রবিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৭ আশ্বিন ১৪২৬

সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ থেকে দূরে থাকতে প্রধানমন্ত্রীর আহবান

প্রকাশিতঃ বুধবার, এপ্রিল ২৪, ২০১৯, ৯:৫২ অপরাহ্ণ


সংসদ ভবন : প্রধানমন্ত্রী এবং সংসদ নেতা শেখ হাসিনা সন্ত্রাস এবং জঙ্গিবাদ থেকে দূরে থাকতে এবং এধরনের জঘন্য ঘটনায় কেউ যেন সম্পৃক্ত না হন সেদিকে সতর্ক থাকার জন্য দেশবাসীর প্রতি আহবান জানিয়েছেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘দেশবাসীর কাছে আমার এটাই আহবান থাকবে এই ধরনের সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ থেকে যেন সকলেই দূরে থাকে, এ ধরনের ঘৃণ্য কাজের সঙ্গে কেউ যেন জড়িত না হয়। সেটাই আমার কাম্য।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের দেশেও আমরা দেখি বোমা হামলা এবং সন্ত্রাসী হামলা। যা আমরা কঠোর হস্তে দমন করেছি। তিনি বলেন, ‘আমি দেশবাসীকে বলবো দেশবাসীকে সতর্ক থেকে কোথাও যদি এরকম অস্বাভাবিক কিছু তারা পায়, তাহলে তারা সাথে সাথে আমাদের আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে যেন জানায়।
প্রধানমন্ত্রী এবং সংসদ নেতা শেখ হাসিনা আজ রাতে জাতীয় সংসদে তাঁর জন্য নির্ধারিত প্রশ্নোত্তর পর্বে সরকার দলীয় সংসদ শহীদুজ্জামান সরকারের তারকা চিহ্নিত প্রশ্ন ১ এর উত্তর প্রদানের আগে তাঁর প্রারম্ভিক বক্তব্যে একথা বলেন। ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী এ সময় স্পিকারের দায়িত্ব পালন করছিলেন।

এরআগে আওয়ামী লীগের সভাপতি মন্ডলীর সদস্য শেখ ফজলুল করিম এমপি’র নাতী জায়ান চৌধুরী কলম্বোতে বোমা হামলায় নিহতের ঘটনা, ফেনীর সোনাগাজীতে মাদ্রাসা ছাত্রী নুসরাত জাহান রাফির হত্যাকান্ড, বনানী এফআর টাওয়ারে অগ্নিকান্ডের ঘটনায় ফায়ারম্যান সোহেল রানার মৃত্যু এবং নিউজিল্যান্ডের ক্রাইষ্টচার্চের দুটি মসজিদে সন্ত্রাসী হামলাসহ কতিপয় ঘটনার প্রেক্ষিতে জাতীয় সংসদে শোক প্রস্তাব গৃহীত হয়।

প্রধানমন্ত্রী শ্রীলংকায় বোমা হামলায় ছোট্ট শিশু জায়ান চৌধুরী নিহত হবার ঘটনায় গভীর শোক ও দু:খ প্রকাশ করে নিহত জায়ানের আহত বাবার দ্রুত আরোগ্য কামনা করেন এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি সমবেদনা জানান।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, এই ধরনের সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ, বোমা হামলার নিন্দা জানানোর ভাষা আমার নেই। আমি এর তীব্র নিন্দা জানাই। যারা ছোট্ট শিশু নিষ্পাপ তারা কেন এভাবে জীবন দেবে।

তিনি বলেন, ঠিক এর কিছুদিন আগেই নিউজিল্যান্ডের একটি মসজিদে সরাসরি গুলি করে নারী, পুরুষ শিশুসহ অনেকগুলো মানুষকে হত্যা করা হলো।
নিউজিল্যান্ড সফররত বাংলাদেশ ক্রিকেট দল সে সময় অল্পের জন্য প্রাণে বেঁচে যায় উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের ক্রিকেট টিম সেখানে ছিল, খুব অল্পের জন্য তাঁরা বেঁচে গিয়েছিল।’
তিনি বলেন, ‘সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ কখনও মানুষের কোন কল্যাণ বয়ে আনতে পারে না।’

তিনি সম্প্রতি সোনাগাজিতে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে হত্যা করা নুসরাত জাহান রাফির প্রসঙ্গ উল্লেখ করেন।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘নুসরাতের সাথী যারা তার গায়ে কেরসিন তেল ঢেলে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে মারলো। যে একটা অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করেছিল। এই ধরনের ঘটনাগুলো সমগ্র মানবজাতির জন্যই অকল্যাণকর।’
তিনি বলেন, ‘আমরা চাইনা এ ধরনের ঘটনা পৃথিবীর কোথাও আর ঘটুক।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘যারা সন্ত্রাসী এবং জঙ্গিবাদি তাঁদের কোন ধর্ম নাই, দেশ কাল পাত্র নাই, জঙ্গি জঙ্গিই সন্ত্রাসী, সন্ত্রাসীই।’
তিনি বলেন, ইসলাম শান্তির ধর্ম এবং কখনো জঙ্গিবাদ সমর্থন করে না। তিনি বলেন, ‘এরা আমাদের পবিত্র ধর্মটাকেই সমগ্র মানবজাতির কাছে হেয় প্রতিপন্ন করে দিচ্ছে। তিনি বলেন, কেবল ইসলাম নয়, সকল ধর্মেই শান্তির বাণী প্রচার করা হয়েছে।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘কিছু লোক ধর্মীয় উন্মাদনায় মানুষের প্রতি যে আঘাত আনে, জীবন কেড়ে নেয়, এটা মানব জাতির জন্য অত্যন্ত বেদনাদায়ক এবং কষ্টকর।

প্রধানমন্ত্রী শ্রীলংকায় বোমা হামলার ঘটনায় শেখ ফজলুল করিম সেলিম এমপি’র নাতী জায়ান চৌধুরীর মৃত্যুর প্রসংগ উল্লেখ করে বলেন, ‘একটা ছোট বাচ্চা মাত্র ৮ বছর বয়স, আজকে সে আমাদের মাঝে নেই। তাঁর বাবাও মৃত্যুশয্যায়, বাবাকে এখনও জানতে দেওয়া হয়নি যে, জায়ান নেই। সে বারবার খুঁজজে। আর তাঁর মা বা পরিবার কেমন সময় অতিবাহিত করছে তা আপনারা বুঝতেই পারছেন।