২৭ জুন ২০১৯, ১২ আষাঢ় ১৪২৬, বুধবার

সন্ত্রাসী হামলায় আহত সাংবাদিককে দেখতে গেলেন এসপি, আটক ৩

প্রকাশিতঃ বুধবার, এপ্রিল ১৭, ২০১৯, ২:০৯ অপরাহ্ণ

চট্টগ্রাম: সন্ত্রাসী হামলায় আহত দৈনিক আজাদীর ফটিকছড়ি প্রতিনিধি এমএস আকাশের চিকিৎসার খোঁজখবর নিতে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে গিয়েছেন চট্টগ্রামের পুলিশ সুপার (এসপি) নুরেআলম মিনা।

বুধবার সকালে হাসপাতালে গিয়ে পুলিশ সুপার নুরেআলম মিনা বলেন, কি কারণে হামলাটা হয়েছে, সেটা এই মুহুর্তে তদন্তের স্বার্থে বলতে পারব না। তবে এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে তিনজনকে আটক করা হয়েছে। এদের মধ্যে একজন সরাসরি জড়িত বলে প্রাথমিকভাবে স্বীকার করেছে। হামলাকারীদের ধরতে অভিযান চলছে।

হামলাকারীদের কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না বলেও জানান পুলিশ সুপার।

ফটিকছড়ি থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো.আরিফুর রহমান বলেন, সন্দেহভাজন হিসেবে ৩ জনকে আটক করা হয়েছে। এদের মধ্যে নঈমুদ্দিন নামে একজন ঘটনায় জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছে। তার তথ্য অনুযায়ী হামলার ৮ থেকে ১০ জন অংশ নেয়। জড়িতদের নাম সে আমাদের জানিয়েছে।

এর আগে গতকাল মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১০ টার দিকে ফটিকছড়ির আজাদী বাজার থেকে মোটরসাইকেলে বাড়ি ফেরার পথে দায় মোল্লা তালুকদার বাড়ির ঘাটা এলাকায় ৮-৯ জন সশস্ত্র দুর্বৃত্তরা আকাশের উপর এলোপাতাড়ি হামলা চালায়।

হামলায় হাত-পাসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে গুরুতর আঘাত পেয়েছেন সাংবাদিক আকাশ। রাত ১২টার দিকে স্থানীয়রা তাকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে নিয়ে আসেন।

চমেক হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়িতে দায়িত্বরত এএসআই শীলব্রত বড়ুয়া বলেন, গুরুতর আহত অবস্থায় সাংবাদিক আকাশকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তার শরীরের বিভিন্ন অংশে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। বাম পা ভেঙ্গে গেছে।

হামলাকারীরা মুখোশধারী ছিল বলে জানিয়ে সাংবাদিক আকাশ বলেন, দুর্বৃত্তরা ছিল মুখোশধারী। তারা তাকে দেখেই হামলা করে মোটর সাইকেল থেকে ফেলে দেয়। তারপর এলোপাতাড়ি হামলা শুরু করে। এ সময় আমার চিৎকারে বাজার ফেরত অন্য পথচারীরা চলে আসলে হামলাকারীরা পালিয়ে যায়।

এদিকে সাংবাদিক আকাশের উপর হামলার ঘটনায় দুর্বৃত্তদের চিহ্নিত করে আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে গ্রেপ্তার পূর্বক শাস্তির আওতায় আনার দাবি জানিয়েছেন চট্টগ্রামের সাংবাদিক নেতারা।

প্রসঙ্গত সড়ক নির্মাণে অনিয়মের সংবাদ প্রকাশ করায় গত বছর প্রভাবশালী মহলের ইশারায় আইসিটি অ্যাক্টের মামলায় আসামি করা হয় সাংবাদিক আকাশকে। তখন মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে আন্দোলনে নামে চট্টগ্রামের সাংবাদিক সমাজ।

এদিকে সাম্প্রতিক সময়ে বেশকিছু সাহসী প্রতিবেদন প্রকাশ করায় স্থানীয় প্রভাবশালী মহল আকাশের প্রতি ক্ষুব্ধ ছিল।