি এ মন্তব্য করেন। ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ সম্মাননা স্বাধীনতা পদক পাওয়ায় চট্টগ্রাম উত্তর, দক্ষিণ ও মহানগর আওয়ামী লীগ যৌথভাবে এই সংবর্ধনার আয়োজন করে।

বিএনপির রাজনীতি খালেদা জিয়ার হাঁটুর ব্যথা আর কোমরের ব্যথার মধ্যে সীমাবদ্ধ হয়ে গেছে দাবি করেন তথ্যমন্ত্রী বলেন, বেগম খালেদা জিয়াকে মেডিকেল বোর্ডের পরামর্শক্রমে উন্নত চিকিৎসার জন্য আজ বঙ্গবন্ধু মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় কলেজে স্থানান্তর করা হয়েছে। একমাস আগে থেকেই এখানে খালেদা জিয়ার জন্য দুটি কেবিন বরাদ্দ হয়ে আছে। কিন্তু মির্জা ফখরুল ইউনাইটেড হাসপাতাল ছাড়া খালেদা জিয়ার চিকিৎসা করাবেন না। জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে আমাদের দলের সাধারণ সম্পাদকের এই হাসপাতালেই চিকিৎসা হয়েছে। বিদেশি চিকিৎসদল এসে এই হাসপাতালের চিকিৎসার প্রশংসা করে গেছেন, ভারতের বিশ্ববিখ্যাত কার্ডিওলজিস্ট এই হাসপাতালের চিকিৎসার ভূয়শী প্রশংসা করেছেন। আর সেই হাসপাতাল তাদের পছন্দ নয়।

মন্ত্রী বলেন, অবশেষে অনেক জল ঘোলা করে খালেদা জিয়া আজ বঙ্গবন্ধু হাসপাতালে গেছেন। আজকে মির্জা ফখরুল কথা ঘুরিয়ে বলেন, সেখানে যেন ‘ভালো’ চিকিৎসা হয়। গাদা জল ঘোলা করে খায়। খালেদা জিয়া-মির্জা ফখরুলদেরও সেই দশা হয়েছে। তারাও জল ঘোলা করে খান। – বলেন ড. হাছান মাহমুদ।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, মুক্তিযুদ্ধের সময় আমার বয়স ছিলো ৮ বছর। বয়সের কারণে আমি মুক্তিযুদ্ধে যেতে পারি নি। কিন্তু ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন মুক্তিযুদ্ধে অংশ গ্রহণ করেছেন। তিনি সৌভাগ্যবান। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের হাত ধরে বাংলাদেশ আজকে অনেক উন্নত। সেই যুদ্ধ ও যুদ্ধের পরবর্তী সময়ে ও আওয়ামী লীগ বাংলাদেশের হাল ধরেছিলেন।
তিনি বলেন,বঙ্গবন্ধু যুদ্ধবিধ্বস্থ বাঙালির হাল ধরেছিলেন। প্রায় তিন কোটি শরণার্থীকে বঙ্গবন্ধু দেশে ফিরিয়ে এনে সুশৃঙ্খলভাবে দেশ পরিচালনা করতে শুরু করেছিলেন। কিন্তু ‘৭৫-এর ভয়াল রাত বাঙালির স্বপ্ন ভেঙে দিয়েছে।
বঙ্গবন্ধু চলে গিয়েছেন কিন্তু তার কন্যা ও তার আদর্শে পরিচালিত নেতা-কর্মীদের হাত ধরেই বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে। যোগ করেন তথ্যমন্ত্রী।

অনুষ্ঠানে সংবর্ধিত অতিথি ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন ছাড়াও চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন, চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এবিএম ফজলে করিম চৌধুরী এমপি, সংরক্ষিত আসনের এমপি ওয়াশিকা আয়েশা খান, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আবদুস সালাম, দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোসলেম উদ্দিন আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমান প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

একুশে/এসআর/আইএস/এটি