২৪ মে ২০১৯, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬, বৃহস্পতিবার

কামাল-মোকাব্বিরের ‘গেট আউট’ সমাচার

প্রকাশিতঃ শুক্রবার, এপ্রিল ৫, ২০১৯, ১২:৫০ অপরাহ্ণ

ঢাকা : সিলেট-২ আসন থেকে নির্বাচিত সংসদ সদস্য মোকাব্বির খানকে ‘গেট আউট’ বলে অফিস থেকে বের করে দিলেনে গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন।

দলীয় সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে সংসদ সদস্য হিসেবে শপথ নেয়ার দুদিন পর বৃহস্পতিবার (৪ এপ্রিল) মতিঝিলে ড. কামালের চেম্বারে দেখা করতে যান মোদাব্বির খান। সে সময় তাকে ‘গেট আউট’ বলে অফিস থেকে বের করে দেন ড. কামাল হেসেন। সে সময় গণফোরাম সভাপতি বলেন, আমার বাসা ও চেম্বার আপনার জন্য চিরতরে বন্ধ।

এ বিষয়ে গণফোরামের মিডিয়া সমন্বয়ক লতিফুর বারী হামীম গণমাধ্যমকে জানান, বিকেল সাড়ে তিনটার দিকে মোকাব্বির খান স্যারের (ড. কামাল হোসেন) অফিসে আসেন। এরপর সালাম দিয়ে বলেন, ‘স্যার কিছু কথা ছিল।’ এরপর স্যার (ড. কামাল) রাগান্বিত হয়ে যান। বলেন, ‘‘আপনি সংসদে গেছেন কার অনুমতি নিয়ে। কার কথায়? আপনি আমার নাম বিক্রি করছেন, জায়গায়-জায়গায় বলে বেড়াচ্ছেন, অনুমতি দিয়েছি। আমি অনুমতি দিতে যাবো কেন? এই বেঈমানদের চেহারা আমি দেখতে চাই না। এখান থেকে বেরিয়ে যান, গেট আউট, গেট আউট।

সে সময় উপস্থিত ছিলেন গণফোরামের নির্বাহী সভাপতি সুব্রত চৌধুরী, জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার কেন্দ্রীয় নেতা নুরুল হুদা মিলু চৌধুরী ও ঐক্যবদ্ধ ছাত্র সমাজের সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ উল্লাহ মধু।

এদিকে, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে গণফোরামের সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মোহসীন মন্টু বলেন, মোকাব্বির খানের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হবে। তার শপথ নেয়ার বিষয়ে গণফোরাম সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকসহ কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ কিছুই অবগত নন। তিনি সম্পূর্ণ ব্যক্তিগত ইচ্ছায় শপথ নিয়েছেন। মোকাব্বির খানের সংগঠনের আদর্শবিরোধী কার্যকলাপে গণফোরাম মর্মাহত। এ বিষয়ে মোকাব্বির খান মিডিয়াতে গণফোরাম সভাপতি, সংগঠন বিষয়ে অসত্য ও বিভ্রান্তিমূলক বক্তব্য প্রদান করেছেন–যা অসত্য, ভিত্তিহীন ও বানোয়াট। গণফোরাম জরুরিভাবে মোকাব্বির খানের ব্যাপারে সাংগঠনিক সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবে।

মোকাব্বির খানের শপথ নেয়ার ঘটনার সঙ্গে সংগঠনের অন্য কেউ জড়িত থাকলে তার বিরুদ্ধেও সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে বিবৃতিতে জানানো হয়। তবে, তাৎক্ষণিকভাবে এই বিষয়ে মোকাব্বির খানের কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করে গত সোমবার দুপুর ১২টায় স্পিকার ড. শিরীন শারমিনের কাছে সংসদ সদস্য হিসেবে শপথ নেন সিলেট-২ আসন থেকে গণফোরামের দলীয় প্রতীক ‘উদীয়মান সূর্য’ নিয়ে নির্বাচিত এ নেতা।

৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনে ‘ভোট ডাকাতি’র অভিযোগ তুলে সংসদ সদস্য হিসেবে শপথ না নেয়ার সিদ্ধান্ত নেয় জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। ঐক্যফ্রন্টের শরিক দল গণফোরাম থেকে নির্বাচিত দুজনই শপথ নেন।

এর আগে শপথ নেন সুলতান মোহাম্মদ মনসুর। মৌলভীবার-২ আসনে ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে তিনি নির্বাচিত হন।

সুলতান মো. মনসুর আহমেদকে শপথ নেয়ার সঙ্গে সঙ্গে গণফোরাম থেকে বহিষ্কার করা হয়। মোকাব্বিরের বিষয়টি এখনও ঝুলে আছে।

একুশে/আরসি/এটি